ফাঁসি নয়, ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করুন: সরকারকে জাফরুল্লাহ চৌধুরী

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘সরকার প্রতিটি ক্ষেত্রেই ভুল কাজ করছে।’

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির অধ্যাদেশ জারির পর এর প্রতিক্রিয়ায় মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লা‌বের একটি অনুষ্ঠানে তি‌নি এ কথা ব‌লেন।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের এই প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি বলেন, ‘সরকার প্রতিটি ক্ষেত্রেই ভুল কাজ করছেন। ফাঁসি অত্যন্ত একটি ভুল কাজ। এর চেয়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করেন। ন্যায় বিচার কোনো কঠিন কাজ না। দ্রুত ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করলে ১৫ দিন বা সাত দিনের মধ্যেই যারা ধর্ষক তাদের ৮০ পার্সেন্ট ধরা পড়ে যাবে। তাদের বিরুদ্ধে চার্জশিট গঠন করে বিচার করেন। আর যারা ধরা পড়বে না তাদের জন্য আলাদা মামলা করেন। তাহলে দেখবেন দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে।’

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘কয়েকদিন যাবত আমরা যা দেখছি এই ধর্ষণ, নারী নির্যাতন হঠাৎ করে মানুষ খারাপ হয়ে গেল? না। দেশে অনাচার থাকলে, দুর্নীতি থাকলে, সুশাসনের অভাব থাকলে এটা ঘটানো হয়। এইসব জিনিস নিজে থেকে ঘটছে তা না। এটা ভারত উপলক্ষ সৃষ্টি করছে। যাতে আমাদের এখানে তারা হস্তক্ষেপ করতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘দেখেন কত দ্রুত একটা আইন করে ফেলল। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি। এটা কোনো উত্তর হতে পারে না। এটা শুধুমাত্র ডাইভারশন, এটা পথকে অন্য দিকে ঘুরিয়ে নিয়ে যাওয়া। আসলে এর প্রতিকার কী? এর প্রতিকার হলো ন্যায়বিচার। আর এই ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে হলে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে শুধু খারাপ কাজ করেছেন তা নয়। তিনি ভালো কাজও করেছেন। তাহলে একটা মধ্যবর্তী নির্বাচন দিয়ে দেখেন না। আর জনগণের কাছে গিয়ে বলবেন আমি ফাঁসি এনেছি। এই ফাঁসির পক্ষে জনগণ যদি আপনাকে ভোট দেয় তাহলে মনে করব আমরা ভুল ছিলাম। উনি সঠিক ছিলেন। কিন্তু উনি জানেন আজ মধ্যবর্তী নির্বাচন হলে উনি ক্ষমতা হারাবে। জনগণ নিজের অধিকার প্রতিষ্ঠা করবে। জনগণ যদি নিজের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারে তাহলে দেশ কল্যাণ কর হবে। যে জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেছিল সেই রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, ‘ঘরে বসে আজান দিলে কেউ শুনবে না। সত্যিকারের ন্যায় প্রতিষ্ঠা করেন। আমরা আপনাকে সম্মান করবো। বঙ্গবন্ধু যে ভুল করেছিল আপনি সে ভুল করবেন না। বঙ্গবন্ধুর অনেক গুণ ছিল কিন্তু অন্যের কথায় বাকশাল কায়েম করেছিল। সিরাজ সিকদারকে হারিয়েছিল। তাই ন্যায়ের পথে চলেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *