বেগমগঞ্জে গৃহবধূর উপর পাশবিকতার প্রতিবাদে ছাত্র জমিয়তের বিক্ষোভ মিছিল

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নারকীয় নারী নির্যাতন এবং সারা দেশে অব্যাহত ধর্ষণ, ও নারী নিপীড়নের ঘটনার প্রতিবাদে আজ (৫ অক্টোবর) সোমবার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইটে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত।

মিছিলপূর্ব প্রতিবাদ সমাবেশে ছাত্র জমিয়ত ঢাকা মহানগরীর সহ সভাপতি মাওলানা ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নূর হোসাইন সবুজের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন।

মাওলানা জয়নুল আবেদীন দেশে ক্রমবর্ধমান ধর্ষণ ও গণধর্ষণের মতো অপরাধে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, শুধু ধর্ষণের বিচার চাইলে বা কয়েকটা অপরাধীকে শাস্তি দিলে এই বর্বরতা বন্ধ হবে না। নারী নির্যাতনের আইনকে যথা যথভাবে কার্যকর করতে হবে।

তিনি বলেন, পুলিশের নথি অনুযায়ী২০১৯ সালে নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা হয়েছে ৫৬০০টি। হাতে গোণা কয়েকটি মামলা নিস্পত্তি হলেও বাকী মামলাগুলোর কোন হদিস নেই। এভাবে ধর্ষণ বন্ধ করা যাবে না। ধর্ষণ বন্ধ করতে হলে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় ধর্মীয় ও নৈতিকতার শিক্ষা যুক্ত করে ঢেলে সাজাতে হবে। ব্যভিচার বন্ধে শক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। সহশিক্ষা বন্ধ করে সকল স্তরে পৃথক শিক্ষাব্যবস্থা চালু করতে হবে। পাশাপাশি পৃথক কর্মসংস্থান ও নগর চলাচলে পৃথক যানবাহনের ব্যবস্থা করতে হবে। বিয়ে ব্যবস্থায় বয়স ও অন্যান্য সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করতে হবে।

মাওলানা জয়নুল বলেন, একদিকে আইনের শাসন আর অপর দিকে নারী পুরুষের সহাবস্থান দূর করতে পারলে নারী নির্যাতন, নারী দর্ষণসহ অনেক অপরাধ খতম হয়ে যাবে।

বিক্ষোভ মিছিলে প্রধান বক্তার বক্তব্যে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ’র কেন্দ্রীয় সভাপতি এখলাসুর রহমান রিয়াদ বলেন, দেশে নারী নির্যাতনে ধর্ষণ ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রায় সকল ঘটনায় ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রসংগঠনের নাম উঠে আসে। সরকারের ছত্রছায়ায় ছাত্রলীগ বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তারা তাদের ছাত্ররাজনীতির নৈতিক অধিকার হরিয়েছে।

অন্যন্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মাহবুবুল আলম, যুব জমিয়ত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইসহাক কামাল, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহ সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দীন মানিক, রুহুল আমিন, ঢাকা মহানগরীর সহ সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াকুব কামাল, অর্থ সম্পাদক মাহদী হাসান, বারিধারা ক্যাম্পাস শাখা সভাপতি মাহমুদ হাসান, ছাত্রনেতা আহমদুল্লাহ আসিম, রাকিবুল ইসলাম, আতাউর রহমান মারুফ, মতিউর রহমান, মিনহাজ খান প্রমুখ।

প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট থেকে শুরু হয়ে পল্টন মোড় হয়ে বিজয় নগরে গিয়ে শেষ হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *