বুধবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২২

পাকিস্তানের সঙ্গে তুলনা করায় রাহুল গান্ধীর তীব্র সমালোচনা বিজেপির

ভারতের প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি রাহুল গান্ধী এবং সিনিয়র নেতা শশী থারুরের সাম্প্রতিক মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তীব্র সমালোচনা করেছেন হিন্দুত্ববাদী বিজেপি’র সর্বভারতীয় মুখপাত্র সম্বিত পাত্র।

রাহুল গান্ধী সম্প্রতি আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (আইএমএফ) রিপোর্ট তুলে ধরে বলেছিলেন, আর্থিক বৃদ্ধির হার-এ পাকিস্তান এ বছর ভারতের থেকে এগিয়ে থাকবে। পাকিস্তান কোভিড নিয়ন্ত্রণে তুলনামূলকভাবে ভালো কাজ করেছে। আইএমএফ রিপোর্টকে কেন্দ্র করে রাহুল গান্ধী কেন্দ্রীয় সরকারকে কটাক্ষ করে বলেন, এটি বিজেপি সরকারের আরও এক অন্যতম মহৎ কর্ম! এমনকি পাকিস্তান ও আফগানিস্তান কোভিডকে ভারতের চেয়ে অনেক ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে।

অন্যদিকে, লাহোর সাহিত্য উৎসবে ভার্চুয়াল সভায় কংগ্রেস নেতা শশী থারুর এমপি বলেছেন, ‘ভারত সরকার এখনও এর গুরুত্বটা বুঝল না। রাহুল গান্ধী গত ফেব্রুয়ারিতেই সতর্ক করেছিলেন, এই মহামারীর জন্য প্রস্তুত না হলে দেশে অর্থনৈতিক বিপর্যয় নেমে আসবে। রাহুলের এ জন্য প্রশংসা প্রাপ্য।’

শশী থারুর আরও বলেন, এই মহামারীর কারণে, আমাদের দেশে মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ সৃষ্টি হচ্ছে। কুসংস্কার সৃষ্টি হচ্ছে। আমাদের এ সবের বিরুদ্ধে লড়তে হচ্ছে। তিনি বলেন, তাবলিগ জামাতের সমাবেশকে দেশের দুর্দশার একমাত্র কারণ হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা হয়েছে। কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্পের অনুষ্ঠান নিয়ে সেভাবে কিছুই বলা হয়নি। আসলে এই মহামারীতে দেশে মুসলিম বিদ্বেষ আরও বাড়ছে।

কংগ্রেসের দুই শীর্ষ নেতার এমন মন্তব্যে বেজায় চটেছে ভারতে ক্ষমতাসীন হিন্দুত্ববাদী বিজেপি নেতৃত্ব। রোববার (১৭ অক্টোবর) কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি রাহুল গান্ধী ও শশী থারুরকে কটাক্ষ করে বিজেপি মুখপাত্র সম্বিত পাত্র বলেন, ‘রাহুল গান্ধী কী পাকিস্তান থেকে নির্বাচনে লড়বেন? রাহুল গান্ধীর নাম এখন থেকে ‘রাহুল লাহোরী’ হল। আজ থেকে আমি রাহুল গান্ধীকে রাহুল লাহোরী বলব। শশী থারুর ওর হয়েই লাহোরে জনসভা করছেন। উনি দেশের অপমান করছেন!’

বিজেপি মুখপাত্র সম্বিত পাত্র’র পাল্টা জবাবে রাজস্থানের কংগ্রেস নেতা শচীন পাইলট, রাহুলের পক্ষে মুখ খুলে বলেন, ‘এর পরিবর্তে জিন্নাহর কবরস্থানে গিয়ে তার গুণগান করার জন্য এলকে আদবানী, লাহোর বাসযাত্রা করে জেনারেল মুশারফকে আগ্রায় আমন্ত্রণ জানানোর জন্য অটলবিহারী বাজপেয়ী এবং নওয়াজ শরীফের নাতনির বিয়েতে উপহার নিয়ে যাওয়ার জন্য মি. মোদীর জন্যও তাহলে নতুন নাম ঠিক হোক।’

এভাবে কংগ্রেস ও বিজেপি নেতাদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি বাকযুদ্ধ ভারতের বিহারে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বিধানসভা নির্বাচনের ফলে প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img