মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৬, ২০২১

‘আফগানিস্তানে আমেরিকাকে সঙ্গ দিয়ে বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে পাকিস্তান’

আমেরিকার সঙ্গে ইসলামাবাদের গত দুই দশকের সম্পর্ককে ভয়াবহ ও বিপর্যয়কর উল্লেখ করে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, আমেরিকার মিত্র হওয়া সত্ত্বেও অসংখ্যবার ড্রোন হামলার শিকার হয়েছে পাকিস্তান। একই সময়ে আফগানিস্তানে আমেরিকাকে সঙ্গ দিতে গিয়েও আমরা মারাত্মক ক্ষতির শিকার হয়েছি।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টোনি ব্লিঙ্কেন পাকিস্তানের সঙ্গে তার দেশের সম্পর্ককে পুনর্মূল্যায়ন করা হবে বলে ঘোষণা করার পর এ মন্তব্য করলেন ইমরান খান।

মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের পররাষ্ট্র বিষয়ক কমিটিকে গত মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ব্লিঙ্কেন বলেন, আফগানিস্তানে পাকিস্তানের এমন অনেক স্বার্থ রয়েছে যা মার্কিন স্বার্থের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। এ বিষয়টি এই দুই পুরনো মিত্রের মধ্যে আস্থাহীনতার পরিবেশকে চাঙ্গা করেছে। এর প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে গতকাল রাতে সিএনএনকে দেওয়া সাক্ষাতকারে ব্লিঙ্কেনের বক্তব্যকে তার অজ্ঞতা থেকে উৎসারিত বলে মন্তব্য করেন পাক প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, এমন অজ্ঞ ও মূর্খ বক্তব্য আমি আমার জীবনে শুনিনি।

পাকিস্তানে সন্ত্রাসীদের আশ্রয় প্রদান ও দেশটিকে সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্যে পরিণত করার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে ইমরান খান বলেন, পাক-আফগান সীমান্ত জুড়ে গত ২০ বছর যাবত আমেরিকার কঠোরতম ড্রোন নজরদারি বজায় ছিল; কাজেই তারাই ভালো করে জানে, পাকিস্তানে সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্য আছে নাকি নেই।

চলতি শতাব্দির গোড়ার দিকে পাকিস্তানের সাবেক সেনা শাসক পারভেজ মুশাররফ আমেরিকার তথাকথিত সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে তার দেশকে জড়িয়েছিলেন। কিন্তু বিরোধী রাজনীতিবিদ হিসেবে শুরু থেকেই ওই যুদ্ধে পাকিস্তানের অংশগ্রহণের ঘোর বিরোধিতা করে এসেছিলেন ইমরান খান।

তিনি বলেন, পাকিস্তানের সঙ্গে মিত্র দেশ হিসেবে আমেরিকা যে আচরণ করেছে তা অত্যন্ত অন্যায়। মিত্র হওয়া সত্ত্বেও আমেরিকা পাকিস্তানে ৪৮০টি ড্রোন হামলা চালিয়েছে। এছাড়া আফগানিস্তানে আমেরিকা ও ন্যাটো জোটের কথিত সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের কারণে পাকিস্তানের ৮০ হাজার সামরিক ও বেসামরিক ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমেরিকাকে বহুবার এই বলে সতর্ক করা হয়েছিল যে, তারা সামরিক উপায়ে আফগান সংকটের সমাধান করতে পারবে না। আফগানিস্তানে বাইরে থেকে চাপিয়ে দেওয়া কোনো সরকারকে দেশটির জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য করা যাবে না। কাজেই তালেবানকে নিয়ন্ত্রণ করার চিন্তা বাদ দিয়ে তাদেরকে সহযোগিতার মানসিকতা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

ইমরান খান বলেন, মানবাধিকার রক্ষার প্রশ্নে আন্তর্জাতিক সমাজের উচিত তালেবানকে সময়ে দেওয়া। কিন্তু যদি এখন দেশটিকে সহযোগিতা করা না হয় তাহলে আফগানিস্তানে আবার বিশৃঙ্খলা ও গোলযোগ দেখা দেবে।

সূত্র: পার্সটুডে

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img