হেলিকপ্টার ক্যারিয়ার কিনবে বাংলাদেশ!

বাংলাদেশ হেলিকপ্টার ক্যারিয়ার কেনার পরিকল্পনা করেছে বলে আভাস পাওয়া গেছে। নৌবাহিনীর ভবিষ্যৎ উন্নয়ন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে হেলিকপ্টার ক্যারিয়ার/এলপিডি (ল্যান্ডিং প্লাটফর্ম ডক) সংগ্রহের প্রকল্প হাতে নিয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম নৌঅঞ্চলের আঞ্চলিক কমান্ডার রিয়ার এডমিরাল এম মাহবুব-উল ইসলাম।

সম্প্রতি তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় অনুষ্ঠিত ‘ডিফেন্স পোর্ট টার্কি সাউথ এশিয়া’ শীর্ষক প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণকালে তিনি এ কথা জানান।

প্রদর্শনীতে তুরস্ক বাংলাদেশের কাছে রকেট সান, হ্যাবল সান এর তৈরী এন্টিশীপ মিসাইল, নেভাল গান, রাডার, ফায়ার কন্ট্রোল সিস্টেমসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম বিক্রির প্রস্তাব দেয়। বাংলাদেশ নৌবাহিনী ইতোমধ্যে এ ধরনের সরঞ্জাম কেনার দরপত্র আহ্বান করেছে। তাই তুর্কি প্রতিরক্ষরা সরঞ্জাম প্রস্তুতকারকরা দরপত্রে অংশ নিলে বাংলাদেশ তা বিবেচনা করবে বলে জানানো হয়।

বাংলাদেশ নৌবাহিনী তার সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ভবিষ্যতে যে নতুন প্লাটফর্ম বেছে নিতে যাচ্ছে প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে তারই সুষ্পষ্ট ইংগিত দেন রিয়ার এডমিরাল মাহবুব-উল ইসলাম। এই নতুন প্লাটফর্ম হতে পারে হেলিকপ্টার ক্যারিয়ার বা এলপিডি’র যেকোন একটি।

বঙ্গোপসাগরে প্রভাব বিস্তারের লক্ষ্যে বাংলাদেশের প্রতিবেশী মিয়ানমার ইতোমধ্যে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে এলপিডি সংগ্রহ করেছে। এর কাজ মূলত বাহিনীকে উভচর সক্ষমতা দেওয়া। এর মাধ্যমে দ্রুত রসদ, সৈন্য, সামরিক সরঞ্জাম পৌছানোর মাধ্যমে শত্রুর উপর প্রভাব বিস্তার করা হয়।

বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা নীতি রক্ষণাত্মক। তাই দেশটি তার নৌবাহিনীকে দ্রুত শক্তিশালী বাহিনীতে পরিণত করতে সবরকম চেষ্টা করে যাচ্ছে। এই বাহিনীর মনযোগের কেন্দ্রে রয়েছে বঙ্গোপসাগরে নজরদারি চালিয়ে দেশের পানিসীমাকে নিরাপদ রাখা।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশের চাহিদা, মিশন সেন্সিটিভনেস, কৌশল বিবেচনায় কেউ কেউ নতুন প্লাটফর্ম হিসাবে হেলি ক্যারিয়ারকে গ্রহণ করা যুক্তিযুক্ত হবে বলে মনে করেন। মিয়ানমার ইতোমধ্যে এলপিডি প্লাটফর্ম সংগ্রহ করেছে। তাছাড়া, হেলি ক্যারিয়ার নির্বাচন করলে বাংলাদেশ বেশ কিছু সুবিধা পেতে পারে। গভীর সমুদ্রে নিয়মিত টহলের ক্ষেত্রে এটি একটি ঘাঁটির মত কাজ করতে পারে।

কক্সবাজার বা চট্টগ্রাম থেকে মেরিটাইম পেট্রল ক্রাফট দিয়ে সমুদ্রসীমায় নজরদারি চালানো গেলেও সবসময় এবং সব আবহাওয়ায় সেটা রক্ষা করা কঠিন এবং ব্যয়বহুল। আবার উপকূল থেকে সব সময় গভীর সমুদ্রে ফ্রিগেট মোতায়েন করে নজরদারি চালানেও কঠিন। হেলি ক্যারিয়ার এসব সমস্যার কার্যকর সমাধান দিতে পারে।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও ডিআরএফ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *