কেনার বদলে রাশিয়া থেকে ভাড়ায় পরমাণু সাবমেরিন নিয়েছে ভারত

ভারত বর্তমানে তিনটি পরমাণু সাবমেরিন প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে: অরিহন্ত-ক্লাস এসএসবিএন, এসএসএন ও ১৩,৫০০ টনের এস-৫ ক্লাস এসএসবিএন। কিন্তু দেশটি এখনো তার নিজস্ব সাগর শক্তি অর্জন থেকে অনেক দূরে রয়েছে।

এদিকে রাশিয়ার কে-১৫২ ভারতে আইএনএস চক্র ২ নামে চীনা সম্প্রসারণের বিরুদ্ধে ভারত মহাসাগরে টহল দিয়ে বেড়াচ্ছে।

পরমাণু সাবমেরিন কর্মসূচিতে আত্মনির্ভরতা অর্জনে ভারতের সফলতা অর্জন অনেক দূরের বিষয় হওয়ায় দেশটি ২০১২ সালে ১০ বছরের জন্য ৯০০ মিলিয়ন ডলারে রুশ জাহাজটি ভাড়া নেয়। ভাড়ার মেয়াদ আরো তিন বছরের জন্য বাড়ানো হতে পারে।

চুক্তির আওতায় ভারতীয় ইঞ্জিনিয়ার ও নাবিকেরা সাবমেরিন সার্ভিসিং ও পরিচালনা শেখার জন্য রাশিয়ার কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নেবে। ভারত তার পরমাণু-চালিত অরিহন্ত-ক্লাস সাবমেরিনে নিয়োগের জন্য তার সাবমেরিন ক্রুদের প্রশিক্ষণের জন্য চক্র ২-কে ব্যবহার করছে।

ভারত ২০১৯ সালে আকুলা ১ পরমাণু-চালিত অ্যাটাক সাবমেরিন ভাড়া নেয় রাশিয়ার কাছ থেকে। ১০ বছরের জন্য ভাড়া নেয়া হয় ৩ বিলিয়ন ডলারে। চক্র ৩ নামে পরিচিত হবে এই সাবমেরিন। ২০২৫ সালে ভারতের হাতে সাবমেরিনটি স্থানান্তর করবে রাশিয়া।

চক্র ৩-এর প্রধান লক্ষ্য হলো ভারত যে ছয়টি পরমাণু অ্যাটাক সাবমেরিন তৈরী করার পরিকল্পনা করছে, সেগুলো পরীক্ষা করা। অবশ্য চীন-ভারত উত্তেজনার মধ্যে রাশিয়ার আকুলা ক্লাস পরমাণু সাবমেরিন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

চীন ও পাকিস্তানের তুলনামূলক দুর্বল সাবমেরিনবিধ্বংসী যুদ্ধ সক্ষমতার বিষয়টি বিবেচনা করে বলা যায়, এই সাবমেরিন হবে ভারতের জন্য মূল্যবান সম্পদ। আকুলার নক্সা পরিমার্জিত করে একে নতুন অস্ত্রে সজ্জিত করা হয়েছে, শব্দ কমানো হয়েছে।

চলতি বছরের প্রথম দিকে ডিফেন্স অ্যাকুইজিশন প্রসিডিউর ২০২০-এর আলোকে ভারত সরকার তার তিন বাহিনীকে – সেনা, নৌ ও বিমান- কেনার বদলে সরঞ্জাম ভাড়া নেয়ার বিষয়টি অনুমোদন করে।

সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৮৬ সালে প্রথম তার পরমাণু সাবমেরিন ভাড়া দেয়। ওই সময় চার্লি-ক্লাস পরমাণু ক্রুজ মিসাইল সাবমেরিন ১০ বছরের জন্য নয়াদিল্লীর কাছে ভাড়া দেয় মস্কো।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর ও ইউরেশিয়ান টাইমস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *