মঙ্গলবার, মে ২৪, ২০২২

পাকিস্তানে ভাঙ্গনের মুখে ইমরান খান বিরোধী জোট

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বিরোধী ১১ দলীয় জোটে (পিডিএম) ভাঙন স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। এরই মধ্যে শোকজ নোটিশ পাঠানো হয়েছে পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) এবং আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টিকে (এএনপি)। তবে কী কারণে এ শোকজ তা বলা হয়নি।

জানা যায়, পিডিএমের ২রা এপ্রিলের বৈঠকে যোগ দেয়নি পিপিপি এবং এএনপি। এছাড়া এ দুটি দল পিডিএমের সিদ্ধান্তকে লঙ্ঘন করেছে। তারা ক্ষমতাসীন ইমরান খান সরকারের সঙ্গে আঁতাত করছে বলে অভিযোগ আনা হয়। পিডিএমের বৈঠকে ওই দুটি দলকে শোকজ নোটিশ পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। শোকজ পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পিডিএমের সেক্রেটারি জেনারেল এবং পাকিস্তান মুসলিম লিগ নওয়াজের (পিএমএলএন) শাহিদ খাকান আব্বাসী। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন।

এ নিয়ে পাকিস্তানের জনপ্রিয় ডন নিউজের সঙ্গে কথা বলেছেন আব্বাসী। তিনি বলেন, পিডিএম প্রেসিডেন্ট মাওলানা ফজলুর রহমানের অনুমোতিক্রমে শোকজ নোটিশ পাঠানো হয়েছে এ দুটি দলকে। তা পাঠানো হয়েছে হোয়াটসঅ্যাপে। সোমবার সিনেট অধিবেশনের সময় এর মূল কপি তাদের হাতে তুলে দেওয়া হবে। নোটিশে উভয় দলকেই জবাব দিতে সাতদিন সময় দেওয়া হয়েছে।

আব্বাসী বলেন, তারা যে উত্তর দেবে তা নিয়ে বিরোধী জোটের সংসদীয় দলের মধ্যে একটি বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে। পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবে পিডিএম।

তিনি বলেন, নোটিশে এ বিষয়টি প্রকাশ্যে না আনতে বিরোধী জোটের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। তবে যদি ওই দুটি দল মনে করে তাহলে তারা তা প্রকাশ করতে পারে। এরই মধ্যে বিরোধী দল পিপিপির সিনেট নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানি নোটিশ পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন।

এখন যদি ইমরান খান বিরোধী জোট পিডিএম ভেঙে যায় তাহলে কী হবে? এমন প্রশ্ন সামনে আসা স্বাভাবিক। গত সপ্তাহে পিডিএম সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা পিপিপি এবং এএনপি’কে বাদ দিয়েই সামনে চলবে। এক্ষেত্রে তারা বিরোধী ৫টি দলকে নিয়ে একটি নতুন জোট গঠন করবে। এই ৫টি দলের সিনেটে আছে ২৭ জন সদস্য। এই দলগুলো হলো পিএমএলএন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (জেইউআইএফ), পখতুনখাওয়া মিল্লি আওয়ামী পার্টি (পিকেএমএপি), ন্যাশনাল পার্টি (এনপি) এবং বেলুচিস্তান ন্যাশনাল পার্টি (বিএনপি-মেঙ্গল)।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img