বৃহস্পতিবার, মে ২৬, ২০২২

মুফতি ওয়াক্কাসের ইন্তেকালে বেফাকের গভীর শোক প্রকাশ

বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাক-এর সিনিয়র সহ-সভাপতি, আল হাইয়াতুল উলইয়ার কো-চেয়ারম্যান, সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাসের (৭০) ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের সভাপতি ও কওমি মাদরাসা শিক্ষার সর্বোচ্চ অথরিটি আল হাইয়াতুল উলইয়ার চেয়ারম্যান মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমুদুল হাসান ও বেফাকের মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হকসহ নেতৃবৃন্দ।

আজ বুধবার (৩১ মার্চ) গণমাধ্যমে পাঠানো এক শোকবার্তায় তারা বলেন, বেফাকের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন শাইখুল হাদীস মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস। বেফাককে আজকের জায়গায় নিয়ে আসতে তার ভূমিকা ছিলো অপরিসীম। তিনি আজীবন বেফাকের কল্যাণে কাজ করে গেছেন।

তারা বলেন, মুফতী ওয়াক্কাস ছিলেন সৎ, সাহসী, নির্ভীক, বিনয়ী ও প্রাজ্ঞ রাজনীতিবিদ। মাদারিসে কওমিয়ার স্বকীয়তা রক্ষায় ছিলেন যোগ্য অভিভাবক। তার ইন্তেকালে জাতি এক শ্রেষ্ঠ সন্তানকে হারালো। দলমত নির্বিশেষে সবার কাছে তিনি ছিলেন আস্থাবান মুরুব্বি, হক ও ন্যায়-নীতির ওপর অটল-অবিচল।

বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব অক্ষুণ্ণ রাখতে মুফতী ওয়াক্কাস ছিলেন সদা সোচ্চার। তা’লীম তারবিয়াতের পাশাপাশি আত্মশুদ্ধির ময়দানে ছিলেন আকাবির আসলাফের যোগ্য উত্তরসূরি। জীবনের সর্বক্ষেত্রে সুন্নাহ পালনে ছিলেন নির্ভীক। ইসলামী তাহযীব তমুদ্দুন বিকাশে ছিলেন অতন্দ্রপ্রহরী। যুগশ্রেষ্ঠ এ মনীষীর ইন্তেকালে দিশেহারা এ জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হলো।

তারা বলেন, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াককাস লোভ-লালসা ও ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে থাকতেন। আমরণ ইখলাস ও নিষ্ঠার সাথে দ্বীনের বহুমুখী খেদমত আঞ্জাম দিয়েছেন। প্রতিষ্ঠা করেছেন জামিয়া ইমদাদিয়া মাদানীনগর (মনিরামপুর, যশোর)সহ একাধিক দেশসেরা প্রতিষ্ঠান। ইসলাম, মুসলমান, দেশ ও জাতির কল্যাণে তার ভূমিকা অবিস্মরণীয়। ধর্মীয় আন্দোলন সংগ্রামে তার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও ত্যাগ-তিতিক্ষা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে অঙ্কিত থাকবে।

তারা তার শোকসন্তপ্ত পরিবার, ছাত্র ও হিতাকাঙ্ক্ষীদের প্রতি নেতৃদ্বয় গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করে বলেন, আল্লাহ তায়ালা যেন তাদেরকে ‘সবরে জামীল’ ইখতিয়ার করার তাওফিক দান করেন এবং তাকে জান্নাতুল ফিরদাউসের উচ্চ মাকাম নসীব করেন। আমীন।

উল্লেখ্য, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস আজ বুধবার ৩১ মার্চ ভোর ৪.৩০মিনিটে রাজধানী ঢাকার মহাখালী শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪বছর। তিনি ৩ ছেলে ও ৪ মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুমের জানাজার নামাজ আজ বাদ মাগরিব তাঁর প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যশোরের মনিরামপুরস্থ জামিয়া ইমদাদিয়ায় অনুষ্ঠিত হবে। তার ইন্তেকালে দেশের ইসলামি অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img