শীতকালে সীমান্ত গরম রাখতে সেনাদের সুসজ্জিত করেছে চীন

শীতকালিন সরবরাহ এবং টহল গিয়ারের জন্য তিব্বতের সেনাদেরকে এবার অগ্রাধিকার দিচ্ছে চীন। হিমালয় অঞ্চলের বিতর্কিত সীমান্তে ভারতীয়দের বিরুদ্ধে উত্তেজনা জারি থাকতে পারে, এমন আশঙ্কার মধ্যে চীন সেনাদেরকে প্রস্তুত রাখছে বলে দেশটির সামরিক সূত্র জানিয়েছে।

যদিও শীতের কারণে দুই দেশের বাহিনীর নিরস্ত হওয়ার একটা কারণ তৈরি হবে, কিন্তু জুন মাসের সঙ্ঘাতের কারণে এবং অকার্যকর আলোচনা প্রক্রিয়ার কারণে এ ধরণের ঘটনা আবার ঘটার আশঙ্কা একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

চীনের সামরিক বাহিনীর একটি সূত্র জানিয়েছে, সরঞ্জামাদি দেওয়ার ক্ষেত্রে চীন সাধারণত পূর্বের ও উত্তরের আর্মি ইউনিটগুলোকে অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। কিন্তু এবার পশ্চিম তিব্বতের ফ্রন্টলাইনের সেনাদেরকে এ ব্যাপারে অগ্রাধিকার দিচ্ছে পিপলস লিবারেশান আর্মির লজিস্টিক্স ডিপার্টমেন্ট।

সূত্র বলেছে, “নতুন যে শীতকালীন কমব্যাট গিয়ার দেওয়া হয়েছে, ২০ সেপ্টেম্বর তিব্বতে সেটার পরীক্ষা করা হয়েছে এবং পরে সেটাকে তিব্বতের শীতের উপযোগি করে উন্নত করা হয়েছে। তিব্বতের ফ্রন্টলাইনের সেনাদেরকে এরই মধ্যে সেগুলো দিয়ে সুসজ্জিত করা হয়েছে”।

তারা আরও বলেন, “লজিস্টিক্স ডিপার্টমেন্ট সেনাবাহিনীর উত্তরাঞ্চলীয় ও অন্যান্য ইউনিট থেকে আরও শীতের গিয়ার এনে তিব্বতের ফ্রন্টে সরবরাহ করছে”। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু তারা জানাননি।

পিএলএ’র নতুন শীতকালিন টহল গিয়ারের মধ্যে রয়েছে থার্মাল হুড, শীতকালীন প্রশিক্ষণের পোষাক, ওভারকোট, জলীয় বাস্প-শোষণক্ষম এবং দ্রুত শুকানোর উপযোগি আন্ডারওয়্যার, পানিরোধী থার্মাল গ্লোভ ও মোজা, তুষাররোধী গ্লাস এবং বহুমুখী থার্মাল ওয়াটার বোটল।

কমিউনিস্ট পার্টির মুখপাত্র পিপলস ডেইলি চলতি সপ্তাহে জানিয়েছে যে, পিএলএ নতুন ব্যারাক নির্মাণ করেছে, যেখানে শীতকালের জন্য উন্নততর হিটিং ব্যবস্থা এবং অক্সিজেনের সরবরাহ রয়েছে।

মূলত সৌর শক্তি চালিত এই ব্যারাকগুলো কক্ষের তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত ধরে রাখতে পারে, যদিও বাইরের তাপমাত্রা মাইনাস ৫৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসও হয়।

সামরিক ভাষ্যকার সোং ঝোংপিং বলেছেন, নতুন টহল গিয়ার ‘আগের গিয়ারের চেয়ে অনেক হালকা’ যাতে শারীরিক বোঝার পরিমাণ কমবে। তিনি বলেন, “তাছাড়া মালভূমি পরিস্থিতিতে এই গিয়ারে ক্যামোফ্লাজেরও অতিরিক্ত সুবিধা রয়েছে”।

নভেম্বরের পর থেকে হিমালয় অঞ্চলে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির নিচে নেমে আসতে পারে। ভারি তুষারপাত আর প্রবল বাতাসের কারণে প্রায় অর্ধেক বছর জুড়ে সেখানে সরবরাহ বন্ধ থাকে। সে কারণে সেখানে অবস্থানরত সেনাদের চাহিদাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়।

চীন ও ভারতের সিনিয়র সামরিক কমান্ডাররা যদিও ফ্রন্টলাইনে অতিরিক্ত সেনা আর না পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, তবে কোন পক্ষই তাদের জনবল কমানোর লক্ষণ দেখাচ্ছে না।

ভারতের জওহরলাল নেহরু ইউনিভার্সিটির স্কুল অব ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের অধ্যাপক সরন সিং বলেন, শীতকালিন পরিবেশের কারণে তারা হয়তো সেনাদের নিরস্ত রাখার কথা ভাবতে পারে, “কিন্তু বাস্তবে সেটা বাস্তবায়ন করাটা কঠিন হবে”।

সিং বলেন, “উভয় পক্ষের অনেক বিষয়ে বোঝাপড়াটা ভিন্ন রকম। এর মধ্যে একটি হলো লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল কোথা দিয়ে গেছে। শীতকাল হয়তো স্থিতাবস্থা বজায় রাখার একটা সুযোগ তৈরি করতে পারে এবং সেনা সরিয়ে নেয়ার আলোচনার সুযোগ দিতে পারে”।

সিং বলেন, শীতকালে যদিও একটা সার্বিক যুদ্ধের সম্ভাবনা খুবই কম। তবে দুই বাহিনীর মধ্যে ছোটখাট সঙ্ঘাতের আশঙ্কা রয়েই গেছে।

সীমান্তে সেনাদের সংখ্যা নিয়ে চীন সবসময় মুখ বন্ধ রেখেছে, কিন্তু চীনা রাষ্ট্রীয় মিডিয়া জানিয়েছে যে, নতুন এয়াক্র্যাফট অ্যাপ্রন তৈরি করা হচ্ছে এবং তিব্বতের শহরগুলোর বেশ কিছু হাসপাতালেও প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *