বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২০, ২০২২

১৫ মাস পর ইসরাইলের কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে নির্যাতনের বর্ণনা দিলেন ফিলিস্তিনি তরুণী

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান


১৫ মাস পর ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন মী’স-আবু গুশ নামী ২২ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনী তরুণী।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার খবরে জানা যায়, আবু গুশ ফিলিস্তিনের বী’রে যাইত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের ছাত্র। ইহুদিবাদী ইসরাইল কর্তৃক তথাকথিত নিষিদ্ধ ছাত্র সংগঠন ডেমোক্রেটিক প্রগেসিভ স্টুডেন্ট পোলের সক্রিয় সদস্য এবং ইহুদিবাদী ইসরাইলের অবৈধ দখল বিরোধী ছাত্র আন্দোলনে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে ২০১৯ সালে তাকে গ্রেফতার করে ইহুদিবাদী সেনারা ইসরাইলের কারাগারে নিয়ে যায়।

এছাড়াও তার বিরুদ্ধে শত্রুপক্ষের সাথে আঁতাত, ফিলিস্তিনিদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন সম্পর্কিত কনফারেন্সে অংশগ্রহণ ও সশস্ত্র সংগঠন হিজবুল্লাহ কর্তৃক অনুমোদিত একটি সংবাদ সংস্থায় অনবদ্য ভূমিকা পালন করার অভিযোগও আরোপ করে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) ২০০০ ইসরাইলী শেকেল (৬০০ডলার) জরিমানা দেওয়ার পর দখলকৃত পশ্চিম তীরের জেনিন শহরের জালমেহ চেকপোস্টের ড্যামন কারাগার থেকে মুক্তি পান এই ফিলিস্তিনি বীরাঙ্গনা।

মুক্তির পরদিন মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) মী’স আবু গুশ আল জাজিরার প্রতিনিধিকে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় বেরিয়ে আসে ইহুদিবাদী ইসরাইলের কারাগারের ভয়ংকর ও লোমহর্ষক কাহিনি।

আল জাজিরার প্রতিনিধি ও কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠনকে তিনি বলেন, জেরুসালেমের কুখ্যাত মাসকোবিহ জিজ্ঞাসাবাদ কেন্দ্রে তাকে কয়েকমাস যাবত শারিরীক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন করে উগ্র ইহুদিবাদী সেনারা।

মী’স আবু গুশ আরো বলেন, রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের সময় না চায়তেও তাকে কান্না ও নির্যাতনের শিকার হতে থাকা অসংখ্য ফিলিস্তিনি বন্দীর হৃদয়বিদারক চিৎকার শুনতে হতো এবং মানসিক বিকারগ্রস্ত করে দেয় এমন কৃত্রিম আওয়াজ শুনতে বাধ্য করে মানসিক নির্যাতন চালানো হতো। এমনকি অশ্লীল ও অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে তার মুখে অনবরত চড় মেরে যেতো ইহুদিবাদী ইসরাইলী সন্ত্রাসীরা।

দীর্ঘ ১৫ মাস নির্যাতন সহ্য করে মুক্তি পাওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে মী’স আবু গুশ বলেন, আমি ভেবেছিলাম আমি বাড়ি যেতে পারবো ঠিকই তবে, প্যারালাইজড অবস্থায় অথবা মানসিক বিকারগ্রস্ত হয়ে! এমনকি ইহুদিবাদী হায়েনারাও আমাকে প্যারালাইজড ও মানসিক বিকারগ্রস্ত করে দেওয়ার ধমকি দিতে থাকতো।

কারাগারে বন্দী থাকা অন্যান্য ফিলিস্তিনিদের ব্যাপারে তিনি বলেন, শুধুমাত্র আমিই এই অমানুষিক নির্যাতনের ভুক্তভোগী নই বরং, যে কোনো ফিলিস্তিনিকে গ্রেফতারের পর এই ধরণের নির্যাতনের শিকার হতে হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এর চেয়ে বেশি নির্যাতনও করে থাকে উগ্র ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল।

যে সমস্ত ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন সাজার আদেশ শুনানো হয়েছে তাদের সাথে আবু গুশ কথা বলে জানতে পারেন যে, কারাগারের প্রতিটি স্থানেই ক্যামেরা সেট করে রাখা হয়েছে, যার কারণে তাদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লঙ্ঘন হচ্ছে। এমনকি তাদেরকে প্রাকৃতিক কর্ম সম্পাদনও করতে হচ্ছে ক্যামেরার সামনে! এটি খুবই লজ্জা ও অপমানজনক একটি বিষয়।

তাছাড়া, ইহুদিবাদী ইসরাইলের আরেকটি জঘন্য অপরাধ হল, ফ্যামিলি টার্গেটিং। কোনো পরিবারের কেউ কোনো অভিযোগে অভিযুক্ত হলেই তাদের বাড়িতে হামলা চালানো হয় এবং পরিবারের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের সহ অন্যান্যদেরও ধাপে ধাপে গ্রেফতার করে তাদের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়। অনেক সময় তাদের বাড়িও গুড়িয়ে দেওয়া হয়!

আবু গুশ বলেন, কারাগারে আটক থাকা ফিলিস্তিনিরা কারাগারে ও কারাগারের বাইরের লজ্জাজনক অবস্থা থেকে মুক্তি চায়, তারা চায় জাতীয় ঐক্য!

উল্লেখ্য, মী’স আবু গুশের পরিবার ২০১৬ সাল থেকে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের ফ্যামিলি টার্গেটিং এর শিকার। তাদের পরিবারে সর্বপ্রথম তার বড় ভাই হুসাইনকে এক ইহুদি সেনা হত্যার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে মী’স আবু গুশ ও তার ১৭ বছর বয়সী ছোট ভাই সুলায়মানকেও গ্রেফতার করে নিয়ে যায়, এমনকি তাদের বাড়িও গুড়িয়ে দেয় এই ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীরা।

তাছাড়া, দখলকৃত ফিলিস্তিনে ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের আদালতের ৯৯.৪৭ শতাংশ বিচারই হয়ে থাকে ফিলিস্তিনিদের!

সূত্র: আল জাজিরা

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img