গোলান মালভূমিতে পম্পেওর সফরের কঠোর নিন্দা

জর্ডান নদীর পশ্চিম তীর ও অধিকৃত গোলান মালভূমিতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সফরের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে আরব লীগ ও সিরিয়া।

দামেস্ক ও আরব লীগ এ ঘটনাকে আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন বলে অভিহিত করেছে।

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড জবরদখল করে অবৈধ রাষ্ট্র ইসরায়েল প্রতিষ্ঠার পর থেকে গত সাত দশক ধরে সব মার্কিন সরকার তেল আবিবকে সর্বাত্মক পৃষ্ঠপোষকতা দিলেও এখন পর্যন্ত কোনও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী গোলান মালভূমি সফর করেননি।

বৃহস্পতিবার মাইক পম্পেও সেই ঐতিহ্য ভেঙে গোলান মালভূমি পরিদর্শন করেন এবং পথিমধ্যে নজিরবিহীনভাবে পশ্চিম তীরের একটি অবৈধ ইহুদি বসতিতে যাত্রাবিরতি করেন।

ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ সংগঠনগুলিও এ সফরের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। আরব লীগ বৃহস্পতিবার এক বিবৃতি প্রকাশ করে বলেছে, অধিকৃত পশ্চিম তীর ও গোলান মালভূমিতে পম্পেওর সফর সব ধরনের আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন।

ফিলিস্তিনি কর্মকর্তা হানান আশরাওয়ি বলেছেন, একটি অবৈধ নজির স্থাপনের লক্ষ্যে পম্পেও এ সফর করেছেন।

তিনি আরো বলেন, পম্পেও ইসরায়েলের হাতে চুরি হওয়া ফিলিস্তিনি ভূমিতে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করেছেন এবং এর মাধ্যমে ফিলিস্তিন সংকট সমাধানের প্রক্রিয়াকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছেন।

এদিকে সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও ইসরায়েল-অধিকৃত গোলান মালভূমিতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

ওই মন্ত্রণালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা বলেছেন, “ট্রাম্প প্রশাসনের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে পম্পেও মধ্যপ্রাচ্যে একটি উসকানিমূলক পদক্ষেপ নিলেন যা সিরিয়ার সার্বভৌমত্বের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।”

ইসরায়েল ১৯৬৭ সালের আরব-ইসরাইল যুদ্ধে সিরিয়ার গোলান মালভূমির একাংশ দখল করে নেয় যা আজও আন্তর্জাতিক আইনে দখলীকৃত ভূমি হিসেবে চিহ্নিত। জাতিসংঘ এখন পর্যন্ত এই দখলদারিত্বকে স্বীকৃতি দেয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *