বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে অসত্য বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে বহিষ্কৃত আতর আলীর শুনানি সংসদে

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে নিয়ে ‘অসত্য’ বক্তব্য দেয়ায় সাময়িক বরখাস্ত মো. আতর আলীর শুনানি জাতীয় সংসদে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) সংসদে নিষিদ্ধ আতর আলীর লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতে সংসদের উত্তর পশ্চিম ব্লকের ৭৩১ নম্বর কক্ষে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগনামার চিঠির জবাবে ব্যক্তিগত শুনানির আগ্রহ প্রকাশ করেন তিনি। সংসদের সহকারী সচিব মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সংসদের চতুর্থ শ্রেণির কর্মকর্তা সমিতির সাবেক সভাপতি আতর আলীর সংসদে যাওয়ার পরিচয়পত্রও জব্দ করা হয়েছে। বিভাগীয় মামলাও হয়েছে তার বিরুদ্ধে। তিনি সংসদ নেতার কার্যালয়ে চাকরি করতেন।

এ বিষয়ে মোহাম্মদ তারেকুজ্জামান বলেন, ‘আতর আলী এসেছিলেন। শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। কারো বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা চলমান হলে ব্যক্তিগত সাক্ষাতে কোনো কিছু বলতে চায় কিনা, সেটা একটা আনুষ্ঠানিকতা। তিনি ব্যক্তিগত কৈফিয়ত দিয়েছেন।’

এর আগে ১৩ সেপ্টেম্বর তার পরিচয়পত্র জমা দেয়ার জন্য চিঠি দেয়া হয়। সংসদের ডেপুটি সার্জেন্ট অ্যাট আর্মস অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপারেশন্স) এস এম সিরাজুল হুদা তার আইডি কার্ড জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। এরপর আতর আলী লোক মারফত পরিচয়পত্র জমা দেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সরকারি চাকরিজীবী হয়েও রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিকে নিয়ে ‘অসত্য’ বক্তব্য দেয়ায় আতর আলীকে সংসদ এলাকায় নিষিদ্ধ করা হয়। এছাড়া তার বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হবে না সে বিষয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। সংসদের একাধিক সূত্র ও আতর আলীর সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

গত ৬ সেপ্টেম্বর সংসদের সিনিয়র সহকারী সচিব মোহাম্মদ খালেদুর রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিতে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। সেখানে তাকে লেখা হয়, ‘আপনি গত ১৭ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে জাতীয় সংসদ সচিবালয় আয়োজিত আলোচনা সভা দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি সম্পর্কে অসত্য বক্তব্য দেন। যেহেতু বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রের সব ব্যক্তির ঊর্ধ্বে স্থান লাভ করেন, কোনো ব্যক্তির পক্ষে তার সম্পর্কে প্রকাশ্যে কোনো অসত্য বক্তব্য প্রদান করা দেশের সংবিধান পরিপন্থী।’

এ বিষয়ে মো. আতর আলী বলেন, ‘ওই বক্তব্য দেয়ার কারণে আমাকে সংসদ এলাকায় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আমি আর কী করব, কপালে যে দুর্ভোগ আছে তাই হবে। কারণ দর্শানোর নোটিশ পাওয়ার পরদিনই আমি জবাব দিয়েছি।’

spot_img
spot_img

সর্বশেষ