বৃহস্পতিবার, মে ২৬, ২০২২

পৌরভবন থেকে মেয়র কাদের মির্জার শতাধিক অনুসারীকে বের করে দিল প্রশাসন

নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার শতাধিক অনুসারীকে বসুরহাট পৌরসভা ভবন থেকে বের করে দিয়েছে প্রশাসন। এর আগে পৌর ভবনে অভিযান চালায় জেলা পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন কর্মকর্তারা।

সোমবার (৫ এপ্রিল) রাত ৯টার দিকে মির্জা কাদেরের অনুসারী বহিরাগতদের বসুরহাট পৌরসভা ভবন থেকে বের করে দেওয়া হয়।

জানা যায়, কোম্পানীগঞ্জে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও কাদের মির্জার মধ্যে বিবদমান দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন থেকে মির্জা কাদেরের শতাধিক অনুসারী পৌরসভা ভবনের তৃতীয় তলায় অবস্থান করে আসছিল। সন্ধ্যায় ফের বসুরহাট পৌরসভার করালিয়া এলাকায় দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হলে দু’পক্ষের নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এবং পৌর ভবনে বহিরাগতদের ভিড় বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে রাত ৯টার দিকে প্রশাসনের কর্মকর্তারা পৌর ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে মির্জা কাদেররের অনুসারী বহিরাগতদের পৌর ভবন ছাড়তে ৫ মিনিটের সময় বেধে দিয়ে মাইকিং করে। পরে প্রশাসনের উপস্থিতিতে মির্জা কাদেরের অনুসারীরা পৌরসভা ভবন ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়।

অভিযানে অংশ নেয় নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) শামীম কবির, সহকারী পুলিশ সুপার (হাতিয়া সার্কেল) মো. ফারুক, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুপ্রভাত চাকমা, কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর জাহিদুল হক রনি, পরিদর্শক (তদন্ত) রবিউল হক।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াউল হক মীর জানান, সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে করোনা কালীন সময়ে শতাধিক বহিরাগত ব্যক্তি এক সাথে পৌর ভবনে অবস্থান করায় তাদেরকে পৌর ভবন থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা জানান, করোনাকালীন মাস্ক বিতরণ, পৌর নাগরিকদের সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালানো, জীবাণু নাশক স্প্রে ছিটানোর বিষয়ে এবং সরকার ঘোষিত লকডাউন কার্যকর করার ব্যাপারে পৌরসভার কর্মচারী, কর্মকর্তা ও স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে মতবিনিময় চলাকালে প্রশাসন এসে অবৈধভাবে বাধার সৃষ্টি করে। এবং কিছু দিন থেকে অযথা পৌরসভার রুটিন কাজেও হস্তক্ষেপ করে আসছে। আমরা কিন্তু চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে আসছি।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img