শুক্রবার, মে ২৭, ২০২২

আশুলিয়ায় শিশু আসিফ হত্যায় গ্রেপ্তার ২, আদালতে স্বীকারোক্তি

আশুলিয়ায় নিখোঁজের দুইদিন পর শিশু আসিফের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় আশুলিয়া থানা পুলিশ ও ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) যৌথ অভিযানে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আশুলিয়ার কলতাসূতী এলাকা থেকে শুক্রবার ভোরে তাদের গ্রেপ্তার করে দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়।

তারা হলেন- নাটোরের গুরুদাশপুর থানার নিতাই কর্মকারের ছেলে অন্ন কর্মকার (৩২) ও তার শ্যালক টাঙ্গাইল জেলা সদর থানার গবিন্দ কর্মকারের ছেলে নেপাল কর্মকার (১৪)। তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

নিহত আসিফ (৮) ওই এলাকার জুয়েল রানার ছেলে ও স্থানীয় দিপারোজ স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আসওয়াদুর রহমান জানান, ওই এলাকার একই বাড়ির ভাড়াটিয়া নিহত আসিফের পরিবার ও অন্ন কর্মকারের শ্যালক নেপাল কর্মকারকে নিয়ে ভাড়া থাকতো। নেপাল কর্মকার ও আসিফ এক সাথে খেলাধুলা করতো।

তবে আসিফ প্রায়ই নেপাল দাশকে গালাগালি করতো। ঘটনারদিনও তাদের দ্বন্দ্ব হলে আসিফকে তার মা ঘরের ভেতর আটকে রাখে। বিকালে ছেড়ে দিলে নেপাল কর্মকার তাকে ফ্যানের মোটর দেয়ার কথা বলে রুমে নিয়ে যায়। মোটর দেয়ার পরেও সে গালাগালি করলে আসিফের গলা টিপে ধরে নেপাল। সে নিস্তেজ হয়ে গেলে বিছানায় রেখে আবার গলায় পা দিয়ে চেপে ধরলে আসিফ মারা যায়। পরে তাকে তার ওয়ার ড্রপে লুকিয়ে রাখে। এদিকে সন্ধ্যায় আসিফকে খোঁজাখুঁজি শুরু করে তার পরিবারের সদস্যরা।

পরে রাত ৯টায় নেপালের ভগ্নিপতি অন্ন কর্মকার বাসায় আসলে তাকে ঘটনা খুলে বলে নেপাল। কোনো উপায় না পেয়ে ১২ অক্টোবর রাত ৩টার দিকে আসিফকে ওই গলিতে ফেলে দেয় অন্ন কর্মকার। পরে ১৩ অক্টোবর সকালে আসিফের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হলে ডিবি পুলিশসহ আশুলিয়া থানা পুলিশ তদন্ত করে আসামিদের গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়।

এসআই জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা জেলা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

সূত্র: ইউএনবি

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img