বুধবার, অক্টোবর ২৭, ২০২১

নিউইয়র্কে পাগড়ী পেলেন ৩৩ তরুণ আলেম

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দারুল উলুম নিউইয়র্কের বার্ষিক হিফজ ও আলিম গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন হয়েছে। জ্যামাইকার পারসন্স বুলোবর্ডে অবস্থিত দারুল উলুমের ক্যাম্পাসে স্থানীয় সময় শনিবার (১৪ আগস্ট) বেলা ১১টায় এই অনুষ্ঠান শুরু হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন দারুল উলুম নিউইয়র্কের প্রেসিডেন্ট বরকত উল্লাহ। প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ ইমাম সিরাজ ওয়াহহাজ। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় মুসলিম কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, দারুল উলুম পরিচালনা পরিষদের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, অভিভাবক, ছাত্রছাত্রী এবং স্থানীয় মুসল্লিবৃন্দ।

প্রধান অতিথি ইমাম সিরাজ ওয়াহহাজ তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্নকারী শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানান। একই সাথে তিনি শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের প্রতি বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, সন্তানের আজকের অর্জনের পেছনে জড়িয়ে আছে পিতা-মাতার অনেক শ্রম।

দারুল উলুম নিউইয়র্ক থেকে প্রতিবছর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আলিম ও হাফেজ হচ্ছেন। গত দুই শিক্ষাবর্ষে প্রতিষ্ঠানটি থেকে মোট আলিম, আলিমা ও হাফেজ,হাফিজা হয়েছেন ৮৩ জন। ২০২১ শিক্ষাবর্ষে ২৬ জন আলিম ও আলিমাহ হয়েছেন। এর মধ্যে ১৯ জন ছেলে ও ৭ জন মেয়ে। এ ছাড়া হাফেজ হয়েছেন মোট ১০ জন। তাদের মধ্যে ছেলে আটজন ও মেয়ে দুজন।

পাশাপাশি ২০২০ শিক্ষাবর্ষে প্রতিষ্ঠানটি থেকে মোট ২৭ জন আলিম হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১৪ জন ছেলে ও ১৩ জন মেয়ে।

এ ছাড়া ২০২০ শিক্ষাবর্ষে ১৮ জন হাফেজ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১১ জন ছেলে এবং ৭ জন মেয়ে। করোনা ও লকডাউনের কারণে ২০২০ শিক্ষাবর্ষে কৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থীদের পুরস্কৃত করতে পারেনি দারুল উলুম কর্তৃপক্ষ। এবার বিগত দুই বছরে যারা কৃতকার্য হয়েছেন দারুল উলুমের পক্ষ থেকে তাদের হাতে সনদ ও পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করা প্রত্যেক ছাত্রছাত্রীর মধ্যে ছিল উচ্ছ্বাস-আনন্দ। এই আনন্দে কোনো কোনো ছাত্র-শিক্ষককে কাঁদতেও দেখা গেছে। গ্র্যাজুয়েশন করা সন্তানদের অভিভাবকেরাও ছিলেন উৎফুল্ল। এ ছাড়া ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন ক্লাসের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী ছাত্রছাত্রীদেরও উৎসাহ দিতে পুরস্কৃত করা হয়।

২০২১ সেশনে আলিম বিভাগে গ্র্যাজুয়েশন শেষ করেছেন ১৯ জন। তাঁরা হলেন মাওলানা আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, মাওলানা ফাহাদ তিরমিজি, মাওলানা হামদান এ ইসলাম, মাওলানা হামজা এ কায়ানী, মাওলানা ইবনে মুয়াজ হোসেন, মাওলানা কাহিস আহমেদ, মাওলানা খুরাম আলী, মাওলানা মারওয়ান ইসলাম, মাওলানা মুহাম্মাদ সাকির, মাওলানা মুহাম্মদ সলেহ, মাওলানা মোহাম্মেদ আশরাফুল ইসলাম, মাওলানা রুহুল আমিন রাফিন, মাওলানা সাকিব আমিন, মাওলানা শাহ এহসানুল ইসলাম, মাওলানা শিহাবুদ্দীন আহমেদ ফরহাদ, মাওলানা সোহায়েব সাফদার আলী, মাওলানা উমাইর উদ্দিন খান, মাওলানা ওয়াকার আহমেদ ও মাওলানা জাবেদ হোসেন জামান। আলিমা বিভাগে গ্র্যাজুয়েশন শেষ করেছেন ৭ জন। তাঁরা হলেন, আলিমা আয়েশা সিদ্দিকা, আলিমা সাদিয়া হাসান ,আলিমা হুমায়রা আলম, আলিমা সামিরা আলম, আলিমা সাদিয়া আফরিন, আলিমা মদিনা বাবুরি ও আলিমা আবীর রহমান।

২০২১ সেশনে হিফজ বিভাগে ৮ জন গ্র্যাজুয়েশনকারীরা হলেন হাফিজ এহসান উদ্দিন, হাফিজ আরিয়ান হুসেইন, হাফিজা তাহমিদ ইসলাম,হাফিজ আবু সিফাত, হাফিজ আব্দুল্লাহ হোসেন, হাফিজ ইফাত হোসেন, হাফিজ সাঈদ খান ও হাফিজ আব্দুর রহমান।

মেয়ে বিভাগের ২ জন হলেন,হাফিজা সুমাইয়া তিরমিজি ও হাফিজা নাজিয়া নাহিয়ান।

২০২০ সেশনে মোট ২৭ জন পাস করেন। এরমধ্যে আলিমা বিভাগে ১৩ গ্র্যাজুয়েশনকারীরা হলেন, আলিমা সায়মা সুলতানা, আলিমা মায়মুনা হান্নান, আলিমা মাহবুবা সোমা, আলিমা তাসফিয়া আলম, আলিমা সাফা হাদী,আলিমা মেহবেশ শওকত, আলিমা মাহাম মুস্তাক, আলিমা আসিয়া আলী, আলিমা ফাতিমা ফায়জুর রহমান, আলিমা ফারজানা ওয়াহাব, আলিমা সাদিকা রহমান, আলিমা আয়েশা নাঈম ও আলিমা নেহা আনিস।

১৪ জন আলিমরা হলেন, মাওলানা কাজী ওয়ালিউল্লাহ ফাওয়াজ, মাওলানা মোহাম্মেদ ইমাদুদ্দিন আহমেদ, মাওলানা ইব্রাহিম জুনায়েদ, মাওলানা তাহমিদ হুসাইন, মাওলানা আব্দুল্লাহ জুহাইর আলম, মাওলানা মোমিন শাহজাদ, মাওলানা মুয়াজ প্যাটেল, মাওলানা সোয়েব সিদ্দিকী, মাওলানা ইউসুফ আহমেদ, মাওলানা মোশারেফ হোসেন, মাওলানা মোহাম্মেদ হাফিজুর রহমান, মাওলানা সিবগাতুল্লাহ আহমেদ, মাওলানা তোফাজ্জুল হক আমিন ও মাওলানা সালিম আহমেদ।

২০২০ সেশনে হাফিজ বিভাগে ৯ জন হলেন গ্র্যাজুয়েশনকারীরা হলেন,হাফিজ সাকিব তানভির, হাফিজ সামিত আলম, হাফিজ জহিরুল ইসলাম, হাফিজ তাজ উদ্দিন মো. কাফিল ও হাফিজ সায়েব সুদাদ,হাফিজ আবদুল্লাহ আহমেদ,হাফিজ ইসাম উদ্দীন,হাফিজ মাহদি ওয়াদুদ ও হাফিজ হুসাইন খান।

মেয়েদের বিভাগে ৭ জন হলেন, হাফিজা হাবিবা আরিফ, হাফিজা আমিনা খান, হাফিজা সুবাইটা হোসেইন, হাফিজা ফাতিমা আলমগীর, হাফিজা আকিলা নুজহাত, হাফিজা আসিয়া এহসান ও হাফিজা তাসনুম ইসলাম।

দারুল উলুম নিউইয়র্কের প্রেসিডেন্ট বরকত উল্লাহ বলেন, আল্লাহর রহমতে আমরা খুশি। করোনার মধ্যেও ছাত্রছাত্রীরা ধৈর্য ও মনোযোগসহ লেখাপড়া করছেন ও পাস করছেন। আমাদের এখানে ছেলেদের থাকার ব্যবস্থা আছে, তবে মেয়েদের থাকার ব্যবস্থা নেই। ছেলে শিক্ষার্থীরা নিউজার্সি, পেনসিলভিনিয়াসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে আসেন এবং এখানে থেকে পড়াশোনা করেন।

তিনি জানান, করোনার পর থেকে রমজান মাসের আগ পর্যন্ত তারা অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা করতেন। রমজান মাস থেকে তারা ইনপারসন ক্লাস খুলে দেন। বর্তমানে তাদের ইনপারসন ক্লাস চালু রয়েছে। তিনি আরও জানান, এবার যারা পাস করেছেন, তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন উচ্চশিক্ষা গ্রহণে মিসরে যাচ্ছেন। কয়েকজন যাচ্ছেন সৌদি আরবে। এ ছাড়া নিউইয়র্কের কলেজে যাচ্ছেন কয়েকজন। মুফতি হিসেবেও যোগ দেবেন কয়েকজন। প্রতিষ্ঠানটি থেকে এ বছর কয়েকজন মুফতি হয়েছেন।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img