হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলোকে উসকে দেওয়ার পিছনে নাস্তিকদের ভূমিকা রয়েছে : মুফতী হারুন ইজহার

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণ সম্পাদক, রাষ্ট্রচিন্তক ও গবেষক শায়েখ মুফতী হারুন ইজহার বলেছেন, আমাদের কাছে তথ্য রয়েছে এদেশের গুটিকয়েক হিন্দুত্ববাদী সংগঠনকে উসকে দেওয়ার পিছনে নাস্তিকদের ভূমিকা রয়েছে। গতকালকে তারা হেফাজতে ইসলাম ও তাওহীদি জনতাকে জবেহ করার যে হুমকি দিল, তার পিছনে শাহবাগী নাস্তিক্যবাদী, সেক্যুলাররাসহ কিছু কুলাঙ্গার জড়িত ছিল। সুতরাং রানা দাস গুপ্তের পাশাপাশি ওই সমস্ত কুলাঙ্গারদের হুশিয়ার করতে চাই।

রবিবার (৮ নভেম্বর) ‘হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের’ মিছিল ও সমাবেশ থেকে বিভিন্ন ইসলামী সংগঠন, দল, আলেম-উলামা ও মাদরাসা সমূহের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর উসকানিমূলক বক্তব্যের প্রতিবাদে চট্রগ্রামে ওলামা জনতা ঐক্য পরিষদ বাংলাদেশ কর্তৃক আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শায়েখ মুফতী হারুন ইজহার বলেন, হে আমার হিন্দু ভায়েরা! আমাদের বার্তা পরিষ্কার, আমাদের লড়াই ও সংগ্রাম বাংলাদেশের নিরীহ হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিরুদ্ধে নয়। আপনারা হাজার বছরের সম্প্রীতি ও ঐতিহ্যের পক্ষে নামুন। ওরা আপনাদের মাথাকে নিয়ে দিল্লিতে ব্যবসা করছে। আমাদের বুঝতে বাকি নেই, ওসি প্রদীপ কুমারের প্রতিটি ক্রসফায়ারের পেছনে রানা দাস গুপ্তের ভূমিকা ছিল।

উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তারা হিন্দু রাষ্ট্রের সাথে আপনাদের লড়াই লাগিয়ে দিতে চাইবে। তাই কোন মন্দিরে আক্রমণ করবেন না। হিন্দু ভাইদের আক্রমণ করবেন না। আমরা এতদিন যেভাবে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানদেরকে বাসাবাড়ি-অফিস, আদালত, দোকানপাটে নিরাপত্তা দিয়ে এসেছি, আগামীতেও তাদের নিরাপত্তা দিয়ে যাব, ইন-শা আল্লাহ।

হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাস গুপ্তের উদ্দেশ্যে শায়েখ মুফতী হারুন ইজহার বলেন, তুমি গতকাল যে স্পর্ধা দেখিয়েছ, আমরা জানি, সেই স্পর্ধার পিছনে বাংলাদেশের হিন্দু জনগোষ্ঠীর কোন সমর্থন ছিল না।

হেফাজতে ইসলামের এই নেতা প্রতিটি ইসলামী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে আগামী শুক্রবারের মধ্যে রানা দাস গুপ্তকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার আল্টিমেট দিয়েছেন। তিনি বলেন, অন্যথায় আমরা সারাদেশে দুর্বার সংগ্রাম গড়ে তুলব।

প্রবীণ রাজনীতিবিদ আব্দুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন, কারী ফজলুল করিম জিহাদি, আনোয়ার হুসাইন রব্বানি, মুফতি শামিম হুসাইন, মুফতি সানাউল্লাহ, কামরুল ইসলাম ও কুতুব উদ্দিন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *