বৃহস্পতিবার, মে ২৬, ২০২২

নাগর্নো-কারবাখের আলোচিত শহর শুশায় যাচ্ছেন এরদোগান

আবারো আজারবাইজানের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তায়্যিব এরদোগান।

বুধবার তুর্কি কাউন্সিল বৈঠকে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, সামনের দিনগুলিতে আমাদের আজারবাইজানের পাশে থাকা জরুরি। এসময় তিনি ঘোষণা করেন, আসন্ন রমজান মাসে তিনি নাগর্নো-কারাবাখ অঞ্চল সফর করবেন।

আলোচনায় এরদোগান নাগর্নো-কারাবাখ যুদ্ধে মসজিদ ও গীর্জা ধ্বংসের কথা জানিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন। বর্তমানে অঞ্চলটির একটি অংশের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে আজারবাইজানের সেনাবাহিনী। আর্মেনিয়ার বিরুদ্ধে এ যুদ্ধে আজারবাইজানের সফলতার পেছনে রয়েছে তুরস্কের ব্যাপক অবদান। এ যুদ্ধের প্রথম থেকেই আজারবাইজানকে সর্বোচ্চ দিয়ে সাহায্য করে যায় তুরস্ক। ভবিষ্যতেও এই ধারা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিয়েছেন এরদোগান।

এরদোগান যে শহরটি সফরে যাবেন তা ২৮ বছর নিয়ন্ত্রণ করেছে আর্মেনিয়া। শুশা এখন আজারবাইজানের সেনাদের দখলে রয়েছে। এটি নাগর্নো-কারাবাখের গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোর একটি। অঞ্চলটির রাজধানী স্টেপেনকোর্ট থেকে এই শহর মাত্র ১০ কিলোমিটার দূরে। নাগর্নো-কারাবাখের প্রধান অংশগুলো এখনো আর্মেনিয়ার নিয়ন্ত্রণে থাকলেও শুশা দখল আজারবাইজানের অন্যতম বড় সফলতা। এই শহরে আজারবাইজানের ঐতিহাসিক নানা স্থাপনা রয়েছে। আজারবাইজানের মানুষ সঙ্গীত পাগল। এই শুশা শহরেই জন্ম নিয়েছে দেশটির বিখ্যাত অনেক শিল্পী। তাই এই শহর পুনরায় নিয়ন্ত্রণে নেয়া দেশটির জন্য গর্বের। দখলের পর এটিকে আজারবাইজানের সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্রস্থল হিসেবে গড়ে তুলতে উন্মুখ আজারবাইজান সরকার। জানুয়ারিতে শুশাকে দেশটির সাংস্কৃতিক রাজধানী হিসেবে ঘোষণা করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ।

সূত্র: ডেলি সাবাহ

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img