পরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবে রায়হানের পরিবার

সিলেট নগরের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে নিহত রায়হান আহমদের পরিবারের সদস্যরা সোমবার (৯ নভেম্বর) সিলেট-১ আসনের সাংসদ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন।

রায়হান হত্যা মামলার তদন্ত ও প্রধান অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে আলাপ করতে সোমবার ঢাকায় গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করবেন তারা।

জানা গেছে, সম্প্রতি আমেরিকা থেকে রায়হানের চচা আব্দুল কুদ্দুস ও ইংল্যান্ড থেকে রায়হানের বোন জামাই দেশে এসেছেন। সোমবার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করতে তারা দুজনই ঢাকায় যাচ্ছেন। তাদের সাথে স্থানীয় কাউন্সিলর মখলিসুর রহমান কামরানও ঢাকা যাচ্ছেন।

এর আগে গত ২০ অক্টোবর সিলেট নগরের আখালিয়ায় রায়হানের বাড়িতে গিয়ে তাদের পরিবারের সদস্যদের শান্তনা দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আমার ধারণা পুলিশের বহিস্কৃত এসআই আকবর হোসেন ভূইয়া এখনো দেশ ছেড়ে পালাতে পারেনি। তবে দেশ ছেড়ে চলে গেলেও তাকে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

তবে রায়হান হত্যার প্রায় একমাস পেরিয়ে গেলেও প্রধান অভিযুক্ত আকবরকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার দুইদিন পরই আকবর সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে ভারতের মেঘালয়ে পালিয়ে গেছেন।

উল্লেখ্য, গত ১০ অক্টোবর শনিবার মধ্যরাতে রায়হানকে নগরীর কাষ্টঘর থেকে ধরে আনে বন্দরবাজার ফাঁড়ি পুলিশ। পরদিন ১১ অক্টোবর ভোরে ওসমানী হাসপাতালে তিনি মারা যান। রায়হানের পরিবারের অভিযোগ, ফাঁড়িতে ধরে এনে রাতভর নির্যাতনের ফলে রায়হান মারা যান। ১১ অক্টোবর রাতেই রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার বাদী হয়ে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে মামলা করেন।

গত ১৩ অক্টোবর মামলাটি পিবিআইতে হস্তান্তর করা হয়। এর আগে পুনরায় ময়নাতদন্তের জন্য রায়হানের লাশ কবর থেকে উত্তোলনের আবেদন করেছিলেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুল বাতেন। পরে গত ১৫ অক্টোবর পিবিআই সিলেটের আখালিয়া নবাবি মসজিদ কবরস্থান থেকে রায়হানের লাশ উত্তোলন কাজ শেষ করে। ময়না তদন্তের রিপোর্টে জানা যায় ভোঁতা অস্ত্রের আঘাতেই রায়হানের মৃত্যু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *