শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১

আফগানিস্তানের সেনা প্রত্যাহার এখনও ‘শর্ত-নির্ভর: শীর্ষ মার্কিন জেনারেল

পেন্টাগনের শীর্ষ জেনারেল জয়েন্ট চিফ চেয়ারম্যান জেনারেল মার্ক মিলেই বলেছেন, আফগানিস্তান থেকে আমেরিকার আরও সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি নির্ভর করছে সহিংসতার মাত্রা কমানো এবং অন্যান্য শর্তের উপর যেগুলোর ব্যাপারে তালেবানদের সাথে ফেব্রুয়ারির চুক্তিতে ঐক্যমত অর্জিত হয়েছে।

সোমবার (১২ অক্টোবর) এনপিআর রেডিওতে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন।

পেন্টাগনের এই শীর্ষ জেনারেল বলেন, শেষ ৪৫০০ সেনা প্রত্যাহার নির্ভর করছে তালেবানদের হামলার মাত্রা কমানো এবং কাবুল সরকারের সাথে শান্তি আলোচনার অগ্রগতির উপর।

মিলেই এনপিআরকে বলেন, “পুরো চুক্তি এবং সেনা প্রত্যাহারের সব পরিকল্পনায় শর্ত-সাপেক্ষ”।

তিনি বলেন, “মূল বিষয় হলো আমরা এখানে দায়িত্বশীলতার সাথে, স্বেচ্ছাপ্রণোদিতভাবে যুদ্ধের সমাপ্তি টানার চেষ্টা করছি, এবং এটা করা হবে সেই সব শর্ত সাপেক্ষে যেগুলো আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে”।

মিলেই উল্লেখ করেন যে, ফেব্রুয়ারি চুক্তির প্রেক্ষিতে মার্কিন সেনার সংখ্যা ১২০০০ থেকে অনেকটাই কমিয়ে আনা হয়েছে। বাকি সেনাদের প্রত্যাহারের জন্য তালেবান ও কাবুলের মধ্যে দর কষাকষি এবং সহিংসতা অনেকখানি কমিয়ে আনার উপর নির্ভর করছে।

মিলেই বলেন, “এটা সব সময় বোঝাপড়ায় ছিল। প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্ত সেটাই – শর্ত সাপেক্ষে সেনা প্রত্যাহার”।

তিনি বলেন, কয়েক বছর আগের তুলনায় সহিংসতা অনেকটাই কম এখন, কিন্তু বিগত চার বা পাঁচ মাসে সহিংসতা
সেভাবে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমেনি। পেন্টাগন সেখানকার সেনা সংখ্যা ৪৫০০ এর কাছাকাছি ধরে রেখেছে। দোহা আলোচনার অগ্রগতি কেমন সেটা পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

কিন্তু ওয়াশিংটন থেকে যে নীতি ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, সেটা বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে।

গত সপ্তাহে ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ওব্রায়ান বলেন, আগামী বছরের শুরুর দিকে সেনা সংখ্যা ২৫০০ তে নামিয়ে আনা হবে।

তবে বুধবার ট্রাম্প টুইটে প্রতিশ্রুতি দেন যে, ২৫ ডিসেম্বরের মধ্যে তিনি সব সেনাদের ফিরিয়ে আনবেন।

৩ নভেম্বরের নির্বাচনে ট্রাম্পকে যখন কঠিন লড়াই করতে হচ্ছে, সেই প্রেক্ষিতেই এই প্রতিশ্রুতি দিলেন তিনি। এই স্বল্প সময়ের মধ্যে পুরোপুরি সেনা প্রত্যাহারকে লজিস্টিকসের দিক থেকে অবাস্তবিক মনে হচ্ছে এবং এটা শান্তি আলোচনায় কাবুল সরকারকে দুর্বল করে দেবে বলেও আশঙ্কা রয়েছে।

কিন্তু গেলো সপ্তাহেও হেলমন্দ প্রদেশের রাজধানী লস্কর গাহের উপকণ্ঠে ভারি লড়াই হয়েছে। মার্কিন বাহিনী সেখানে তালেবান যোদ্ধাদের টার্গেট করে বিমান হামলাও করেছে।

মিলেই সেনাদের সুনির্দিষ্ট সংখ্যা উল্লেখ করতে অস্বীকার করে বলেন ভবিষ্যতে কি পরিমাণ সেনা প্রত্যাহার করা হবে, সে সংখ্যা প্রেসিডেন্ট নির্ধারণ করবেন।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও এএফপি

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img