ফ্রান্সের পণ্য বর্জন আরো তীব্র হবে: ড. আহমদ আবদুল কাদের

খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেছেন, ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় মদদে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর অবমাননাকর কার্টুন প্রদর্শন করা হয়েছে। ফ্রান্সের ইসলাম বিদ্বেষ ও মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর অবমাননায় বিশ্বের দুইশত কোটি মুসলমান ব্যথিত হয়েছে। ফ্রান্সের এহেন ইসলাম ও মুসলিম বিদ্বেষী কর্মকান্ড বন্ধ করতে হবে। ইসলাম ও মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর অবমাননা কোনভাবেই বিশ্ব মুসলিম বরদাস্ত করবে না। বিক্ষুব্ধ মুসলমানদের হৃদয়ের ক্ষত মুছতে হলে ফ্রান্সকে অবিলম্বে রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্ষমা চাইতে হবে। মহানবীকে সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে ব্যঙ্গকরে কার্টুন প্রকাশকারী ইসলামবিদ্বেষী পত্রিকা শার্লি হেব্দো বন্ধ করতে হবে। তা না হলে ফ্রান্সকে বয়কট করা হবে। ইতোমধ্যেই ফ্রান্সের পণ্য বয়কট শুরু হয়েছে এ বর্জন আরো তীব্র হবে। বাংলাদেশে ফ্রান্সের যেসব পণ্য রয়েছে সবাইকে তা বয়কট করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৩টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সমানে খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরী কর্তৃক আয়োজিত ফ্রান্সে সরকারী মদদে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে আবমাননার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ড. আহমদ আব্দুল কাদের বলেন, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হিসেবে বাংলাদেশ সরকারকে ফ্রান্সের ইসলাম বিদ্বেষ ও মহানবীর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর অবমাননার কড়া প্রতিবাদ করতে হবে। মহানবীর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে অবমাননার বিরুদ্ধে জাতীয় সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাশ করতে হবে।

সংগঠনটির ঢাকা মহানগরীর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক ডাক্তার রিফাত হোসেন মালিকের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মাওলানা আজীজুল হকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সিনিয়র যুগ্মমহাসচিব মাওলানা মুহাম্মদ শফিক উদ্দিন, যুগ্মমহাসচিব মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন মিয়াজী, হাফেজ মাওলানা নোমান মাযহারী, অধ্যাপক কে এম আলম, অধ্যাপক আবদুল জলিল, মাওলানা সাঈদ আহমদ, মুক্তিযোদ্ধা ফয়জুল ইসলাম, ঢাকা মহানগরীর সহসভাপতি মাওলানা শরিফুল ইসলাম, সাহাব উদ্দিন খন্দকার, তাওহিদুল ইসলাম তুহিন, প্রকৌশলী আবদুল হাফিজ খসরু, মাওলানা সাইফ উদ্দিন আহমদ খন্দকার, ইসলামী ছাত্র মজলিসের সেক্রেটারী জেনারেল মুহাম্মদ মনির হোসাইন, শ্রমিক মজলিস সভাপতি হাজী নূর হোসাইন,

হুমায়ুন কবির আজাদ, মুফতি আজীজুল হক, হাজী হারুনূর রশীদ, এ্যাডভোকেট এস এম সানাউল্লাহ, আমীল ;আলী হাওলাদার, ছাত্র মজলিস নেতা কে এম ইমরান হোসাইন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *