আজ পাকিস্তানে পালিত হচ্ছে মহাকবি আল্লামা ইকবালের ১৪৪ তম জন্মবার্ষিকী

ইনসাফ | সোহেল আহম্মেদ


আজ সোমবার (৯ নভেম্বর) পাকিস্তানে জাতীয়ভাবে পালিত হচ্ছে মহাকবি আল্লামা ইকবালের ১৪৪ তম জন্ম বার্ষিকী। তিনি পাকিস্তানের জাতীয় কবি হিসেবেও রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃত।

মহাকবি আল্লামা ইকবালের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে পাক সরকার ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক ও সাহিত্য সংগঠন কবির জন্মদিনকে সম্মান জানাতে সেমিনার, প্রদর্শনী এবং সম্মেলন করেছে। যদিও দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসের প্রদুর্ভাবের কারণে সবরকম আনুষ্ঠানিকতা নিষিদ্ধ রয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৮৭৭ইং সালের ৯ নভেম্বর পাকিস্তানের লাহোর থেকে ১৩৯ কিলোমিটার (৮৯ মাইল) দূরে অবস্থিত উত্তর-পূর্ব শিয়ালকোট শহরে জন্মগ্রহণ করেন মহাকবি আল্লামা ইকবাল। তাঁকে “মুফাক্কির-ই-পাকিস্তান” বলা হয়। তিনিই সর্ব প্রথম তৎকালীন ভারতবর্ষের মুসলমানদের জন্য পৃথক একটি স্বদেশের ধারণ প্রকাশ করেছিলেন। তিনি কেমব্রিজের ট্রিনিটি কলেজ থেকে বৃত্তি পেয়েছিলেন এবং ১৯০৬ সালে চারুকলায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। মহাকবি আল্লামা ইকবাল ১৯০৮ সালে পার্সিয়ায় অধিবিদ্যার বিকাশের বিষয়ে থিসিস দিয়ে জার্মানির লুডভিগ ম্যাক্সিমিলিয়ান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেন। একই বছর তিনি লাহোরে ফিরে এসে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শন ও ইংরেজি সাহিত্যের অধ্যাপক হিসাবে যোগদান করেন।

মহাকবি ইকবাল ফারসি ও উর্দু ভাষায় সাহিত্যকর্ম রচনা করেছেন। তাঁর প্রথম কাব্য গ্রন্থ আসরারে খুদী ১৯১৫ সালে ফারসি ভাষায় প্রকাশিত হয়। কবির অন্যান্য পার্সিয়ান কবিতাগুলিতে রমুজ-ই-বেখুদি, পাইয়াম-ই-মাশরিক এবং জাবুর-ই-আজম অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ইকবালের উর্দু রচনাগুলি হল বাং-ই-দারা, বাল-ই-জিবরাইল, জারব-ই কলিম এবং আরমুগান-ই-হিজাজের একটি অংশ।

অনেকে রুমি এবং মহাকবি ইকবালকে কেবল সাহিত্যের জগতের মধ্যেই নয় তুরস্ক ও পাকিস্তানের সাধারণ মানুষের মধ্যে একটি সংযোগ হিসাবে দেখেন।

অনেক সাহিত্য সমালোচক ইকবালকে সূফী পন্ডিত জালালউদ্দিন আল-রুমির দর্শনের বর্ধন হিসাবেও দেখেন। তাঁর ফারসি কবিতা বিশেষত রুমি দ্বারা প্রচণ্ডভাবে প্রভাবিত হয় যা মেভলানা নামে বহুল পরিচিত। বিশ্ববিখ্যাত এই কবি ১৯৩৮ সালের ২১ শে এপ্রিল লাহোরে ইন্তেকাল করেন।

সূত্র: ইয়েনি সাফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *