বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২

ইসরাইলের সাথে কোন আপোষকামিতা জনগণ বরদাশত কররেব না : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

ইসরায়েলে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়ায় এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে- ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা মুহাম্মাদ ইমতিয়াজ আলম ও সেক্রেটারী আব্দুল আউয়াল মজুমদার।

আজ (২৩ মে) এক বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, সরকার পাসপোর্ট থেকে ইসরায়েলে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে মুসলমানদের চেতনার সাথে বেঈমানী করেছে। জায়নবাদী ইহুদী রাষ্ট্র ইসরাইলকে খুশি করেছে। যা ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের উপ-মহাপরিচালক গিলাড কোহেন এর সন্তোষ প্রকাশ করার মাধ্যমেই বুঝা যাচ্ছে। আর এ সিদ্ধান্ত ফিলিস্তিনি মুক্তিকামী মানুষের রক্তের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা ও বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষের বিশ্বাসের সাথে তামাশার শামিল। যা কখনোই মেনে নেয়া হবে না।

তারা বলেন-একটি অবৈধ, দখলদার সন্ত্রাসী রাষ্ট্রের সাথে বাংলাদেশের মানুষ কখনো আপোষ করবে না বরং ফিলিস্তিনি নাগরিকদের নিরাপত্তা, স্বায়ী-স্বাধীনতার লক্ষ্যে আমাদের কাজ করতে হবে। বিশ্বে মানুষে মানুষে, ধর্মে ধর্মে, দেশে দেশে সহযোগিতা ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক থাকবে কিন্তু সন্ত্রাস ও দখলদার শক্তির কোন স্থান দেয়া যাবে না।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, বৃহৎ সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশ বাংলাদেশ। একাত্তরে রক্তক্ষয়ি যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জন করেছি-আমরা বুঝি স্বাধীনতার অর্থ, এটাও বুঝি জুলুমবাজের পরিণতি কি হয়। তাই ইসরাইলকে সেই করুণ পরিণতির জন্য অপেক্ষা করতে হবে। মুসলিম রাষ্ট্র বাংলাদেশ কখনো ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেয়নি এবং দিতে দেয়া হবেও না।

প্রসংগত, বাংলাদেশের পাসপোর্টে এতদিন ধরে লেখা থাকতো ‘দিস পাসপোর্ট ইজ ভ্যালিড ফর অল কান্ট্রিজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড একসেপ্ট ইসরায়েল’। তবে নতুন ই-পাসপোর্টে সংশোধন করে লেখা হচ্ছে ‘দিস পাসপোর্ট ইজ ভ্যালিড ফর অল কান্ট্রিজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড’। এখানে ‘একসেপ্ট ইসরায়েল’ লেখাটি বাদ দেওয়া হয়েছে। এর মানে হলো বাংলাদেশের পাসপোর্ট এখন ইসরায়েলসহ বিশ্বের সব দেশের ক্ষেত্রেই বৈধ।

এই প্রসঙ্গ সামনে এলে নেতৃদ্বয় ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং অনতিবিলম্বে পাসপোর্টে ‘দিস পাসপোর্ট ইজ ভ্যালিড ফর অল কান্ট্রিজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড একসেপ্ট ইসরায়েল’ লেখা পুনঃসংযোজন করতে বলেন।

তারা হুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন-ইসরাইলের সাথে কোন ধরণের সমঝোতা করতে চেষ্টা করলে সরকারের জন্য তা মঙ্গলজনক হবে না এবং বাংলাদেশের শান্তিপ্রিয় মানুষের চেতনা বিশ্বাসে আঘাত করে বিশৃংঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে এর দায়ভার সরকারকেই বহন করতে হবে।

spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img