ক্যাম্পে অনুমতি ছাড়া মাদরাসা করায় ৫ রোহিঙ্গাকে কারাগারে দিল আদালত

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অনুমতি ছাড়া মাদরাসা নির্মাণ করায় পাঁচ রোহিঙ্গাকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই ঘটনায় এক বাংলাদেশিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৭ দিনের দণ্ড দেয়া হয়েছে।

শনিবার (১৭ অক্টোবর) বিকেলে উখিয়ার শফিউল্লাহকাটা রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে অভিযান চালিয়ে তাদের এই দণ্ড দেওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেছেন ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক (পুলিশ সুপার) মুহাম্মাদ হেমায়েতুর রহমান।

সাজাপ্রাপ্ত পাঁচ রোহিঙ্গা হলেন, শফিউল্লাহ কাটা ১৬ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের বি/১ ব্লকের আব্দুল কাশিমের ছেলে আব্দুর রহমান (৪৮), বি/২ ব্লকের মুহাম্মাদ আমিনের ছেলে সামিম উল্লাহ (২৫), সি/২ ব্লকের আব্দুস সালামের ছেলে হাবিব উল্লাহ (২২), মুহাম্মাদ কাউছারের ছেলে আব্দুর শুক্কুর (২৭) ও শফিউল্লাহ কাটা ১৫ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের এ/১ ব্লকের মুহাম্মাদ হালিমের ছেলে মুহাম্মাদ হাসান (৪৭)। তাদের সঙ্গে সংযুক্ত বাংলাদেশি নাগরিকের নাম নূরুল আমিন। তবে তার বিস্তারিত পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ।

১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক জানান, উখিয়ার শফিউল্লাহ কাটা ১৬ নম্বর রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে সিআইসি কার্যালয়ের পেছনে বি/১ ব্লকে স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া মাদরাসার স্থাপনা নির্মাণের খবর আসে শনিবার বিকেলে। এপিবিএনের একটি দল অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পাঁচ রোহিঙ্গা ও এক বাংলাদেশিকে আটক করে তাদের সিআইসি কার্যালয়ে নেয়। কর্মরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পাঁচ রোহিঙ্গাকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং এক বাংলাদেশি নাগরিককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

পাঁচ রোহিঙ্গাকে কক্সবাজার জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে এবং অর্থদণ্ড পাওয়া বাংলাদেশি নাগরিক জরিমানা পরিশোধ করায় মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *