বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২০, ২০২২

সামরিক শক্তি দিয়ে যুদ্ধের ধারণা পাল্টানোর সামর্থ্য আছে তুরস্কের: তুর্কি স্পিকার

তুরস্কের সামরিক শক্তি ও প্রযুক্তির বিশ্বে যুদ্ধ ও সংঘাতের ধারণাকে পাল্টে দেয়ার সামর্থ্য রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির পার্লামেন্টের স্পিকার মুস্তাফা শেনতপ।

তিনি বলেন, তুরস্কের সামরিক শক্তি ও প্রযুক্তির এই সামর্থ্য কিছুটা সিরিয়া ও লিবিয়াতে প্রদর্শিত হয়েছে। আবার অতি সম্প্রতি ‘আরো স্পষ্টভাবে’ আজারবাইজানে দ্বিতীয় নাগরনো-কারাবাখ যুদ্ধে তা দেখানো হয়েছে। যদিও মস্কোর মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতির মাধ্যমে নাগরনো-কারাবাখের সংঘাতের আপাতত নিষ্পত্তি হয়েছে, তারপরেও দক্ষিণ ককেশাস, তুরস্কের আশেপাশে ও বিশ্বজুড়ে সংঘাত এখনো শেষ হয়নি। তুরস্কের সামরিক শক্তি ও প্রযুক্তির বিশ্বে যুদ্ধ ও সংঘাতের ধারণাকে পাল্টে দেয়ার সামর্থ্য রয়েছে।

শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) ইস্তাম্বুলে অনুষ্ঠিত এক সিম্পোজিয়ামে বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

মুস্তাফা শেনতপ বলেন, ইতিহাসের যত পেছনেই আমরা যাই না কেন, নাগরনো-কারাবাখ সবসময়ই আজারবাইজানি শাসনের অধীনে ছিল। ১৯ শতকের শুরুতে ইরান-রাশিয়ার চুক্তি এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের আমলের সংবিধান অনুযায়ীও এই ভূখণ্ড আজারবাইজানের সাথে ছিল।

সোভিয়েত আমলে নাগরনো-কারাবাখের ওপর আজারবাইজানের ভূমির বাইরের কোনো প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণের কোনো প্রবণতা, অনুশীলন বা আইনগত বাধ্যবাধকতা ছিল না। এই বিবেচনায় যখনই আমরা পেছনে ফিরে তাকাই, ঐতিহাসিকভাবেই নাগরনো-কারাবাখকে আজারবাইজানের সাথেই দেখি।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img