রবিবার, নভেম্বর ২৮, ২০২১

চীনা প্রতিরক্ষামন্ত্রীর নেপাল ও পাকিস্তান সফরের নেপথ্যে

চীনের স্টেট কাউন্সিলর ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল ওয়ে ফেঙ্গে ২৯ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত নেপাল ও পাকিস্তান সফর করেছেন। চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমের দেশগুলোর মধ্যে নেপাল ও পাকিস্তান খুবই গুরুত্বপূর্ণ বন্ধুপ্রতীম প্রতিবেশী। তাই চীনের দক্ষিণ-পশ্চিম সীমান্তের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য জেনারেল ওয়ের সফরের ব্যাপক রাজনৈতিক তাৎপর্য রয়েছে।

নেপার সফরে তিনি প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবি ভান্ডারি এবং প্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী কে পি শর্মা ওলির সঙ্গে সাক্ষাত করেন। পাকিস্তান সফরে গিয়ে অন্য নেতাদের পাশাপাশি তিনি প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি ও প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন।

নেপাল দৃঢ়ভাবে এক-চীন নীতি অনুসরণ করায় জেনারেল ওয়ে দেশটির ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, নেপালের জাতীয় স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও ভৌগলিক অখণ্ডতা রক্ষায় দেশটির প্রচেষ্টাকে দৃঢ়ভাবে সমর্থন করে চীন। বেইজিং বরাবরের মতো কাঠমান্ডুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রক্ষা, গভীর দ্বিপাক্ষিক বাস্তবিক সহযোগিতা প্রদান এবং নেপাল সেনাবাহিনীকে গড়ে তুলতে সাহায্য ও সহায়তা দিয়ে যাবে। পাশাপাশি, দুই জাতির কল্যাণ এবং আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় আরো বেশি অবদান রাখবে।

চীন ও পাকিস্তানের সর্ব মওসুমের কৌশলগত সহযোগিতামূলক অংশীদারিত্বটি বিশ্বে অনন্য। দুই দেশের নেতৃত্বের অধীনে উভয় পক্ষ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতা জোরদার করে চলেছে এবং পরস্পরের কোর স্বার্থগুলোর সঙ্গে জড়িত ইস্যুগুলোতে পরস্পরকে দৃঢ়ভাবে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। দ্বিপাক্ষিক সামরিক সম্পর্ক আরো উচ্চ পর্যায়ে নেয়া, বিভিন্ন ঝুঁকি ও চ্যালেঞ্জ যৌথভাবে মোকাবেলা, দুই দেশের সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা স্বার্থগুলো দৃঢ়ভাবে সুরক্ষিত রাখা ও আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা বলিষ্ঠতার সঙ্গে বজায় রাখার জন্য পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ করা, কৌশলগত পারস্পরিক আস্থা জোরদার ও কৌশলগত সহযোগিতা শাক্তিশালী করতে চায় চীন।

নেপালে দেশটির সেনাপ্রধান জেনারেল পূর্ণ চন্দ্র থাপার সঙ্গে আলোচনা করেন চীনা প্রতিরক্ষামন্ত্রী। তারা আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি এবং দুই সেনাবাহিনীর সম্পর্ক নিয়ে গভীর মতবিনিময় করেন। জেনারেল ওয়ে পাকিস্তানের জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ কমিটির চেয়ারম্যান জেনারেল নাদিম রাজা ও সেনাপ্রধান জেনারেল কমর জাভেদ বাজওয়া সঙ্গে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি, দ্বিপাক্ষিক সামরিক সম্পর্ক, সরঞ্জাম সরবরাহ ও কারিগরি সহযোগিতা নিয়ে গভীর মতবিনিময় করেন।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়, ৩০ নভেম্বর চীনা প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও পাকিস্তানের সেনাপ্রধান আঞ্চলিক নিরাপত্তা ইস্যুগুলো নিয়ে আলোচনা করেন এবং দুই সর্ব মওসুমের কৌশলগত অংশীদারদের মধ্যে প্রতিরক্ষা সহযোগিতা বিষয়ক চুক্তি সই হয়েছে। একই দিন পাকিস্তানের আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ বিভাগের এক বিবৃতিতে বলা হয় যে, আলোচনাকালে দুই পক্ষ অভিন্ন স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি, আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা সহযোগিতা নিয়ে কথা বলেন। দুই সেনাবাহিনীর মধ্যে প্রতিরক্ষা সহযোগিতা জোরদার করতে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয় বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এই অঞ্চল ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে পাকিস্তানের প্রধান ইস্যুগুলোতে চীন দৃঢ়ভাবে সমর্থন করায় জেনারেল বাজওয়া কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, সময়ের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ চীনের ভ্রাতৃত্বকে পাকিস্তান সেনাবাহিনী অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়। আমরা সবসময় ঐক্যবদ্ধভাবে দাঁড়িয়েছি এবং ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করবো।

চলতি বছরের শুরু থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সীমান্তে গোলাগুলি চলছে। অন্যদিকে, ভূখণ্ড নিয়ে বিরোধ চলছে ভারত ও নেপালের মধ্যে। তাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক সর্বকালের নিম্ন পর্যায়ে নেমে এসেছে। চীনের সঙ্গে ভারতের চলমান সীমান্ত সংঘাতের কারণে ভারতীয় মিডিয়া জেনারেল ওয়ে’র নেপাল ও পাকিস্তান সফরে খুবই উদ্বিগ্ন। ভারতকে কোনঠাসা করতেই তার এই সফর বলে ভারতীয়দের বিশ্বাস।

নেপাল, পাকিস্তান, বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রক্ষা করে চলছে চীন। বড় শক্তি হিসেবে চীন তার বন্ধুপ্রতীম প্রতিবেশীদের দৃঢ়ভাবে সমর্থন করতে বাধ্য। পাশাপাশি, এই সফর চীনের প্রতি শত্রুভাবাপন্ন কিছু ভারতীয়ের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারিও বটে।

(চেং শিঝোং সাউথওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি অব পলিটিক্যাল সায়েন্স অ্যাণ্ড ল’-এর ভিজিটিং প্রফেসর, চারহার ইন্সটিটিউটের সিনিয়র ফেলো, দক্ষিণ এশিয়া দেশগুলোর সাবেক প্রতিরক্ষা অ্যাটাশে, এবং চায়না শিল্ড কনসাল্টিং সার্ভিস কো. লিমিটেডের নির্বাহী উপদেষ্টা)

উৎস, সাউথএশিয়ানমনিটর

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img