বাতিল শক্তির মোকাবেলায় যোগ্য এবং মজবুত আলেম হতে হবে: আল্লামা বাবুনগরী

ইনসাফ | নাবিল আব্দুল্লাহ


হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব, দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদীস ও শিক্ষাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, বাতিল শক্তির মোকাবেলায় আপনাদেরকে যোগ্য এবং মজবুত আলেম হতে হবে। গতানুগতিক ধারার আলেম হওয়ার চিন্তা পরিহার করে যোগ্য এবং মজবুত আলেম হওয়ার চিন্তা করতে হবে। এ জন্য প্রয়োজন একাগ্রচিত্তে লেখাপড়া করা। এবং মনোযোগী হয়ে মেহনত করা।

গতকাল বুধবার (২১ অক্টোবর) হাটহাজারী মাদরাসার দারুল হাদীসে বোখারী শরীফের দরস দানকালে দুই সহস্রাধিক শিক্ষার্থীকে লক্ষ্য করে তিনি এসব কথা বলেন।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, তলেবে ইলেমদের জন্য সব বিষয়ে পারদর্শিতা অর্জন করা কষ্টসাধ্য ব্যাপার। যেকোনো একটি বিষয়ে অবশ্যই তাদেরকে পারদর্শিতা অর্জন করতে হবে। আপনারা তাকমীল ফিল হাদীসের ছাত্র। একাডেমিক ক্লাসগুলোর এটিই সর্বশেষ ক্লাস। সুতরাং এই মূহুর্তে আপনাদের অবশ্য করণীয় হলো ইলমে হাদীসের আদ্যোপান্ত ভালোভাবে আয়ত্ত করে নেওয়া। এবং হাদীস সম্বন্ধে গভীর পারদর্শিতা অর্জন করা। যেন হাদীস নিয়ে কেউ বিভ্রান্তি ছড়ালে, হাদীসকে জাল, মওযু এবং বিকৃতভাবে উপস্থাপন করলে তৎক্ষণাৎ তা বুঝতে পারেন এবং ধরতে পারেন। হাদীস সম্বন্ধে যদি আপনাদের গভীর জ্ঞান না থাকে এবং ভালোভাবে জানাশোনা না থাকে, তাহলে বাতিলকে প্রতিহত করতে পারবেন না। তাদের সাথে মোকাবিলা করতে পারবেন না। এবং দ্বীন-ইমানেরও হেফাজত করা কষ্টকর হয়ে যাবে। সেজন্য অবশ্যই আপনাদেরকে হাদীসের গভীর জ্ঞান অর্জন করতে হবে। এবং ইলমে হাদীস সম্বন্ধে গভীর জানাশোনা থাকতে হবে।

উদাহরণ হিসেবে কাদিয়ানীদের কথা উল্লেখ করে আল্লামা বাবুনগরী বলেন, কাদিয়ানীরা আমাদের সহীহ-শুদ্ধ একটি হাদীসকে বিকৃত করে দাবী করে যে, আমাদের রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লাম সর্শেবষ নবী নয়। নাউজুবিল্লাহ! বরং তারা গোলাম আহমদ কাদিয়ানীকে সর্বশেষ নবী বলে দাবি করে। হাদিসটি উল্লেখ করে তারা বলে– قال رسول الله صلي الله عليه وسلم. انا خاتم النبيين لا نبيَّ بعدي الا يشاء الله
রসূল সা. বলেন– আমি শেষ নবী, আমার পর আর কোনো নবী আসবে না। (তবে আল্লাহ যদি চান)। কাদিয়ানীরা বলে– আল্লাহ তাআলা চাওয়ার কারনেই গোলাম আহমদ কাদিয়ানী নবী রূপে আগমন করেছেন। নাউজুবিল্লাহ। এখানে “আমার পর আর কোনো নবী আসবে না” এই পর্যন্ত হাদীসটি সহীহ। কিন্তু اِلّا থেকে পরের অংশটি তাদের বানানো এবং মনগড়া। এই অংশটি কোনো সহীহ হাদীসে নেই। অথচ মনে হচ্ছে পুরোটাই হাদীস! আর এধরণের ভ্রষ্ট আকিদা লালন করার কারণেই কাদিয়ানীরা কাফের।

তিনি বলেন, যদি আপনাদের হাদীস সম্বন্ধে গভীর জ্ঞান এবং পর্যাপ্ত জানাশোনা না থাকে তাহলে এধরনের বিকৃত হাদীসকে কোনোভাবেই আপনারা রদ করতে পারবেন না। এধরণের জাল হাদীসকে বাতিল বলে সাব্যস্ত করতে পারবেন না। এবং বাতিলদের সাথে মোকাবেলা করাও আপনাদের পক্ষে সম্ভব হবে না। সুতরাং আপনাদের প্রতি আমার উদাত্ত আহবান থাকবে– হাদীস সম্বন্ধে আপনারা গভীর পাণ্ডিত্য অর্জন করুন। হাদীসের গভীর ইলম অর্জন করুন। একাগ্রতার সাথে মনোযোগী হয়ে ভালোভাবে লেখাপড়া করুন। এবং মেহনত করুন। বাতিল শক্তির মোকাবেলায় যোগ্য এবং মজবুত আলেম হতে পারবেন, ইন-শা আল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *