বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ৬, ২০২২

রাশিয়ার সুপারসনিক এন্টি-শিপ মিসাইল কিনছে বাংলাদেশ

বাংলাদেশ বিমান বাহিনী রাশিয়ার তৈরি কেএইচ-৩১এ এন্টি-শিপ মিসাইল কিনতে অর্ডার দিয়েছে। এসব মিসাইল আপগ্রেড করা মিগ ২৯বিএম মাল্টিরোল ফাইটারে সংযোজন করা হবে। ফাইটারগুলো সম্প্রতি বেলারুশ থেকে আপগ্রেড করে আনা হয়েছে।

বিমান থেকে নিক্ষেপের উপযুক্ত কেএইচ-৩১এ মিসাইলগুলো সারফেসের যেকোন লক্ষ্যবস্তু ঘায়েল করার উপযুক্ত করে ডিজাইন করা হয়েছে। এগুলো দিয়ে ৪,৫০০ হাজার টন ডিসপ্লেসমেন্ট ক্ষমতাসম্পন্ন যুদ্ধজাহাজ ঘায়েল করা যাবে।

রাশিয়ার অস্ত্র কেনাবেচার দায়িত্বে থাকা সরকারি প্রতিষ্ঠান রজোবরোনেক্সপোর্ট জানায়, কেএইচ-৩১এ হলো অ্যাকটিভ রাডার সিকার ধরনের মিসাইল। এর পূর্বসূরি হচ্ছে কেএইচ-৩১পি। উন্নত সংস্করণটি লেয়ার্ড এয়ার ডিফেন্স ভেদ করতে সক্ষম।

এই মিসাইলে মিড-কোর্স রাডার গাইডেন্স ও টার্মিনাল হোমিং ব্যবস্থা রয়েছে। এতে এআরজিএসএন-৩১ জ্যাম-রেজিসট্যান্ট অ্যাকটিভ রাডার গাইডেন্ট সিস্টেম রয়েছে। ফলে এটি একই ধরনের এক গ্রুপ জাহাজের মধ্য থেকে ‍নির্দিষ্ট টার্গেট খুঁজে বের করতে সক্ষম। এতে ৯৪ কেজি ওজনের আর্মার-পিয়ার্সিং ওয়্যারহেড রয়েছে।

মিগ-২৯এস ঝুক-এমই ফায়ার কন্ট্রোল রাডারের কাজ হলো টার্গেট শনাক্ত করা। সিল করা কনটেইনারের মধ্যে থাকে এসব মিসাইল।

কেএইচ-৩১এ মিসাইলের সর্বোচ্চ ফায়ারিং রেঞ্জ ৭০ কিলোমিটার ও সর্বোচ্চ গতি ১ এম/সে। এর অপারেশনাল উচ্চতা ১৫,০০০ মিটার। উৎক্ষেপনকালে প্রতিটি মিসাইলের ওজন হয় ৬১০ কেজি এবং এর টার্গেটে আঘাত হানার সম্ভাবনা ৮০%।

বাংলাদেশ বিমানবাহিনী তার এয়ারপ্লাটফর্মগুলোতে অত্যাধুনিক গোলাবারুদ যোগ করছে। এর আগে তারা এফ-৭বিজি/বিজি১ বহরের জন্য তুরস্কের অরিজিন তিবের লেজার গাইডেড মিউনিশন ও চীনের এলএস-৬/২৫০ গাইডেড মিউনিশন কিনেছে।

বিমান বাহিনী শিগগিরই রাশিয়া ও পূর্ব ইউরোপিয়ান অন্যান্য দেশ থেকে আরো আধুনিক বিভিআর এয়ার-টু-এয়ার মিসাইল কিনতে যাচ্ছে।

সূত্র: ডিফেন্স.পিকে ও সাউথ এশিয়ান মনিটর

spot_img
spot_img

সর্বশেষ