মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৬, ২০২১

রাশিয়ার মতো ভালো ভোট বাংলাদেশের পক্ষে সম্ভব নয়: সিইসি

এই মুহূর্তে রাশিয়ার মতো ভালো ভোট অনুষ্ঠান বাংলাদেশের পক্ষে সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশন (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা।

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে রাশিয়ার মতো ভোট অনুষ্ঠান বাংলাদেশের পক্ষে সম্ভব নয়।

বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সম্প্রতি রাশিয়ার জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ ও তার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে এ মন্তব্য করেন তিনি।

সিইসি বলেন, রাশিয়ার নির্বাচন ব্যবস্থা ভালো। আমাদের থেকে তাদের পার্থক্য হলো—সেখানে আমাদের মতো রাস্তাঘাটে ব্যানার, ফেস্টুন বা দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার নেই। নির্বাচন কেন্দ্রের বাইরে আমাদের এখানে প্রার্থী বা তার সমর্থকরা প্রচারণা চালান, রাশিয়ায় সেই সুযোগ নেই। সেটা করা হয় না। সে দেশে নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণা মূলত অনলাইনভিত্তিক বেশি হয়। ডিজিটাল সিস্টেম অত্যন্ত উঁচুমানের।

সিইসি বলেন, রাশিয়া ভোটার ব্যবস্থাপনাটি ডিজিটালাইজড করে ফেলেছে। তাদের প্রায় ৯৮ হাজার লোকেশন। এসব কেন্দ্র তারা সিসিটিভির আওতায় নিয়ে এসেছে। তারা কেন্দ্রীয়ভাবে সব দেখতে পারে। বড় হলঘরের চারপাশের দেয়ালে টানানো আছে সিসিটিভির স্ক্রিন। কোন কোন এলাকায় কখন কী ঘটে, সব তারা দেখতে পারেন। প্রত্যেকটির সঙ্গে তাদের লিংক আছে। কত ভোট কাউন্ট হয় সেটাও তারা দেখতে পারেন। প্রত্যেক মিনিটে মিনিটে তারা এটা মনিটর করতে পারে। সেই ব্যবস্থা আছে। সাংবাদিকরাও সেটা মনিটর করেন। টাইম টু টাইম নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধিরা গণমাধ্যমকে ব্রিফ করেন। প্রধান নির্বাচন কমিশনারও সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছেন।

কে এম হুদা বলেন, ১৭ থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন দিন তাদের ভোট হয়েছে। এই তিন দিনের মধ্যে কে কোন দিন তারা ভোট দিতে পারবেন, এটা ডিস্ট্রিবিউশন করে দেওয়া হয়েছে। ভোটকেন্দ্রে তাদের ভোটার বাক্স তিন দিন সংরক্ষিত থাকে। সেন্টারগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভালো। কোনও অভিযোগ ছিল না যে ভোটকেন্দ্রে ব্যালট বাক্স অসুবিধা করেছে।

তিনি জানান, রাশিয়ায় ইভিএম পদ্ধতি নেই। তারা পাসপোর্ট দেখে ভোটার শনাক্ত করে। পরে একটা ব্যালট পেপার দেয়, ভোটর সেটা বাক্সে রাখেন। ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে সেটা ভেতরে ঢুকে যায়। কতজন ভোট দিলো সেটা সঙ্গে সঙ্গে মনিটরে দেখা যায়। ভোট গণনা হয় হাতে হাতে, বাই হ্যান্ড। ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তি, সরকারি কর্মকর্তা, যারা ভোটকেন্দ্রের বাইরে থাকেন, তাদের অনলাইনে ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। অ্যাপ ব্যবহার করে তারা যেকোনও জায়গায় বসে ভোট দিতে পারেন।

সিইসি জানান, নির্বাচন দেখতে ৪৯টি দেশের প্রায় আড়াই’শ পর্যবেক্ষক ছিল। ভোট হওয়ার পর ২০ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের সঙ্গে গণমাধ্যমের মিটিং হয়। সেখানে পর্যবেক্ষকদের নির্বাচন সম্পর্কে মতামত জানতে চাওয়া হয়েছিল। আমিও মতামত প্রকাশ করি। বলেছি, তাদের দেশের ডিজিটাল সিস্টেমটা আমার ভালো লেগেছে। এটা স্বচ্ছতার সঙ্গে অনুধাবন করা যায়। কোনও রকমের বিষয় আমাদের চোখে আসেনি।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img