শনিবার, অক্টোবর ৮, ২০২২

ভারতের এক তরফা স্বার্থের ট্রানজিটে মুখ থুবড়ে পড়বে দেশের রফতানি শিল্প : জমিয়ত

ভারতের এক তরফা স্বার্থের ট্রানজিটের ফলে বাংলাদেশের রফতানি শিল্প মুখ থুবড়ে পড়বে বলে মন্তব্য করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শায়খ জিয়া উদ্দীন ও ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী।

বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক যৌথ বিবৃতিতে তারা বলেন, ভারত ট্রানজিট চুক্তির শুরু থেকেই এক তরফা ট্রানজিট সুবিধা ভোগ করে আসছে। প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে বন্ধুপ্রতিম না হয়ে ভারত ট্রানজিট ও বাণিজ্যিক সুবিধা গ্রহণের ক্ষেত্রে সদা দাদাগিরি করে আধিপত্য বিস্তার করছে বাংলাদেশের উপর। চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্রবন্দর দিয়ে ‘ ভারতের পণ্য ভারতে পরিবহন’ এর ক্ষেত্রে ভারতের একচেটিয়া ও একমুখী ট্রানজিট সুবিধা ভোগ বাংলাদেশের অর্থনীতিকে ভীষণ ক্ষতিগ্রস্ত করবে। মুখ থুবড়ে পড়বে উত্তর- পূর্ব ভারতের সর্বসাধারণের মাঝে বিপুল ও উচ্চ চাহিদার বাংলাদেশের গুণসম্পন্ন ও মানগত সব ধরণের শিল্পপণ্যের উৎপাদন ও রফতানি। এ ছাড়া ফারাক্কা বাধ ও তিস্তার পানি বণ্টনেও ভারত নিজেদের স্বার্থ ষোল আনাই ঘরে তুলে বৈরী মানসিকতা সৃষ্ট প্রভুত্ব ও আধিপত্য বিস্তারে ষোলকলা পূর্ণ করেছে। সরকার নিজ দেশের স্বার্থবিরোধী চুক্তি ও একমুখী ট্রানজিট সুবিধা ভারতকে দিয়ে চরম দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছে।

তারা আরো বলেন, বাংলাদেশ পররাষ্ট্রনীতিতে ভারতের সাথে সদা নতজানু ভূমিকায় অবতীর্ণ হলে দেশীয় পন্য সামগ্রী রফতানি ব্যবসা- বাণিজ্য ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে উপনীত হবে। ভারত স্বার্থসংশ্লিষ্ট একমুখী ট্রানজিটের কারণে বাংলাদেশের বৃহত্তর চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ও কুমিল্লা অঞ্চলের রফতানি ব্যবসা বাণিজ্য তলানীতে গিয়ে ঠেকবে। ঝুঁকির মুখোমুখী হবে।

নেতৃদ্বয় বলেন, বাংলাদেশ ভারতকে এক তরফা ট্রানজিট সুবিধা দিয়ে রাষ্ট্রকে বঞ্চিত করছে ভারত থেকে বিপুল অঙ্কের রাজস্ব আদায়ের সুযোগ থেকে। সরকার কেন রাষ্ট্রকে এ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করছে? এ প্রশ্নের উত্তর ও দায় সরকারের কাঁধেই বর্তাবে।

অপরদিকে ইতোপূর্বেই শুল্ক ও অশুল্ক এর প্রশ্নে বাঁধা দিয়ে বাংলাদেশি পণ্যসামগ্রী ভারতে প্রবেশাধিকার আটকে দিয়েছে ভারত। বাংলাদেশের জনগণ দেশের স্বার্থবিরোধী এমন বৈষম্যপূর্ণ নতজানু পররাষ্ট্রনীতি; চুক্তি ও ট্রানজিট চায় না। জনগণ কী চায় আর কী চায় না তা সামনে রেখেই রাষ্ট্রের স্বার্থ রক্ষা করতে হবে সরকারকে। সরকার অবচেতনে না – থেকে সচেতনতা ও দূরদর্শিতার পরিচয় দিলে ট্রানজিট সুবিধার সমবণ্টন ও দেশীয় পণ্য ভারতে রফতানি সুনিশ্চিত করলে উত্তরপূর্ব ভারতের সাতটি রাজ্যে; আসাম, ত্রিপুরা, মেঘালয়, অররুণাচল, মিজোরাম, মনিপুর, নাগাল্যাণ্ডসহ সিকিম, পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, উত্তর প্রদেশ, তামিলনাড়ু, উড়িষ্যাসহ আরো অনেক অঞ্চলে বাংলাদেশি পণ্য রফতানি করার বিপুল সম্ভাবনার পথকে ররুদ্ধ হওয়া থেকে বাঁচাতে পারবে।

spot_img
spot_img

সর্বশেষ