মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৬, ২০২১

ইসরাইলের যুদ্ধমন্ত্রীর সঙ্গে আব্বাসের বৈঠক ফিলিস্তিনিদের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা: হামাস

ফিলিস্তিন প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস গত রোববার ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের যুদ্ধমন্ত্রী বেনি গান্তজ্-এর সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

দখলদার ইসরাইলের অস্তিত্ব মেনে নিয়েই একটি স্বাধীন ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র গড়ে তোলার নীতির আলোকে আপোস-চুক্তিতে স্বাক্ষর করার কারণে মাহমুদ আব্বাস সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা মাঝে মধ্যে ইসরাইলের সঙ্গে আলোচনায় বসতে বাধ্য হন। মাঝে মধ্যেই নিরাপত্তা বিষয়ে এ ধরনের বৈঠক হয়ে থাকে দু পক্ষের মধ্যে। কিন্তু গত কয়েক দশকে এটা স্পষ্ট হয়ে গেছে যে আপোস আলোচনার নামে ফিলিস্তিনকে পুরোপুরি গিলে ফেলাই ছিল ইসরাইলের উদ্দেশ্য। স্বশাসন কর্তৃপক্ষ পুরোপুরি অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের করুণা-নির্ভর হয়ে আছে এবং প্রায় সব কিছু হারিয়ে এ কর্তৃপক্ষের এখন হারানোর তেমন কিছুই আর বাকি নেই। তাই দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার পরও ইসরাইলের সঙ্গে আলোচনার আর কোনো অর্থ হয় না!

তা সত্ত্বেও ফিলিস্তিনি স্বশাসন কর্তৃপক্ষের প্রধান মাহমুদ আব্বাস এমন এক সময় ইসরাইলের যুদ্ধ-মন্ত্রী গান্তজ্‌-এর সঙ্গে বৈঠকে বসলেন যখন গত এক দশকে ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা দখলদার ইসরাইলি শাসকদের সঙ্গে তেমন একটা সাক্ষাত বা বৈঠক করেননি। আপোষ-আলোচনাও বেশ কয়েক বছর ধরে বন্ধ হয়ে আছে। মাহমুদ আব্বাস এমন সময় ইসরাইলের সঙ্গে এই বৈঠকে করলেন যখন গোটা ফিলিস্তিনে ইসরাইলি অপরাধযজ্ঞ তীব্রতর হয়েছে। সম্প্রতি গাজার ওপর ১১ দিনের যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়া ছাড়াও ইসরাইল ফিলিস্তিনিদের ওপর সহিংসতা এবং তাদের জমি ও ঘরবাড়ি দখলও অব্যাহত রেখেছে। ১১ দিনের ওই যুদ্ধে পশ্চিম তীরের জনগণ গাজার পক্ষ নেন এবং ইসরাইলের বিরুদ্ধে প্রতিরোধকামী অবস্থান গড়ে তোলেন।

মাহমুদ আব্বাস এমন সময় লজ্জা-শরমের মাথা খেয়ে ইসরাইলি যুদ্ধ-মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করলেন যখন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট সম্প্রতি ঘোষণা করেছেন যে দুই রাষ্ট্র বা সরকার প্রতিষ্ঠার নীতি তিনি মানেন না এবং তিনি যতদিন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী পদে থাকবেন ততদিন এই নীতি বাস্তবায়ন করতে দেবেন না। ইসরাইলের কাছ থেকে আলোচনার মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের স্বার্থ আদায় যে দুরাশা বা মরীচিকা তা আব্বাস কি জানেন না?

গান্তজ্-এর দপ্তর থেকে বলা হয়েছে আব্বাসের সঙ্গে আলোচনায় গাজা ও পশ্চিম তীরের নিরাপত্তা এবং অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা হয়েছে। এ ছাড়াও আলোচিত বিষয় নিয়ে যোগাযোগ অব্যাহত রাখার বিষয়ে সমঝোতা হয়েছে। গান্তজ্‌ টুইটারে লিখেছেন, ইসরাইল ফিলিস্তিন স্বশাসন কর্তৃপক্ষের অর্থনৈতিক অবস্থা জোরদারের জন্য পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছে!

গান্তজ-এর বক্তব্য থেকে বোঝা যায় ইসরাইল কিছু ওয়াদার গাজর দেখিয়ে স্বশাসন কর্তৃপক্ষকে হাতে রাখতে চায়। আর ইসরাইলের এই চালাকির আরেকটি উদ্দেশ্য হল ফিলিস্তিনিদের মধ্যে মতভেদ সৃষ্টি করা এবং জাতীয় ঐক্যের সরকার গড়ে উঠতে না দেয়া।

তাই এটা স্পষ্ট মাহমুদ আব্বাস ইসরাইলের পক্ষে বিপজ্জনক খেলায় নেমেছেন। আর তাই ফিলিস্তিনের হামাস ও ইসলামী জিহাদ দল গান্তজ্‌-এর সঙ্গে মাহমুদ আব্বাসের বৈঠককে ফিলিস্তিনি জাতির প্রতি পেছন থেকে ছুরিকাঘাত ও শহীদদের রক্তের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা বলে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

হামাসের মুখপাত্র আবদুল লতিফ ক্বানুউ বলেছেন, আব্বাস ফিলিস্তিনি জাতির জাতীয় মূল্যবোধগুলোকে এখনও পদদলন করে যাচ্ছেন এবং ইসরাইলের চেহারা উজ্জ্বল করার পায়তারা করছেন। হারাকাতুল জিহাদ ফিলিস্তিনের মুখপাত্র তারেক সালামি বলেছেন, মাহমুদ আব্বাস এমন সময় ইসরাইলি যুদ্ধ-মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসলেন যখন ইসরাইলি এই জল্লাদের নির্দেশে শহীদ হওয়া ফিলিস্তিনি শিশুদের রক্ত এখনও তাজা রয়েছে।

পার্সটুডে

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img