মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৬, ২০২১

ডিসেম্বর থেকে পুরোদমে মাঠে থাকার পরিকল্পনা বিএনপির

নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন ও নির্বাচনকালীন সরকারের দাবিতে আগামী ডিসেম্বর থেকে মাঠে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। দলের নির্বাহী কমিটি, উপদেষ্টা কাউন্সিল ও অঙ্গসংগঠনের নেতাদের সাথে সিরিজ বৈঠকের পর মাঠে নামার এমন পরিকল্পনাকেই প্রাধান্য দিচ্ছে হাইকমান্ড। দলের মূল নেতাদের সাথে বৈঠকের পর এখন জেলা পর্যায়ের নেতা ও সমমনা পেশাজীবী সংগঠনের মতামতও নেবে দলটি। এরপরই কর্মসূচি প্রণয়নের দিকে নীতিনির্ধারকরা নজর দেবেন।

জানা যায় , গত সপ্তাহে টানা তিন দিনের সিরিজ বৈঠকে ২৮৬ জন নেতা উপস্থিত ছিলেন, যাদের মধ্যে ১১৮ জন নেতা বক্তব্য রাখেন। বৈঠকে বিএনপির সিনিয়র, মধ্যম ও তরুণ নেতাদের সবাই বলেছেন, আন্দোলন ছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি মিলবে না, বরং তাকে আজীবন কারারুদ্ধই থাকতে হবে। তারা বলেন, ভোটের অধিকারের ফয়সালা রাজপথেই করতে হবে। আন্দোলন ছাড়া নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে না। এমনকি নির্দলীয়, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করাও সম্ভব হবে না।

মাঠের নেতাদের এ ধরনের বক্তব্যকে আমলে নিয়েছে হাইকমান্ড। বৈঠকগুলোতে তারা ডিসেম্বরে আন্দোলনে যাওয়ার ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন, সামনে রাজপথের আন্দোলন কর্মসূচি দেওয়া হবে।

দায়িত্বপ্রাপ্ত যেসব নেতা মাঠে থাকবেন না তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রাজপথে থাকা নেতাদেরই দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে ঠাঁই দেওয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এ মুহূর্তে আমাদের সামনে মূল চ্যালেঞ্জ হচ্ছে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করা, গণতন্ত্রের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করা এবং জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করা। সে লক্ষ্যেই আমরা দলীয় নেতাদের মতামত নিচ্ছি। পর্যায়ক্রমে আমরা কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, সাংগঠনিক জেলা পর্যায়ের শীর্ষ নেতা এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও পেশাজীবী সংগঠনের মতামত নেবো। সংশ্লিষ্ট সবার মতামত নিয়ে আমরা সামনে পথ চলতে চাই। এটাও ঠিক, আমাদের দাবিগুলো সরকার স্বাভাবিকভাবেই মেনে নেবে না। এ ক্ষেত্রে আন্দোলনের বিকল্প নেই। আমরা আন্দোলনেই আছি। সময়মতো আমরা আরো কঠোর কর্মসূচি দেবো।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img