বুধবার, অক্টোবর ২৭, ২০২১

বিদেশে অপপ্রচার চালাতে লবিস্ট নিয়োগ করেছে বিএনপি-জামায়াত: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষের সমর্থন না পেয়ে বিএনপি-জামায়াতের কিছু অংশ বিদেশে লবিস্ট নিয়োগ করেছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ অপপ্রচারের উদ্দেশ্যে। কিন্তু এমন অপতৎপরতায় ওরা অতীতেও সফল হয়নি, ভবিষ্যতেও হতে পারবে না। বর্তমানেও সম্ভব হচ্ছে না। কারণ, আমরা সত্যিকার অর্থেই বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে আরো উন্নত এবং মানবাধিকার পরিস্থিতিকে আরো ভালো করার জন্য জাতিসংঘের যত আইন-কানুন রয়েছে সেগুলো মেনেই কাজ করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় নিউইয়র্কে প্রেস ব্রিফিংকালে বাংলাদেশ প্রতিদিনের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ওদের অপতৎপরতাকে আমরা কখনোই সফল হতে দেব না। কারণ, এমন জঘন্য অপপ্রচারণার বিরুদ্ধে যথেষ্ঠ তথ্য, উপাত্ত, ডিফেন্স অমাদের কাছে আছে। আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বন্ধু রাষ্ট্রসমূহের সাথে আলোচনার ভিত্তিতে, তাদের মতামতের ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশকে আরো সুপ্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হবো।

সম্প্রতি বিএনপি-জামায়াতের চেষ্টায় মার্কিন কংগ্রেসে বাংলাদেশে গুম-খুন এবং বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে এক আলোচনার সময় জাতিসংঘে শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশকে নিষিদ্ধ এবং র‌্যাব ভেঙে দিতে আবেদন জানায়। এমন অপতৎপরতার পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের অবস্থান কি এবং জাতিসংঘ সদর দফতর কিংবা জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের কেউ কোনো মতামত ব্যক্ত করেছেন কিনা জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম আরো বলেন, অতি সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেন জেনেভাস্থ জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের প্রধানের সাথে বৈঠক করেছেন। যুক্তরাজ্য এবং নেদারল্যান্ডস কর্মকর্তাগণের সাথেও হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশে নানা ইস্যুতে তার কথা হয়েছে। কেউই উপরোক্ত ইস্যুতে কিছু বলেননি। অধিকন্তু আইনের শাসন ও মানবাধিকারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেছেন। শুধু তাই নয়, দুদিন আগেই শান্তিরক্ষা মিশনের বাংলাদেশি ১১০ জনকে পুরষ্কৃত করা হয়েছে কৃতিত্বপূর্ণ দায়িত্বের জন্যে।

প্রধানমন্ত্রীর জাতিসংঘ সফরের আলোকে দৈনন্দিন প্রেস ব্রিফিংয়ের অংশ হিসেবে লটে নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলে বাংলাদেশ মিশনের কন্ট্রোল রুমের এ অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেন বিভিন্ন ইস্যুতে কথা বলেছেন। পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারি এহসানুল করিম হেলাল এবং বাংলাদেশ মিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি (প্রেস) নূরএলাহী মিনাও সেখানে ছিলেন।

প্রতিমন্ত্রী এ সময় উল্লেখ করেন, অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে ৭১ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দেবে। সামনের মাসে কোভ্যাক্স থেকে পাবো ১৮ লাখ ডোজ টিকা। তাই করোনার টিকা নিয়ে এখন আর তেমন উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নেই বাংলাদেশের।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img