রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

‘আওয়ামী লীগের ছেলের সঙ্গে বিএনপির বা অন্য দলের কারো বিয়ে চিন্তার বাইরে’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বর্তমানে আওয়ামী লীগের একজন ছেলের সঙ্গে বিএনপির বা অন্য দলের বিয়ের কথাও কেউ চিন্তা করতে পারছে না।

বুধবার মহান বিজয় দিবসের বিএনপির উদ্যোগে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন। সভায় লন্ডন থেকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে এই আলোচনায় বক্তব্য রাখেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘৪৯ বছর পরে গোটা জাতি আজকে বিভক্ত। বিভাজন এমন এক পর্যায় চলে গেছে শুধু রাজনৈতিক ক্ষেত্রে নয়, প্রশাসনিক ক্ষেত্রে, সামাজিক ক্ষেত্রে। এমনকি কেউ এখন আর আওয়ামী লীগের একজন ছেলের সঙ্গে বিএনপির বা অন্য দলের বিয়ের কথাও চিন্তা করতে পারছে না। দিজ ইজ দ্য রিয়ালিটি। আজকে সর্বক্ষেত্রে এখন আমরা এটা দেখছি। আজকে এদেশের মানুষের যে মূল্যবোধগুলো, যে চিন্তাগুলো, যে ধর্মবিশ্বাস, তাদের সমাজ বিশ্বাস, তাদের সংস্কৃতি বিশ্বাস সমস্ত বিশ্বাসগুলোকে পদদলিত করা হচ্ছে এবং সেটা রুট একটা শক্তি দিয়ে করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, আজকে একদলীয় শাসনব্যবস্থার যে ছদ্মবেশ, এই ছদ্মবেশ থেকে দেশকে বের করে আনতে হলে, জনগণের অধিকারকে প্রতিষ্ঠা করতে হলে আমাদের কোনো বিকল্প নেই। আজকে আমাদের যে নেতা, যার দিকে গোটা জাতি তাকিয়ে আছে পরিবর্তনের জন্যে। তার নেতৃত্বে আমাদেরকে দেশের জনগণকে জাগিয়ে তুলতে হবে। এটা অত্যন্ত জরুরি।

‘জনগণকে জাগিয়ে তুলতে না পারলে কোনদিন কোন আন্দোলনই সফল হয় না। তাদের জাগরণের মধ্য দিয়েই অতীতে বাংলাদেশের সমস্ত বিজয় আমরা অর্জন করেছি। আমরা বিশ্বাস করি সেই জাগরণের মধ্য দিয়ে আমরা আমাদের পরিবর্তন নিয়ে আসতে পারবো।’

সম্প্রতি প্রশাসন ও বিচার বিভাগের বিচারকদের রাজপথে মানববন্ধনের অংশগ্রহণের বিষয়টি তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে দুর্ভাগ্য যখন আমরা দেখি প্রশাসনিক কর্মকর্তা; যাদের বেতন হয় জনগণের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে, সেটা সব ধরণের প্রশাসনের কথা বলছি আমি। তারা যখন রাজপথে বিভিন্ন জায়গায় একটা বিশেষ দলের পক্ষে সভা করেন, মিছিল করেন, কথা বলেন এবং জনগণকে ধমক দেন। এই যে জনগণকে ধমক দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করা, এটা আমরা জানি এটা পুরোপুরি স্বৈরতন্ত্র। সেই স্বৈরতন্ত্র বাংলাদেশে আছে। আজকে সেই ফ্যাসিবাদ বাংলাদেশে চেপে বসেছে। সেই ফ্যাসিবাদকে সরাতে হলে, স্বৈরতন্ত্রকে সরাতে হলে আন্দোলন ছাড়া অন্যকোনো বিকল্প নেই।

সরকার আদালতের মাধ্যমে সংবিধানকে নানাভাবে সংশোধন করার বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, এখন সংবিধান যেটা আছে, সেই সংবিধান পরিবর্তন করতে হবে যদি সত্যিকার অর্থে বাংলাদেশ একটা রাষ্ট্র আমরা নির্মাণ করতে চাই, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র আমরা নির্মাণ করতে চাই। তবে সেটাই হবে আমাদের সবচেয়ে বড় প্রয়োজন।

মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে ও দলের প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর সঞ্চালনায় সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. মঈন খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বক্তব্য রাখেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ থাকায় ভার্চুয়াল আলোচনায় যুক্ত থেকে আলোচকদের বক্তব্য শুনেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img