মঙ্গলবার, নভেম্বর ৩০, ২০২১

বাংলাদেশীদের ভিসার উপর আরোপিত সব ধরণের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলো পাকিস্তান

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


বাংলাদেশিদের উপর থেকে সব ধরনের ভিসা সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে পাকিস্তান। পাশাপাশি ইসলামাবাদ আশা করছে যে, বাংলাদেশও পাক নাগরিকদের উপর থেকে সব ধরনের ভিসা সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা তুলে নিবে। দক্ষিণ এশিয়ার দুই বৃহত্তম রাষ্ট্রের মাঝে বরফ শীতল সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের ক্ষেত্রে পাকিস্তানের এই পদক্ষেপ আন্তর্জাতিক মহলে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) এই সংক্রান্ত খবর প্রকাশ করে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।

খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) বাংলাদেশে নিযুক্ত পাক হাইকমিশনার ইমরান আহমেদ সিদ্দিকী ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের মাঝে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে পাক হাইকমিশনার এক বিবৃতিতে পাকিস্তান কর্তৃক বাংলাদেশিদের উপর থেকে সব ধরনের ভিসা সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঢাকা-ইসলামাবাদ দু’পক্ষই তাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরো দৃঢ় করতে সম্মত হয়েছে। তাছাড়া ইসলামাবাদ আশা করছে যে, ঢাকাও পাক নাগরিকদের উপর থেকে সব ধরনের ভিসা সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে অন্যমাত্রায় নিয়ে যাবে।

এ বিষয়ে তুর্কী সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সিকে পাক হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশী প্রতিমন্ত্রীকে ইসলামাবাদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে,বাংলাদেশীদের উপর আমাদের পক্ষ থেকে থাকা সব ধরনের বাঁধা সরিয়ে ফেলা হলেও বস্তুত ঢাকার পক্ষ থেকে পাকিস্তানীদের উপর এখনো বিভিন্ন ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা বহাল রয়েছে।

পশ্চিম পাকিস্তান কেন্দ্রিক ক্ষমতায়নের বিরুদ্ধে সাবেক পূর্ব পাকিস্তানে বিস্ফোরিত জনরোষের প্রেক্ষাপটে ১৯৭১ সনে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর স্বাধীনতা লাভ করা বাংলাদেশের সাথে পাকিস্তানের সম্পর্ক তৎকালীন সময় থেকে উত্তেজনাপূর্ণ থাকলেও ২০০৯ সালে উত্তেজনা একেবারে শীর্ষে গিয়ে পৌঁছে।

কিন্তু গত মাসের জুলাইয়ে হঠাৎ সবাইকে আশ্চর্য করে দিয়ে বাংলাদেশী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মাঝে গুরুত্বপূর্ণ ফোনালাপ হয়, যেখানে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক পুনঃস্থাপন ছাড়াও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনা হয় এবং পৃথকভাবে উভয় রাষ্ট্রই নিজেদের “সবার সাথে বন্ধুত্ব কারো প্রতি বিদ্বেষ-প্রতিহিংসা নয়” পররাষ্ট্রনীতির ঘোষণা দেয়।

তাছাড়া, পাক হাইকমিশনার বাংলাদেশী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেনের কাছে দ্বিপাক্ষিক বহু বিষয়ের বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরে ফোনালাপ করেন।

অপরদিকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলেন, আমরা পাকিস্তানের সাথে কাজ করতে মুখিয়ে আছি।

এছাড়াও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, দক্ষিণ এশিয় মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি SAFTA এর যথাযথ মূল্যায়ন করে পাকিস্তানে প্রবেশাধিকার নেয় এমন বাংলাদেশী পণ্যার তালিকায় শিথিলতা এনে সেখানে আরো বেশি পরিমাণে বাংলাদেশী পণ্যের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে এবং সকল বাণিজ্য বাঁধা তুলে ফেলতে পাকিস্তানকে অনুরোধ জানান।

বাংলাদেশী পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ভারসাম্য এখন পাকিস্তানের দিকে ঝুঁকে আছে।

বাংলাদেশ-ভারত যৌথ নদীর পানি বণ্টন চুক্তিতে অবহেলা ও সেগুলোর উপর নিজেদের একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার, সীমান্তে নিরপরাধ বাংলাদেশীদের অনবরত হত্যা এবং আসাম সহ বিভিন্ন রাজ্যে মুসলিম বিরোধী বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধন আইন (সিএএ) পাশ করা সহ সম্প্রতি ভারতের পক্ষপাতী মনোভাব বা স্বার্থপরতাকে পাকিস্তানের সাথে বাংলাদেশের এই অভূতপূর্ব সম্পর্কোন্নয়ন প্রচেষ্টার মূল কারণ হিসেবে মনে করছেন আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকগণ।

সূত্র: আল জাজিরা, আনাদোলু এজেন্সি

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img