রবিবার, জুলাই ২৫, ২০২১

নিরীহ কওমি ছাত্রদের মুক্তি চাই | মুফতী হারুন ইজহার

গ্রেপ্তার ছাত্রদের মুক্তির কোন খবর আছে? মানবিক এ বিষয়টি রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়ার আলাপে গুম হয়ে গেলে কেন?

ক্ষমতাসীন দলের রাজনৈতিক কিছু আবালদের ঘেউঘেউকে মাত্রারিক্ত আমলে আনা দরকার নেই। এগুলো এ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ মূল খুঁটি না, এরা রাজনৈতিক কৌশলগত নানা মেরুকরণের কল্যাণে এখনো টিকে আছে। রাষ্ট্রসমূহে ডিপ স্টেট নামে একটা কথা আছে, ঐটাই গুরুত্বপূর্ণ। আদর্শিক কোন বিপর্যয় না থাকলে ঐ জায়গাটাতে সম্মানজনক সংলাপে কোন সমস্যা নেই। আমাদের নেতারা বিষয়টা ভালভাবে বোধহয় ফাংশন করতে পারনেনি। রাজনৈতিক গুণাবলিতে পরিপক্বতা খুব বেশী কাম্য।

কথা বলতে হবে, ডায়ালগে যেতে হবে, শান্তিপূর্ণ উপায় খুঁজতে হবে, পক্ষ-বিপক্ষের সাথে কমিটমেন্ট রাখতে হবে, সাথে সাথে আদর্শিক দৃঢ়তা লাগবে, নৈতিক হিম্মত লাগবে, ত্যাগের মানসিকতা লাগবে, কথা-কাজে সমন্বয় লাগবে। শত্রু/প্রতিপক্ষ যখন বেশী তখন মোকাবিলায় অগ্রাধিকার নির্ধারণে ঘিলু-মগজ লাগবে, নববী সা. মানহাজের সামগ্রিক চিত্রকে মেনে চলার মতো জ্ঞান ও প্রজ্ঞা লাগবে, কথা ক্লিয়ার!

যাহোক নিরীহ কওমি ছাত্রদের মুক্তি চাই, সরাকারের রাজনৈতিক মান অভিমানের বলি কেন হবে কিছু নির্দোষ ঈমানদার তরুণ? ওদের মুক্তি দিতে হবে।

একটা ভুল কিন্তু এখানে আমরা করে থাকি, আইনি প্রক্রিয়া সম্পর্কে অনভিজ্ঞ কওমি নেতৃত্ব রাজনৈতিক তদবীরকে ভরসা মনে করে থাকেন সবসময়।

আদালতে চালান হওয়ার পর আর রাজনৈতিক দেনদরবার ও তদবীরের দরকার নেই, যথাযথ আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাদের বের করে আনতে হবে। এটাতেই আত্মসম্মান।

সরকারের দলীয় ক্যাডাররা খুব বেশী বেফাঁস আস্ফালন করছে, ওদের থামতে বলুন, এ পক্ষ থেকে ধৈর্য প্রদর্শন করা হচ্ছে, সরকারেরও উচিত এবার একটু ক্ষান্তি দেয়া।

সেন্টিমেন্টের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করুন, ছাত্রদের মুক্তিতে বাধা তৈরী করবেননা।

spot_imgspot_img

আরও