রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

‘সীমান্ত হত্যার প্রতিবাদের পরিবর্তে ভারত বন্দনাতেই মশগুল মন্ত্রীরা’

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ-সভাপতি মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেছেন, সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি খুনের ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বেড়ে চলেছে। কিন্তু এসব সীমান্ত খুনের বিরুদ্ধে কড়া প্রতিবাদ ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ তো দূরের কথা, বরং সরকারের অনেক মন্ত্রী ভারত বন্দনাতেই মশগুল হয়ে আছেন। একটা স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশের জনগণের জন্য এটা গভীর উদ্বেগ, হতাশা ও লজ্জার।

বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, গত ২০০৮ সাল থেকে চলতি বছরের ডিসেম্বরের ২২ তারিখ পর্যন্ত ১৩ বছরে জাতীয় পত্রপত্রিকা ও মানবাধিকার সংস্থার পরিবেশিত হিসাব মতে সীমান্তে ভারতীয় বাহিনী ৫৪৮ জন বাংলাদেশিকে খুন করেছে। সর্বশেষ গত ১৬, ২১ ও ২২ ডিসেম্বর লালমনিরহাট, খুলনা ও হালুয়াঘাট সীমান্তে ভারতীয় বাহিনী ৩ বাংলাদেশিকে গুলি করে খুন করে।

তিনি আরও বলেন, এসব সীমান্ত খুনের ঘটনায় বর্ডার গার্ডের তরফ থেকেও পতাকা বৈঠক করে বিএসএফের কাছ থেকে লাশ গ্রহণ ছাড়া ভরসা রাখার মতো কোন তৎপরতাই চোখে পড়ে না। বরং কখনো কখনো বর্ডার গার্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এসব হতভাগ্য নিহত বাংলাদেশিদেরকে চোরাচালানী বা অবৈধ মাদক ও গরুব্যবসায়ী আখ্যা দিয়ে প্রকারান্তরে বিএসএফের নিষ্ঠুরতার পক্ষেই যেন সাফাই গেয়ে যান।

মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, বিশ্বের কোথাও এমনটা আমরা দেখি না যে, কেবল অবৈধ সীমান্ত পারাপার বা চোরাচালানের জন্য মানুষ খুনের মতো নিষ্ঠুরতা ঘটে। ভারত-চীন বা ভারত-পাকিস্তান বর্ডারেও সীমান্তে এমন হত্যাকাণ্ডের খবর দেখা যায় না। সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীরা যে হারে পাখী শিকারের মতো নির্বিঘ্নে বাংলাদেশিদের খুন করে চলেছে, বিশ্বে এমন ঘটনা নজিরবিহীন। বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বিপজ্জনক সীমান্ত হিসেবে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত চিহ্নিত হয়েছে।

আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক আরও বলেন, প্রতিবেশী দেশ হিসেবে ভারতের সাথে সমমর্যাদা ও সমঅধিকারের ভিত্তিতে সুসম্পর্ক থাকতে পারে। কিন্তু সীমান্তে নিরীহ বাংলাদেশিদেরকে লাগাতার ভারত খুন করে যাবে, আর বাংলাদেশ সুসম্পর্ক রক্ষার জন্য চুপচাপ সয়ে যাবে এবং কার্যকর পদক্ষেপের পরিবর্তে সরকাররের মন্ত্রীরা ভারত বন্দনার জিগির তুলবে, আমরা এমনটা চাই না। আমরা চাই সরকার সর্বক্ষেত্রে বাংলাদেশের স্বার্থ রক্ষায় তৎপর হোক, সীমান্তে নাগরিকদের জানমালের হেফাজতে বর্ডার গার্ডের সেনারা বীরের মতো ভূমিকা রাখুক এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে সীমান্তে যে কোন আগ্রাসী তৎপরতার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হোক।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img