আইন প্রয়োগে অবৈধ হস্তক্ষেপ বন্ধ না হলে পরিস্থিতির আরো অবনতি হবে: মুফতি নাছির উদ্দিন খান

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ, সিলেট এমসি কলেজ, খাগড়াছড়ির ঘটনা’সহ দেশব্যাপী বেড়ে চলা নারী নির্যাতন, সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ, পাশবিকতা ও নারী নিপীড়নের ঘটনার প্রতিবাদ ও অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ গাজীপুর মহানগর শাখা।

আজ বুধবার (৭অক্টোবর) টঙ্গী প্রেসক্লাবের সামনে মুফতী শাব্বির আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক ছাত্র নেতা মুফতি নাছির উদ্দিন খান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুফতি নাছির উদ্দিন খান বলেন, দেশে আইনের শাসন ভেঙ্গে পড়ায় ও বিচারকাজে রাজনৈতিক বিবেচনা ও পক্ষপাতের কারণে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনা ভয়াবহ পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে। রাষ্ট্রীয় শাসনকাজ ও আইনের প্রয়োগে ক্ষমতাসীন দলের অবৈধ হস্তক্ষেপ ও প্রভাব বন্ধ না হলে পরিস্থিতির আরো অবনতি হতে থাকবে। পরিস্থিতি যেখানে গিয়ে ঠেকেছে, দেশের কোন মানুষই নিরাপদবোধ করছে না। সকলের মাঝেই এক অজানা আতঙ্ক ও হতাশা কাজ করছে।

তিনি বলেন, এভাবে একটা দেশ চলতে পারে না। সরকারকে এ অবস্থার উত্তরণ করতে হবে। অন্যথায় গণজোয়ার শুরু হলে সকল অন্যায়চারীরা খড়কুটোর মতো ভেসে যাবে। আমরা সংশ্লিষ্ট সকলকে পরিস্থিতির আরো অবনতি হওয়ার আগে আইনের নিরপেক্ষ প্রয়োগের মাধ্যমে দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা ও অপরাধরোধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের জোরালো আহ্বান জানাই।

সভাপতির বক্তব্যে মুফতি শাব্বির আহমদ বলেন, সিলেটের গৃহবধূ ধর্ষণ, নোয়াখালী বেগমগঞ্জে গৃহবধূ বিবস্ত্র করে নির্যাতনসহ সকল ধর্ষণ ও নির্যাতনকারীদের বিচারের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। অপরাধীদের বিচারে দলীয় পরিচিতির বিবেচনা বন্ধ করতে হবে।

তিনি আরোও বলেন,সম্প্রতি দেশে নারী-শিশু নির্যাতন আংশকাজনক ভাবে বেড়ে গেছে। আইনের চোখ ফাঁকি দিয়ে অভিযুক্তরা পার পেয়ে যাচ্ছে। আশঙ্কাজনক হারে নারী ও শিশু নির্যাতনের অপরাধ বেড়ে গেছে। এসব অপরাধ রোধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের আইন কার্যকর করা জরুরী।

মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য দিয়েছেন- জেলা যুব জমিয়তের সভাপতি মাওলানা আব্দুল কাদের, ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ গাজীপুর মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান মানসুর, প্রচার সম্পাদক মিজানুর রহমান, রাফিউল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *