শুক্রবার, অক্টোবর ২২, ২০২১

তুরস্ক ও রাশিয়ার সম্পর্কের ওপর নির্ভর করছে সিরিয়ায় শান্তি: এরদোগান

সিরিয়ার সুন্নি মুসলিমদের গণহত্যার খলনায়ক ও স্বৈরশাসক বাশার আল আসাদের কারণে গত দশ বছর ধরে দেশটিতে গৃহযুদ্ধ লেগে আছে। এ যুদ্ধে বাশারকে পুরোপুরি সামরিক সহায়তা করছে ইরান ও রাশিয়া। ইরান সবসময় চেষ্টা করছে পুরো সিরিয়ায় যেন শিয়া ধর্মাবলম্বী বাশার ও তার বাহিনীর একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা হয়। সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে প্রাণ হারিয়েছে প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ। এই সংখ্যা জাতিসংঘ ঘোষিত সংখ্যার দ্বিগুণ। সিরিয়া যুদ্ধে প্রাণহানি ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি বিষয়ে গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘সিরিয়ান সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চের (এসসিপিআর)’ একটি প্রতিবেদনে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

সুন্নি মুসলিমদের গণহত্যার খলনায়ক বাশার আল আসাদের জিইয়ে রাখা যুদ্ধের কারণে অন্তত ৬৬ লাখ সিরিয়ান গত ১০ বছরে দেশ ছেড়েছেন। দেশ ত্যাগ করা এই সকল সিরিয়ান নাগরিক প্রতিবেশী তুরস্ক, জর্দান, লেবানন, ইরাকসহ বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিয়েছেন। তারমধ্যে ৪০ লাখ সিরীয় শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছে তুরস্কে।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও প্রভাবশালী মুসলিম নেতা রজব তাইয়েব এরদোগান সিরীয় জনগণকে নিজ দেশে ফেরার নিরাপদ পরিবেশ তৈরি করতে দেশটিতে সেনা মোতায়েন করেছেন। এছাড়াও তিনি একাধিকবার রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে আলোচনা করে সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করেন।

গত বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) কৃষ্ণসাগর উপকূলীয় রাশিয়ার অবকাশ কেন্দ্র সোচি শহরে পুতিনের সাথে এক বৈঠকে সিরিয়ায় সংকট মোকাবিলায় আঙ্কারা ও মস্কোর যৌথ উদ্যোগের গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা করেন এরদোগান। রুদ্ধদ্বার এই বৈঠক দুই ঘণ্টা ৪৫ মিনিট ধরে চলে।

এসময় এরদোগান বলেন, সিরিয়ায় শান্তি তুরস্ক ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্কের ওপর নির্ভর করছে।

বৈঠকে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন সিরিয়া প্রসঙ্গে কিছু উল্লেখ না করলেও বলেন, যদিও এরদোগানের সাথে তার বৈঠক সবসময়ই সমস্যাহীন ছিলো না, তবুও দুই দেশের প্রতিষ্ঠানগুলো নিজেদের মধ্যে সমঝোতায় পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img