বৃহস্পতিবার, মে ১৯, ২০২২

‘জম্মু ও কাশ্মীর ইস্যু আর দ্বিপক্ষীয় বিরোধ নয়’

সাবেক বিজেপির রাজনীতিবিদ সুধিন্দ্র কুলকার্নি ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে স্থবির হওয়া সংলাপ প্রক্রিয়া আবার শুরু করার ব্যাপারে সোচ্চার।

তিনি মনে করেন, কয়েক দশক ধরে ঝুলে থাকা কাশ্মীর বিরোধ আর কেবল পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় বিষয় হয়ে থাকা উচিত নয়।

বিজেপি ত্যাগ করার পর তিনি ফোরাম ফর অ্য নিউ সাউথ এশিয়া প্রতিষ্ঠা করেন। এই প্রতিষ্ঠানটি ভারত-চীন-পাকিস্তান সহযোগিতার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। এখানে তার একটি সাক্ষাতকার প্রকাশ করা হলো।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সম্প্রতি বলেছেন যে তিনি আফগানিস্তানে ভারতের সম্পৃক্ততার বিরোধী। পাকিস্তানের ভৌগোলিক সুবিধার আলোকে ভারতের সামনে কী বিকল্প আছে?

ইমরান খান ঠিক বলছেন না। আফগানিস্তানের ক্ষেত্রে পাকিস্তানের অবশ্যই ভৌগোলিক সুবিধা রয়েছে। তবে ভারত হলো আফগানিস্তানের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও শক্তিশালী সাংস্কৃতিক-সভ্যতাগত প্রতিবেশী। আফগানিস্তানে শান্তি ও জাতি-গঠন কাজে ভারত ও পাকিস্তান উভয়েরই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। কাবুলে নয়াদিল্লী ও ইসলামাবদের একত্রে কাজ করা উচিত।

স্থবির হয়ে থাকা সংলাপ প্রক্রিয়া শুরু না করার জন্য কি ভারত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে?

দুর্ভাগ্যজকভাবে আফগানিস্তান হয়ে পড়েছে ভারত-পাকিস্তানের জন্য আরেকটি প্রতিদ্বন্দ্বিতার মঞ্চ। পাকিস্তানের প্রস্তাব করা সবকিছুর বিরোধিতা করে ভারত এবং ভারতের প্রস্তাব করা সবকিছুর বিরোধিতা করে পাকিস্তান। এটা কেবল আফগানিস্তানের শান্তি ও সমন্বয় প্রক্রিয়াকেই ক্ষতিগ্রস্ত করছে না, ভারত ও পাকিস্তানের দীর্ঘমেয়াদি স্বার্থও ক্ষতিগ্রস্ত করছে।

গত বছরের অনুচ্ছেদ ৩৭০ বাতিলের প্রেক্ষাপটে পাকিস্তানের কি কোনো শর্ত ছাড়াই আলোচনায় আসা উচিত?

আফগানিস্তান ও কাশ্মীর পরিস্থিতিকে ভিন্ন দৃষ্টিতে বিবেচনা করা উচিত। দুটি আলাদা বিষয়।

কোনো পূর্ব শর্ত ছাড়াই ভারত ও পাকিস্তানের উচিত হবে আলোচনায় বসা। বিবদমান সব ইস্যু নিয়েই আলোচনা হওয়া উচিত। আর জম্মু ও কাশ্মীর ইস্যুতে বোঝা যাচ্ছে, ইটি আর ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় ইস্যু নয়। বরং এটি একটি ত্রিপক্ষীয় ইস্যু। প্রাক-১৯৪৭ মানচিত্রের দিকে তাকালে দেখা যাবে, এটি পুরোপুরি ভারতের মধ্যে ছিল না। এই এলাকার তিনটি অংশ তিনটি দেশ- ভারত, পাকিস্তান ও চীন নিয়ন্ত্রণ করছে।

এ কারণে জম্মু ও কাশ্মীর সমস্যার ব্যাপকভিত্তিক, শান্তিপূর্ণ ও চূড়ান্ত নিষ্পত্তির জন্য তিন জাতির সংলাপ প্রয়োজন। এতে নয়াদিল্লী, ইসলামাবাদ ও বেইজিংয়ের সহযোগিতার প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পাকিস্তাননীতিকে কিভাবে মূল্যায়ন করেন? কথিত আন্তঃসীমান্তে সন্ত্রাসবাদের প্রতি সমর্থনের কারণে বিশ্ব পর্যায়ে পাকিস্তানকে নিঃসঙ্গ করতে পারবে কি ভারত?

বিশ্ব পর্যায়ে পাকিস্তানকে ভারত নিঃসঙ্গ করতে পারেনি, পারবেও না। ভারত এই ব্যর্থ প্রয়াস অব্যাহত রাখতেও পারবে না।

মোদির পাকিস্তান নীতিতে ধারাবাহিকতা নেই। তিনি ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে আকস্মিকভাবে লাহোর গিয়ে নাটকীয় শান্তি ইঙ্গিত দেন। ওই সময় নওয়াজ শরিফ ছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু তারপর আলোচনার সব দরজা বন্ধ করে দেয়া হলো। অথচ সত্য হলো: আলোচনার কোনো বিকল্প নেই। ভারত ও পাকিস্তানের শিগগিরই আবার আলোচনা শুরু করা উচিত।

উৎস, সাউথএশিয়ানমনিটর

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img