বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৯, ২০২১

২৭ বছর পর সম্পূর্ণ নাগোরনো কারাবাখ ফিরে পেল আজারবাইজান; উড়ছে আজারী পতাকা

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


বেদখলে থাকা সর্বশেষ ভূমিতেও আজারী পতাকা উত্তোলনের মধ্যদিয়ে কাগজে-কলমে সমাপ্ত হল আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সংকট।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) আর্মেনিয়ার দখলে থাকা নাগোরনো কারাবাখের সর্বশেষ অঞ্চলটি আজারবাইজানের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করলে আজারী সেনারা ঐ অঞ্চলকে তাদের উড়তে থাকা জাতীয় পতাকায় ছেয়ে দেয়।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়, রাশিয়া-ব্রোকার্ড চুক্তির আওতায় আর্মেনিয়ার দখলে থাকা নাগোরনো কারাবাখের আশপাশের সর্বশেষ ৩টি অঞ্চল আজারবাইজানের কাছে হস্তান্তর করায়,গতরাতে আজারী সেনাদের বহনকারী একটি ট্রাক এসে পুরো অঞ্চলটি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়।

তাছাড়া, এএফপি রয়টার্সের এক ফটো সাংবাদিকের বরাত দিয়ে আল জাজিরার খবরে বলা হয়, মূলত গত মঙ্গলবার থেকেই তারা ওই সমস্ত অঞ্চলের প্রশাসনিক ভবনে আজারী পতাকা উড়তে দেখেছেন।

নাগোরনো কারাবাখ থেকে সকল আর্মেনিয় পালিয়ে গেলেও সদ্য আজারবাইজানের সাথে সংযুক্ত হওয়া কারাবাখের লাচিন অঞ্চলের ৪৮ বছর বয়সী এক মুদি দোকানদার সেখানে থেকে যান।

মুদি দোকানী লেভন গ্যাভরগান আল জাজিরাকে বলেন, আমি শুধুমাত্র খোদাকেই ভয় পাই। আমি এখানে ২২ বছর যাবত বসবাস করছি। আমি এখানে একেবারে শূন্য থেকে জীবন শুরু করেছিলাম, এখন আমার সবকিছুই আছে। আশাকরি আমি এটা ধরে রাখতে পারবো। তাছাড়া, আমার কিছু ঋণ পাওনাদার আছে, তাদের দেনা শোধ করতে হবে।

তিনি বলেন, যদি আমার যেতেই হয় তবে আমি সবকিছু জ্বালিয়ে দিয়ে যাবো।

অপরদিকে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পূর্ণ নাগোরনো কারাবাখ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসার পর আজারী প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ টেলিভিশনে প্রচারিত জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে বলেন, আমরা আমাদের ভূমি থেকে শত্রুদের তাড়িয়ে দিয়ে একটি নতুন ভোরের সূচনা করতে পেরেছি। সবচেয়ে সুখকর বিষয় হল, আমরা আমাদের বেদখল হওয়া ভূখণ্ডের দখল পুনরুদ্ধার করতে পেরেছি এবং অবৈধ দখলদারিত্বকে নিঃশেষ করে দিয়েছি।

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত আজারবাইজান ভূক্ত নাগোরনো কারাবাখ আজারী-আর্মেনিয় সংঘাতে আজারবাইজানের কাছ থেকে বেদখল হয়ে যায় এবং তা অবৈধভাবে দখল করে নিয়েছিল আর্মেনিয় সন্ত্রাসীরা।

বর্তমানে লাচিন করিডোর এবং কারাবাখের মূল শহর স্টেপানকার্টের মধ্যদিয়ে সরাসরি আর্মেনিয়া পর্যন্ত যাওয়া রুটসহ আর্মেনিয়ার কিছু সীমান্তবর্তী এলাকায় সদ্য সম্পাদিত চুক্তির আওতায় ২০০০ রাশিয়ান শান্তিরক্ষী বাহিনী রয়েছে। এছাড়াও সেখানে তুর্কি সেনারাও শান্তিরক্ষী হিসেবে কাজ করবে বলে ঘোষণা করেছিলেন আজারী প্রেসিডেন্ট ইলহাম।

সূত্র: আল জাজিরা

spot_imgspot_img

আরও