বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৭, ২০২২

নির্বিচারে ৪ বছর যাবত মিশরের কারাগারে বন্দী সিনিয়র সাংবাদিক মাহমুদ হুসাইন

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান

আল জাজিরা এরাবিকের সিনিয়র সাংবাদিক মাহমুদ হুসাইনকে নির্বিচারে ৪ বছর যাবত অবৈধভাবে বন্দী করে রেখেছে মিশরের স্বৈরাচারী সরকার।

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) তার অবৈধ বন্দীদশার ৪ বছর পূর্ণ হয়।

আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা আল জাজিরা আবারো এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলে, মাহমুদ হুসাইনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো অভিযোগ আরোপ না করে তাকে নির্বিচারে ৪ বছর যাবত আটক রেখে মিশরীয় ও আন্তর্জাতিক আইন এবং মানবাধিকারের লঙ্ঘন করে চলেছে স্বৈরাচারী সিসির নেতৃত্বাধীন মিশরীয় সরকার।

কেনোনা নির্বিচারে মাহমুদ হুসাইনকে ৪ বছর আটক রেখে বিচারপূর্ব আটক রাখার মিশরীয় ও আন্তর্জাতিক আইনের সর্বোচ্চ বৈধ সীমাকে মিশরের সরকার বহু আগেই পেরিয়ে গেছে। তাছাড়া, নির্বিচারে আটক রাখার ২ বছর পর কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে আবার তৎক্ষনাৎ গ্রেফতার করে নিজেদের রায়কেই প্রশ্নবিদ্ধ করেছে!

বেআইনী ভাবে নির্বিচারে মাহমুদ হুসাইনের ক্রমাগত বন্দীদশার অবসান চেয়ে আল জাজিরা মিডিয়া নেটওয়ার্কের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক মুস্তাফা সাওয়্যাক বলেছেন: তাকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে।

তাছাড়া, মাহমুদ হুসাইনের মুক্তির দাবিতে আল জাজিরার কর্মীদের সংহতিতে বিশ্বের সকল সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীদেরও যার যার অবস্থানে থেকে একাত্মতা প্রকাশের আহবান জানান তিনি।

তিনি বলেন, শুধুমাত্র দায়িত্ব পালনের অপরাধে বিশ্বের যেকোনো সাংবাদিককে ভয় দেখানো, নির্যাতন করা বা কারাগারে আটক রাখা উচিত নয়। তাছাড়া এটাও কঠিন সত্য যে, গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের মূল্যবোধকে সমর্থন করার ক্ষেত্রে যে স্বাধীন সাংবাদিকতার প্রয়োজন সেই মূলভিত্তিটিই আজ অবরুদ্ধ।

উল্লেখ্য, ২০১৩সালে জেনারেল সীসীর নেতৃত্বাধীন মিশর সরকার সেখানে আল জাজিরা মিডিয়া নেটওয়ার্কের কার্যক্রম বন্ধ করে দিলে আল জাজিরা এরাবিকের সিনিয়র রিপোর্টার ও সাংবাদিক মাহমুদ হুসাইন কাতার চলে আসেন। পরবর্তীতে ২০১৬ সালের ১৯ ডিসেম্বর নিজ পরিবারের সাথে দেখা করতে কায়রো গমন করলে সরকারি নিরাপত্তারক্ষীরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৫ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে আটকে রেখে পরে ছেড়ে দেয়।

মিশরীয় নিরাপত্তা বাহিনীরা শেষমেশ মাহমুদ হুসাইনকে তার বাসা থেকে আটক করে নিয়ে গিয়েছিল এবং তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আরোপ না করেই নির্বিচারে আটকে রাখে তারা। এমনকি প্রতি ৪৫ দিন পর পর তার বন্দীর মেয়াদ বাড়িয়ে দিয়ে তার মৌলিক অধিকারও লঙ্ঘন করছে মিশর কর্তৃপক্ষ!

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img