রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১

বলৎকারে বাধা দেয়ায় শিশু তামিমকে হত্যা ওবাই

খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার লাখোহাটি গ্রামে শিশু তামিম মোল্লাকে (৭) হত্যার প্রায় ৯ মাস পর খুনী গ্রেফতার হয়েছে। উদঘাটিত হয়েছে হত্যা রহস্য। বলাৎকারে বাধা দেয়ায় শিশুটিকে পানিতে চুবিয়ে হত্যা করে একই গ্রামের ওবাইদুল্লাহ ওরফে ওবাই (২৫)।

হত্যার পর জামা-কাপড় দিয়ে হাত-পা বেধে লাশ বিলের মধ্যে ফেলে দেয় সে। আটক ওবাইদুল্লাহ ওরফে ওবাই শেখ দিঘলিয়া উপজেলার লাখোহাটি গ্রামের আসলাম শেখের ছেলে। অন্যদিকে শিশু তামিম একই গ্রামের তরিকুল মোল্লার ছেলে। হত্যা রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) খুলনা।

আজ বুধবার হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে খুলনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সাইফুজ্জামান এর আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন ওবাই শেখ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পিবিআই খুলনার পরিদর্শক আবদুল্লাহ আল মামুন বিশ্বাস জানান, গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকালে শিশু তামিম মোল্লা মাদ্রাসায় যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়। রাত সাড়ে ৮টায় তামিম ফিরে না আসায় তামিমের পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি ও মাইকিং করে। পরের দিন ২৬ ফেব্রুয়ারি লাখোহাটি গ্রামের গোয়ালাবাদ বিলের ভেতর হাত পা বাধা অবস্থায় তামিমের লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় তামিমের মা জাহানারা বেগম কলি বাদি হয়ে থানায় মামলা করেন। দিঘলিয়া থানা পুলিশ ওই সময় দুইজনকে আটক করলেও হত্যা রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি। থানা পুলিশের তদন্তে অগ্রগতি না হওয়ায় বাদির আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন।

তিনি আরো জানান, পিবিআই দায়িত্ব পাওয়ার পর অনুসন্ধান চালিয়ে ওবায়দুল্লাহ ওরফে ওবাইকে গত ১৬ নভেম্বর বিকালে লাখোহাটি গ্রাম থেকে আটক করে। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে ওবাই শেখ জানিয়েছে, ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকালে এলাকায় ওবাই ও শিশুরা স্কুল মাঠে ফুটবল খেলছিলো। খেলার এক পর্যায়ে একজন ঢিল ছুড়লে ওবাই তাকে ধরতে বিলের দিকে দৌড় দেয়। শিশু তামিমও তার পিছু পিছু যায়। সেখানে গিয়ে ওবাই শেখ তামিমকে বলৎকারের চেষ্টা চালায়। তামিম চিৎকার করলে ওবাই শেখ বিলের মধ্যে তামিমকে পানিতে চুবিয়ে হত্যা করে। পরে মরদেহের মুখের মধ্যে কলাপাতা ঢুকিয়ে গায়ে থাকা কাপড় দিয়ে পেচিয়ে ডোবায় ফেলে দেয়।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img