বৃহস্পতিবার, মার্চ ৪, ২০২১

দক্ষিণ এশিয়ায় আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদে মদদ দিচ্ছে ভারত

ইনসাফ | নাহিয়ান হাসান

আঞ্চলিক পর্যায়ে উগ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকারের ভারত যে ভয়ংকর অসাধু কার্যকলাপ পরিচালনা করে আসছে, পাকিস্তান তার গোমর ফাঁস করে দেওয়ায় এবার ভারতে হিন্দুদের দীপাবলি উৎসব পালন করা হয়েছে খুবই সাদামাটাভাবে।

১৩ নভেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে ভারতের আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদের ভয়ংকর কর্মকাণ্ডের বিবরণ সম্বলিত একটি নথি প্রকাশ করে পাকিস্তান।

নথিতে, আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ভারতের বিরুদ্ধে শক্তপোক্ত প্রমাণ উপস্থাপন করে বলা হয়, সর্বজন স্বীকৃত ইউএনসিসি কর্তৃক চিহ্নিত কাশ্মীরের আন্তর্জাতিক বিরোধ জিইয়ে রাখতে ও চীন-পাকিস্তানের অর্থনৈতিক অঞ্চল সিপিইসি এবং বেইজিং এর বেল্ট এন্ড রোড ইনিশিয়েটিভ বিআরআই নামে বিশাল প্রকল্প ভন্ডুল করা সহ আরো বিভিন্ন ইস্যুতে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো প্রক্সি যুদ্ধের প্রধান হাতিয়ার হিসেবে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোকে মদদ দিয়ে আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদ চালিয়ে যাচ্ছে।

এটা তো তেমন কিছুই নয় বরং, মূখ্য বিষয় হল, এবারের বিস্তারিত তথ্যপ্রমাণের পরিধি যা তাদের নিষ্ঠার আবরণ কতটুকু খাঁটি তা প্রমাণ করে ছেড়েছে!

ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের শক্তিশালী মামলা:

পাকিস্তানের বক্তব্য অনুযায়ী,ভারতীয় কূটনৈতিক সুবিধাদিকে জলসীমাবিহীন আফগানের বিভিন্ন সন্ত্রাসী সংগঠনকে সশস্ত্র প্রশিক্ষণ দেওয়ার পাশাপাশি বালুচ এবং পশতুন বিদ্রোহীদের একত্রিত করে পাকিস্তানে হামলার জন্য নিজেদের বিলিয়ে দিবে, আইএসআইএস (ISIS) এর এমন নতুন শাখার উৎপত্তির জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে।

আঞ্চলিক অস্থিতিশীল কার্যক্রমের মূল হোতা যে ভারত তা সুস্পষ্টভাবে প্রকাশার্থে ইসলামাবাদ, অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারীদের নাম, ব্যাংক একাউন্ট, পরিচয় সনাক্তকরণ তথ্য ও বিভিন্ন দুষ্কৃতকারীদের সাথে আঁতাতের তারিখও নথিতে প্রকাশ করে দেয় এবং বলে, ভারতের দুর্বৃত্তি আন্তর্জাতিক ভাবে তদন্ত করা উচিত। তাছাড়া, আন্তর্জাতিক তদন্তের ফলে ফিন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (FATF) সহ তৎসংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থাগুলোর মাধ্যমে রাষ্ট্রীয়ভাবে সন্ত্রাসবাদের অনুমোদনের ব্যাপারে দেশটির যোগসাজশের বিষয়টিও বেরিয়ে আসতে পারে।

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় চুপ কেনো?

পাকিস্তানের কূটনৈতিক মাস্টারস্ট্রোক ভারতকে খুবই বেকায়দায় ফেলে দিয়েছে। কারণ, ইসলামাবাদ কর্তৃক প্রকাশিত নথিগুলোতে ভারতের যে ধরনের সন্ত্রাসবাদের প্রমাণ রয়েছে ঠিক তেমনটাই এতদিন যাবত ভারতের বিরুদ্ধে দাবী করে আসছিল পাকিস্তান। এর উল্টোটি কখনোই করেনি তারা।

ইসলামাবাদ কর্তৃক ভারতের সন্ত্রাসবাদের দলিল সম্বলিত নথি প্রকাশ বা ফাঁসের প্রথম ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নিরবতার দ্বারা এটাই বুঝা গিয়েছিল যে, তারা এই অভিযোগের ব্যাপারে খুবই বিব্রতবোধের স্বীকার এবং এই বিষয়টিকে তারা ঠিক কিভাবে নিবে বা সাড়া দিবে সেই বিষয়েও নিশ্চিত নয়!

তাছাড়া, আমেরিকা ও ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের মতো প্রভাবশালী রাষ্ট্রগুলোর সাথে ভারতের সামরিক ও অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব থাকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইহুদিবাদী ইসরাইলও প্রচণ্ড চাপে পরবে। কেনোনা, এমন একটি দেশের সাথে তাদের গলায় গলায় ভাব,অংশীদারিত্ব বা আঁতাত রয়েছে, যাদের বিরুদ্ধে আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদ বা দূর্বৃত্তায়নের শক্তপোক্ত দলিল রয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইহুদিবাদী ইসরাইল ও হিন্দুত্ববাদী ভারতের একই সময়ে একই সঙ্গে থাকাটা “পাখি ও তার পালক একই সাথে থাকে” প্রবাদের ন্যায়।

চীন-ভারত সম্পর্কের অপূরণীয় ক্ষতি:

হয়তো নিজ স্বার্থের দিকে লক্ষ্য করেই পুরো আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় কখনোই ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের অভিযোগের পাত্তা দেয়নি যতটা না তারা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের অপর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণ সম্বলিত অভিযোগের বিষয়ে দিয়েছে!

যাইহোক, এখন দেখার বিষয় এটাই যে, সাম্প্রতিক সময়ে চলমান চীন-ভারতের সর্বোচ্চ শীতল যুদ্ধ ও উত্তপ্ত লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল এলএসি সীমান্তের সংঘাত বিবেচনায় ভারতের অপকর্ম সম্বলিত পাকিস্তানের নথি ফাঁস, চীন-ভারত সম্পর্ককে কোনদিকে নিয়ে যায়।

পাকিস্তানে বিরুদ্ধে ভারতের হাইব্রিড ওয়ার অফ টেরর পাকিস্তান গণপ্রজাতন্ত্রের কৌশলগত স্বার্থ রক্ষার ক্ষেত্রে চরম হুমকি। কেনোনা তাদের লক্ষ্য হচ্ছে গিলগিট বালতিস্তান ও বালুচিস্তানে সিপিইসির উত্তর ও দক্ষিণ সীমান্তগুলোকে ক্রমান্বয়ে অস্থিতিশীল করে তোলা।

ভারতের অপকর্মের নথি ফাঁস করার জন্য এই সময়টিকে বেছে নেওয়ার পিছনে ভারত-পাকিস্তানের সাপেনেউলে সম্পর্ক মারাত্মক আকার ধারণ করা হতে পারে অন্যতম কারণ।

সামান্য ব্যাখ্যা স্বরূপ বলা যায়, গ্রীষ্মের সংঘাতে ভারত চীনের কাছে নাকানিচুবানি খাওয়ায় সম্মুখসমরের পরিবর্তে পাকিস্তানে সন্ত্রাসবাদে মদদ দিয়ে প্রক্সি ওয়ারকে আরো দ্বিগুণ জোরালো করে ভারত।

তাছাড়া, ইসলামাবাদ আগেই সতর্ক হয়ে গিয়েছিলো যে, নয়াদিল্লি নিকট ভবিষ্যতে তাদের সন্ত্রাসী প্রচেষ্টা আরো জোরদার করতে পারে। তাই, নথিফাঁসের মাধ্যমে ইসলামাবাদ চেয়েছে নয়াদিল্লিকে আগাম সংকেত দিয়ে চাপে ফেলতে, যাতে তাদের সন্ত্রাসবাদে মদদ দেওয়া প্রক্সি ওয়ার সহ অন্যান্য পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে যেনো দ্বিতীয় বার চিন্তা করে দেখে।

অবশ্য স্বল্প সময়ে ও অতি সহজে যে এসব তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহ ও একত্রিত করা হয়েছে, তা কিন্তু নয়। যদিও কাকতালীয়ভাবে পাকিস্তানের দিক বিবেচনা করলে তা অতি সহজে ও স্বল্প সময়ে হয়েছে বলে মনে হয়।

সবাই বলাবলি করছে, নথিফাঁস, পাকিস্তানের কূটনৈতিক সাফল্যের নতুন অর্জন এবং পাক কূটনীতির নতুন ধারা। ইসলামাবাদ প্রমাণসহ অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসের সাথে বিশ্বদরবারে ভারতের হাইব্রিড ওয়ার অফ টেরর উপস্থাপন করতে পেরেছে।

আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদ বিষয়ে ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের দাবী ও নথিগুলোকে চীন স্বাভাবিকভাবেই নিয়েছে বলে মনে হয়।

চীন-ভারতের সম্পর্ক আগের সৌহার্দপূর্ণ অবস্থানে কখনোই ফিরে যাওয়ার নয়। কেনোনা বেইজিং যদি সিপিইসি ইস্যুতে ভারতের প্রক্সি ওয়ার বা যুদ্ধের বিষয়টি আমেরিকা কর্তৃক ইতিবাচকভাবে নেওয়ার সম্ভাবনার বিষয়টি পর্যালোচনা করে, তবে তা [চীন-ভারত সম্পর্ক] একেবারেই শেষ হয়ে যাবে।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর।

Newsinsaf-march-2021-desknewse-05