রবিবার, আগস্ট ১, ২০২১

নাগোরনো-কারাবাখকে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতির দিতে ফ্রান্সের ষড়যন্ত্র; আজারবাইজানের নিন্দা

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


ফ্রেঞ্চ সিনেট কর্তৃক আজারবাইজানের অঞ্চল নাগোরনো কারাবাখকে স্বাধীন দেশ আখ্যায়িত করে স্বীকৃতি দিতে নতুন করে ষড়যন্ত্র করছে। ফ্রান্সের এই ষড়যন্ত্রকে চরম পক্ষপাতীত্ব ও উস্কানিমূলক হিসেবে আখ্যায়িত করেছে আজারবাইজান।

বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) ফ্রেঞ্চ সিনেট কর্তৃক আজারবাইজানের অঞ্চল নাগোরনো কারাবাখের তথাকথিত স্বাধীনতার স্বীকৃতির প্রস্তাবের নিন্দা জানিয়ে এই মন্তব্য করে আজারবাইজান।

তাছাড়া আজারবাইজানের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় গত বুধবার এই বিষয়ে একটি বিবৃতি দেয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, নির্বাচনী ফায়দা লুটতেই নাগোরনো কারাবাখ যুদ্ধের ইস্যুকে কাজে লাগাচ্ছে একদল আর্মেনীয়ফ্রেঞ্চ সিনেটর। আমরা সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই, মূলত ফ্রেঞ্চ সিনেটকে ব্যবহার করে পুরোদস্তুর আর্মেনীয়ফ্রেঞ্চ সিনেটররা, বিতর্কিত নাগোরনো কারাবাখকে আলাদা স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃত করিয়ে নিয়ে নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের লক্ষ্যে এই কাজ করেছে, যা চরম পক্ষপাতীত্ব ও উস্কানিমূলক একটি বিষয়।

বিবৃতে আরো বলা হয়, যদিও ওই স্বাধীনতার স্বীকৃতির প্রস্তাবটি ফ্রেঞ্চ সিনেট কর্তৃক স্বীকৃত, কিন্তু তারপরেও তা আইন সম্মত নয়।

আজারবাইজান পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আরো বলা হয়, ফান্সের এমন আচরণ তাদেরকে মধ্যস্থতাকারীরূপে গণ্য করার ক্ষেত্রে সন্দেহ ও জটিলতা সৃষ্টি করে।

তাছাড়া আজারবাইজানের নাগরিক সমাজে ফ্রান্সের মধ্যস্থতা নিয়ে যে ভাল ধারণা ছিল, এই ঘটনার পর তা এখন শূণ্যের কোঠায় নামতে শুরু করেছে। আজারবাইজানীদের কাছে ফ্রান্স তাদের মর্যাদা হারাচ্ছে।

এহেন পক্ষপাতীত্ব ও উস্কানীমূলক কার্যক্রম থেকে ফ্রান্সের সরকারকে সরে আসার আহবান জানিয়ে আজারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পক্ষপাতদুষ্ট প্রস্তাব গ্রহণ করার পরিবর্তে এই অঞ্চলে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও অগ্রগতির ক্রমধারা সচল রাখতে ফ্রেঞ্চ সরকারের কাজ করা উচিত।

ফরাসী সিনেটেরদেরও উচিত এই সমস্ত কর্মকাণ্ডে সহায়তা করা ও সম্পৃক্ত হওয়া। কেনোনা তা নাগোরনো কারাবাখের টেকসই উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতা রক্ষার পাশাপাশি ফ্রান্সের মর্যাদা বাড়াতেও সহায়ক হবে।

উল্লেখ্য, ‘নাগোরনো কারাবাখ রিপাবলিক’ নামে তথাকথিত স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি প্রদানের প্রস্তাবনা পেশ করা হয় ফ্রেঞ্চ সিনেটে অথচ তা সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভূক্ত আজারবাইজানের স্বাধীন ভূখণ্ডের অংশ।

সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে পৃথক হওয়া স্বাধীন দুটি রাষ্ট্র আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মাঝে ১৯৯১ সাল থেকে এই অঞ্চলটি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। কেনোনা আর্মেনিয়ার সন্ত্রাসীরা আজারবাইজানের ওই অঞ্চলটি নিজেদের দখলে রেখেছিল।

কালবাজার, লাচিন, কুবাদলী, জাঙ্গীলান, জিবরাইল, ফুজুলী, ও আগদাম নামের মোট সাতটি সীমানা সংযুক্ত আজারবাইজানের ওই অঞ্চলটিতে ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে সংঘর্ষ হলে তা আবার আজারীদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে এবং আর্মেনিয়রা অঞ্চলটি আজারীদের কাছে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। পরবর্তীতে হাজার হাজার আর্মেনিয়রা রাশিয়ার মধ্যস্থতায় কারাবাখ অঞ্চলে তাদের অবৈধ দখল ছেড়ে নিজ দেশে ফিরে যায়।

সূত্র: ইয়েনি শাফাক

- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ