মঙ্গলবার, জুন ২৮, ২০২২

বাংলাদেশে হিন্দু জনসংখ্যা কি কমেছে?

বাংলাদেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জনসংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে বলে একটা মহল অভিযোগ করে থাকে। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম আদমশুমারি হয় ১৯৭৪ সালে। সেই আদমশুমারিতে হিন্দু জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ছিলো ৯৬ লাখ ৭৩ হাজার। আর সর্বশেষ ২০১১ সালের আদমশুমারিতে হিন্দুদের সংখ্যা দাড়ায় ১ কোটি ২৩ লাখে।

পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের অধীনে বিবিএস বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস প্রকাশ করে। তাদের ২০১৮ সালের প্রদিবেদন অনুযায়ী হিসেব করলে দেখা যায় বাংলাদেশে হিন্দু জনগোষ্ঠী ১ কোটি ৭৪ লাখ।

সংখ্যার হিসেবে ১৯৭৪ সাল থেকে ২০১৮ সালে এসে বাংলাদেশে হিন্দু জনগোষ্ঠী বেড়েছে ৮২ লাখের বেশি। সংখায় প্রায় দ্বিগুণ হলেও তাহলে কেন বলা হয় যে, বাংলাদেশে হিন্দু জনসংখ্যা কমে যাচ্ছে? এ জায়গায় যুক্তি হিসেবে দেখানো হয় শতাংশের হারকে।

কারণ সংখায় প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গেলেও শতাংশের হারে বাংলাদেশে হিন্দু জনগোষ্ঠীর সংখ্যা কমেছে। ১৯৭৪ সালের আদমশুমারিতে মুসলিম ৮৫.৪ আর হিন্দু ১৩.৫ ভাগ৷ আর ২০১১ সালের আদমশুমারিতে মুসলিম ৯০.৪ আর হিন্দু ৮.৫ ভাগ।

বাংলাদেশে সবশেষ পঞ্চম আদমশুমারি হয়েছে ২০১১ সালে। ষষ্ঠ আদমশুমারিতে বিস্তারিত জানা যাবে জনসংখ্যার হার।

তবে আদমশুমারি ছাড়াও প্রতিবছর পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের অধীনে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো প্রতিবেদন প্রকাশ করে৷ ২০১৮ সালের প্রদিবেদনে বলা হয় বাংলাদেশের মুসলিম জনগোষ্ঠী মোট জনসংখ্যার ৮৮.৪ ভাগ। অন্যদিকে হিন্দু এবং অন্য ধর্মাবলম্বী ১১.৬ ভাগ। এখানে হিন্দুদের শতকরা হার আলাদাভাবে দেওয়া হয়নি। এই হিসেবে দেখা যায় ২০১১ সালের পর শতকরা হিসেবে মুসলিম জনগোষ্ঠী কমেছে। হিন্দুসহ অন্যান্য ধর্মবলম্বী জনগোষ্ঠী শতকরা হিসেবে বেড়েছে৷ বৌদ্ধ ও খিস্ট্রান ধর্মের অনুসারি একই থাকায় হিসেব করে বলা যায় হিন্দু এখন মোট জনগোষ্ঠীর ১০.৫৯ ভাগ৷

বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যা যদি ১৬ কোটি ৪৬ লাখ হয় সেই হিসেবে হিন্দু জনগোষ্ঠী সংখ্যা ১ কোটি ৭৪ লাখ।

সমালোচকদের যুক্তি ১৯৭৪ সালের অনুপাতে যদি হিন্দু জনগোষ্ঠী ১৩.৫ ভাগ থাকত, তাহলে ২০১১ সালে তাদের সংখ্যা ২ কোটির বেশি হতো।

শতাংশের হারে কেন কমলো হিন্দু জনগোষ্ঠী?

দেশে হিন্দু জনসংখ্যা নিয়ে গবেষণা করেছেন ৩ সদস্যের বাংলাদেশের গবেষক দল। প্রধান গবেষক মো. মঈনুদ্দীন হায়দার আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশে (আইসিডিডিআরবি) কর্মরত। মিজানুর রহমান যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলাইনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যারোলাইনা পপুলেশন সেন্টারের গবেষক। নাহিদ কামাল পপডেভ কনসালট্যান্সি লিমিটেড নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গবেষক। তাঁদের লেখা ‘হিন্দু পপুলেশন গ্রোথ ইন বাংলাদেশ: আ ডেমোগ্রাফিক পাজেল’ নামের গবেষণা প্রবন্ধ ২০১৯ সালে নেদারল্যান্ডস থেকে প্রকাশিত জার্নাল অব রিলিজিয়ন অ্যান্ড ডেমোগ্রাফিতে ছাপা হয়। তাতে গবেষকেরা চাঁদপুর জেলার মতলব এলাকায় ১৯৮৯ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত মুসলমান ও হিন্দু জনগোষ্ঠীর প্রজনন হার, মৃত্যুহার ও আন্তর্জাতিক অভিবাসনের তুলনামূলক চিত্র তুলে এনেছেন।

গবেষকেরা দেখেছেন, ১৯৮৯ থেকে ২০০৪ সালের মধ্যে মতলবের ৫ হাজার হিন্দু দেশত্যাগ করেছেন; তাঁদের ৮৯ শতাংশ গেছেন ভারতে। অন্যদিকে ২০০৫ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে ১ হাজার ৯৩৭ জন দেশত্যাগ করেছেন; তাঁদের ৩১ শতাংশ গেছেন ভারতে, ৪৫ শতাংশ মধ্যপ্রাচ্যে এবং বাকি ২৪ শতাংশ গেছেন ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলোতে। অন্যদিকে ১৯৮৯ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত মতলবের ২০ হাজার ১৭৫ জন মুসলমান দেশ ছেড়েছেন। তাঁদের ৬২ শতাংশের বেশি গেছেন মধ্যপ্রাচ্যে। গবেষকেরা বলছেন, মুসলমানদের তুলনায় হিন্দুদের দেশ ছাড়ার প্রবণতা বেশি।

ওই সময়কালে দেখা গেছে, প্রতি হাজার জনসংখ্যায় হিন্দু জনগোষ্ঠী বৃদ্ধির হার মুসলমানের চেয়ে ২ পয়েন্ট কম। তিন বছরে একজন মুসলমান নারীর সন্তান জন্ম দেওয়ার সম্ভাবনা যেখানে ৩৫ শতাংশ, হিন্দু নারীদের মধ্যে তা ৩২ শতাংশ।

গবেষণায় দেখা গেছে, হিন্দুদের মধ্যে জন্মনিয়ন্ত্রণের সামগ্রী ব্যবহারের হার বেশি। তাঁদের মধ্যে গর্ভপাত করানোর হারও বেশি। দুটির পর আর সন্তান নিতে না চাওয়া নারীর হার হিন্দুদের মধ্যে বেশি। মুসলমানদের মধ্যে কম বয়সে বিয়ের প্রবণতা বেশি। এ ধরনের আরও কিছু সূচক বিশ্লেষণ করে গবেষকেরা বলছেন, হিন্দুদের প্রজনন হার তুলনামূলকভাবে কিছুটা কম।

হিন্দুদের মধ্যে মৃত্যুহারও সামান্য বেশি। গবেষকেরা তথ্য বিশ্লেষণ করে বলছেন, মতলবে প্রতি ১০ হাজার জনের মধ্যে মুসলমানদের চেয়ে হিন্দুদের ৪টি মৃত্যু বেশি।

উপসংহারে গবেষকেরা বলছেন, ১৯৮৯ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে হিন্দুদের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার মুসলমানদের তুলনায় যতটুকু কম ছিল, তার ৫৪ শতাংশ আন্তর্জাতিক অভিবাসন বা দেশ ছাড়ার কারণে, ৪১ শতাংশ প্রজনন হার কম হওয়ার জন্য এবং বাকি ৫ শতাংশ মৃত্যুহার বেশি হওয়ার কারণে। তাঁরা আরও বলছেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অভিবাসনের চেয়ে প্রজননের হারই বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

শতাংশের হিসেবে হিন্দু জনগোষ্ঠীর হার শুধু বাংলাদেশে নয়, ভারতেও কমেছে। ভারতের প্রথম আদমশুমারি হয় ১৯৫১ সালে। তখন হিন্দু জনগোষ্ঠী ছিলো ৮৪.১ শতাংশ। আর মুসলিম জনগোষ্ঠী ছিলো ৯.৮ শতাংশ।

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী হিন্দু জনগোষ্ঠী ছিলো ৭৯.৮ শতাংশ এবং মুসলিম ১৪.২৩ শতাংশ।

এ বিষয়ে ইনসাফের সাথে আলাপ হয় ইসলামী রাজনীতির বিশ্লেষক শেখ ফজলুল করীম মারুফের সাথে।

তিনি বলেন, ”হিন্দুদের দেশত্যাগের প্রবনতা শতাব্দি প্রাচীন। এখানে অবশ্য ঐতিহাসিক কিছু কারণ আছে। পূর্ববাংলায় ক্রমান্বয়ে মুসলমানদের সংখ্যা বাড়ছিলো। এবং ১৯ শতকের গোড়াতেই বাংলার দুই অংশের ধর্ম দৃশ্যমানভাবে আলাদা হয়ে যায়। পূর্ববাংলা মুসলিম প্রধান আর পশ্চিম বাংলা হিন্দু প্রধান। হিন্দুধর্ম আর ইসলামের সাংস্কৃতিক পার্থক্যও অনেক বেশি। ইসলাম মুর্তিপুজার কঠোর বিরোধী, হিন্দু ধর্ম মুর্তিপুজা নির্ভর। ইসলাম একাত্ববাদী ধর্ম, হিন্দু বহুত্ববাদী ধর্ম। আজানের মাধ্যমে প্রতিদিন ৫ বার করে ইসলামের প্রকাশ ঘটে, ইসলামের দুইটা উৎসবের একটা তথা কোরবানীর ঈদ হিন্দুদের দৃষ্টিতে গো মাতা হত্যার উৎসব। ফলে মুসলিম প্রধান দেশে হিন্দুদের সাচ্ছন্দবোধ করাটা মনস্ততাত্ত্বিকভাবেই কঠিন। এটা তাদের দেশত্যাগে উৎসাহিত করেছে। বিশেষত পাশেই ভারতের মতো হিন্দু প্রধান দেশ থাকাতে এর মাত্রা বেড়েছে। এর সাথে পাকিস্তান-ভারতের জন্ম ইতিহাস একটা প্রভাব তৈরি করেছে।”

দেশের সুশীল সমাজের একটা বড় অংশ হিন্দুদের দেশ ত্যাগের পিছনে প্রধান কারণ হিসেবে সাম্প্রদায়িক হামলা ও তাদের সম্পত্তি দখলকে দায়ী মনে করেন। এ বিষয়ে শেখ ফজলুল করীম মারুফ বলেন, ”হিন্দুদের দেশত্যাগের পেছনে যারা সাম্প্রদায়িক তত্ত্ব খোঁজে তারা মতলববাজ। কারণ বাংলাদেশে সেই অর্থ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয় নাই। যা কিছু হানাহানি হয়েছে তা রাষ্ট্রের ব্যর্থতা ও অপরাজনীতি। হিসেব করলে দেখা যাবে প্রতিবছর যত মানুষ নির্জাতন ও নিপিড়নের শিকার তার বড় একটা অংশই মুসলমান। বরং শতকরা হিসেবে হিন্দুরা তাদের মুল জনসংখ্যার অনুপাতের তুলনায় কম নিপিড়নের শিকার হন। এবং যতটুক হন তাও ধর্মের কারণে না বরং রাজনৈতিক কারণে। বাংলাদেশের সরকারী চাকুরী ও গড় আর্থিক অবস্থা বিবেচনায় হিন্দুরা তাদের জনসংখ্যার অনুপাতে ভালো অবস্থানে আছেন। ফলে নিরাপত্তাহীনতা, নিপিড়নের ভয়ে তারা দেশ ছাড়ছেন এই তত্ত্ব অমূলক। তবে হ্যা! কিছু ক্ষেত্রে তা হতেও পারে।”

শতাংশের হিসেবে মুসলিমদের তুলনায় হিন্দুরা পিছিয়ে থাকার বিষয়ে  শেখ ফজলুল করীম মারুফ বলেন, ”প্রজননহারের ব্যাপারটা খুবই পরিস্কার। সারা বিশ্বেই মুসলিমদের জন্মহার বেশি। এর কারণ মুলত ধর্মীয়। ইসলামের নবী বেশি বেশি সন্তান নেয়াকে উৎসাহিত করেছে। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশ হচ্ছে, “তোমরা প্রেমময়ী ও অধিক সন্তানপ্রসবা নারীকে বিয়ে কর। কেননা আমি তোমাদের সংখ্যাধিক্য নিয়ে অন্যান্য উম্মতের ওপর গর্ব করবো।” (সুনানে আবু দাউদ, ২০৫০)। পবিত্র কোরআনে স্পস্ট করে জন্মনিয়ন্ত্রনকে নিষেধ করেছে। এবং এটাকে হত্যাকাণ্ড বলে অবহিত করেছে। আল্লাহ বলেছেন, ‘’দারিদ্রতার ভয়ে তোমরা তোমাদের সন্তানকে হত্যা কর না। তাদেরকে এবং তোমাদেরকে আমিই খাদ্য প্রদান করে থাকি।নিশ্চয় তাদেরকে হত্যা করা মহাপাপ…’’(সূরা ইসরা, আয়াত-৩১) অন্যত্র তিনি বলেন,  “শয়তান তোমাদের অভাবের ওয়াদা দেয়।” (সূরা আল-বাক্বারা)। এবং স্থায়ী জন্মনিয়ন্ত্রণ করা ইসলামে সর্বসম্মতভাবে হারাম। (উমদাতুল ক্বারীঃ ১৪/১৪ পৃঃ)

আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর গবেষণাতেও দেখা গেছে সারা বিশ্বেই মুসলিমদের জন্মহার বেশি। এর প্রভাব বিশ্বব্যাপীই পড়ছে। পিউ রিচার্স সেন্টারের গবেষণা মতে, বর্তমানে বিশ্বের দ্রুত বর্ধনশীল ধর্ম ইসলাম। ২০১০ সালে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ২৩ শতাংশ ছিল মুসলিম। মুসলমানদের সংখ্যা বৃদ্ধির হার এভাবে চলতে থাকলে ২০৫০ সালে মুসলিম বৃদ্ধির হার গিয়ে দাঁড়াবে ৩০ শতাংশে। এর অর্থ ২০৫০ সালে মুসলিম ও খ্রিস্টানদের সংখ্যা হবে কাছাকাছি।

এবং এভাবে চলতে থাকলে ২০৭০ সালের মধ্যে খ্রিস্ট ধর্মকে ছাড়িয়ে ইসলাম ধর্ম বিশ্বের শীর্ষ ধর্ম হয়ে যাবে।

পিউ রিচার্স সেন্টারের গবেষণায় স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, মুসলিম বৃদ্ধির অর্থ খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীর সংখ্যা হ্রাস পাওয়া নয়। বরং মুসলিমদের উচ্চ জন্মহার ও সন্তান উৎপাদন সক্ষমতার জন্যই মুসলিম সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে পিউ জানিয়েছে।

বাংলাদেশেও মুসলিমদের অনুপাত হিন্দুদের তুলনায় বেশি হওয়ার পেছনে সাম্প্রদায়িক তত্ত্ব না বরং মুসলিমদের জন্মহার প্রভাব রাখছে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা।

এজন্য শতাংশের হিসেবে হিন্দুদের সংখ্যা কমলেও মুসলমানদের সংখ্যা বাড়ছে।

সূত্র : বিবিসি বাংলা, ডয়চে ভেলে ও প্রথম আলো
spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img