এবার ড্রোন যুদ্ধজাহাজ তৈরি করছে তুরস্ক

তুরস্কের দুটি শীর্ষস্থানীয় প্রতিরক্ষা কোম্পানি যৌথভাবে দেশের প্রথম সশস্ত্র মনুষ্যবিহীন যুদ্ধজাহাজ (ইউএলএকিউ) তৈরির কাজ শুরু করেছে।

আরেস শিপইয়ার্ড ও মেতেকসান ডিফেন্স ২৮ অক্টোবর এক বিবৃতিতে জানায় যে এডভান্সড কম্পোজিট উপাদানে এই ইউএলএকিউ নির্মাণ করা হচ্ছে। এর পাল্লা হবে ৪০০ কিলোমিটার এবং এটি ঘন্টায় ৬৫ কিলোমিটার বেগে ছুটতে পারবে।

কোম্পানিগুলো আরো জানায়, এই মনুষ্যবিহীন বা ড্রোন যুদ্ধজাহাজটি দিবা-রাত্র চলার উপযোগী সরঞ্জামে সুসজ্জিত হবে এবং এতে এনক্রিপটেড যোগাযোগ কাঠামোও থাকবে। এটা কোন চলমান যান ও সদরদফতরে বসে অথবা কোন সামুদ্রিক প্লাটফর্ম যেমন এয়ারক্রাফট কেরিয়ার বা ফ্রিগেট থেকে পরিচালনা করা যাবে। গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ, নজরদারি, কারো উপর নজর রাখা, সাগরের উপরিভাগে যুদ্ধ, এসিমেট্রিক ওয়ারফেয়ার, এসকর্ট ও কৌশলগত অবকাঠামো সুরক্ষা মিশনে এটি ব্যবহার করা যাবে।

গত আগস্টেই ড্রোন যুদ্ধজাহাজটির প্রটোটাইপের ডিজাইন চূড়ান্ত করা হয় বলে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো জানায়। সম্প্রতি এর কাঠামোগত নির্মাণও শেষ হয়েছে। এখন বাকি সরঞ্জাম সংযোজনের কাজ চলছে। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে একে পানিতে ভাসানো যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। আর তখন ভূমধ্য সাগরে এটা হবে প্রথম ড্রোন যুদ্ধজাহাজ।

ইউএলএকিউ-এর মিসাইল সিস্টেমের মধ্যে থাকবে চার সেলের ক্রিট ও দুটি এল-ইউএমটিএএস, এগুলো তৈরি করেছে তুরস্কের রাষ্ট্রায়ত্ব মিসাইল-নির্মাতা প্রতিষ্ঠান রকেটসান। ২০২১ সালের প্রথম কোয়ার্টারে ড্রোন যুদ্ধজাহাজের ক্ষেপনাস্ত্র নিক্ষেপ পরীক্ষার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

এ ছাড়াও বিভিন্ন অপারেশনাল প্রয়োজনের লক্ষ্যে ইউএলএকিউ অনেক ধরনের যোগাযোগ ও গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের সরঞ্জামে সজ্জিত থাকবে, যেমন: জ্যামিং ও ইলেক্ট্রনিক ওয়ারফেয়ার সিস্টেম।

সম্পূরক ড্রোনের সঙ্গে মিলে যৌথ অপারেশনও চালাতে পারবে ইউএলএকিউ।

নির্মাতারা বলছেন ইউএলএকিউ শুধু দূর নিয়ন্ত্রিত যুদ্ধজাহাজই হবে না এটি হবে একটি অটোনমাস ভেহিকেল, যাতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাও দেওয়া থাকবে।

সূত্র: ডিফেন্স নিউজ ও সাউথ এশিয়ান মনিটর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *