মূর্তি-ভাস্কর্য স্থাপন নয়; আল্লাহর নাম খচিত স্মৃতি স্তম্ভ নির্মাণ করুন: চরমোনাই পীর

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী রেজাউল করীম (চরমোনাই পীর) বলেছেন, সরকার শরীয়াহ বিরোধী কোন আইন করবে না বলে নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষণা করে ক্ষমতায় এসে এখন নিজেই শরীয়াহ বিরোধী কর্মকান্ড করে যাচ্ছে। মূর্তি বা ভাস্কর্য ইসলামবিরোধী সংষ্কৃতি। শরীয়া বিরোধী ও হারাম কাজ। এখন শেখ মুজিবের নামে বিভিন্ন জায়গায় মূর্তি স্থাপনের যে উদ্যাগ নেয়া হয়েছে তা কোনভাবেই শরীয়াহ সমর্থন করে না। কাজেই কৃত ওয়াদা পালনে মূর্তি স্থাপন না করে শেখ মুজিবের নামে আল্লাহর নিরানব্বই নাম খচিত স্মৃতি স্তম্ভ বা কুরআনের ক্যালিগ্রাফী স্থাপন করুন। এতে শেখ মুজিবের আত্মা শান্তি পাবে। তিনি মূর্তি বিরোধী আন্দোলনের কর্মসূচির সাথে একাত্ততা ঘোষণা করেন।

আজ শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) বাদ জুম’আ জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন উর্ধ্বগতি, দেশব্যাপী বেপরোয়া যেনা-ব্যভিচার ও ধর্ষণ এবং আইন-শৃঙ্খলার চরম অবনতির প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ ও গণমিছিল পূর্ব জমায়েতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

চরমোনাই পীর বলেন, সরকার রাতের আধারে ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় আসার কারণে দেশে চরম অস্থিরতা বিরাজ করছে। দেশের সাধারণ মানুষের জন্য কোন দরদ নেই। সারাদেশে সরকারের ব্যর্থতা ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে ক্রমেই মানুষ ফুঁসে উঠছে। দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন উর্ধ্বগতির কারণে জনজীবন চরম দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। সিন্ডিকেট ভেঙ্গে দিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না সরকার। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম যেভাবে পাগলা ঘোড়ার মতো লাগামহীনভাবে ছুটে চলছে, তা সরকার নিয়ন্ত্রণ না করে সরকার দলীয় লোকজনের পকেট ভারী করার সুযোগ করে দিয়েছে। দেশে নিরব দুর্ভিক্ষ চলছে। জনগণের জন্য ভাবুন। মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের নামে দেশের সম্পদ লুটপাট করছে সরকারের লোকজন।

তিনি বলেন, হাল-জামানা আইয়্যামে জাহিলিয়াতকেও হার মানিয়েছে। শুধু আইন করলেই হবে না, ধর্ষণ ও যেনা-ব্যভিচার বন্ধ করতে হলে এগুলোর উৎস আগে বন্ধ করতে হবে। এক দিকে অশ্লীলতা উসকে দেওয়া হবে, অপরদিকে ধর্ষণ বন্ধ করার আইন দিয়ে ধর্ষণ বন্ধ হবে না।

মুফতী রেজাউল করীম বলেন, পর্নোগ্রাফি সারাদেশে মহামারি আকার ধারণ করেছে। পর্নোগ্রাফি, দেহ-ব্যবসা, অশ্লীলতা অবিলম্বে বন্ধ না করলে ধর্ষণ বন্ধ করা যাবে না। যেনা-ব্যভিচার, পরকিয়ারও কঠোর শাস্তির বিধান করতে হবে।

আইন শৃঙ্খলার অবনতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রক্ষক যেখানে ভক্ষক হয়, সেখানে আইনের শাসন থাকে না। তিনি পুলিশি হেফাজতে সিলেটের রায়হান হত্যার ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে দিতে দোষী পুলিশকে ধরিয়ে দিতে ১০ লাখ টাকার ঘোষণা আইন-শৃঙ্খলার দেওলিয়াত্ব প্রমাণ করে। রায়হান হত্যার ঘটনা পুলিশি হত্যাকারী ছিল, তা দিবালোকের মতো স্পষ্ট। পুলিশ বাহিনীকে বিতর্কের ঊর্ধ্বে ও ভঙ্গুর ভাবমূর্তি রক্ষায় সরকারের উচিত দোষী পুলিশ সদস্যদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করে তা দ্রুত কার্যকর করা।

বিক্ষোভ সমাবেশে প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী বলেন, নারী প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, শিক্ষামন্ত্রীসহ সরকারের উচ্চপদে বেশিরভাগ নারী। তারপরও নারীদের প্রতি এত জুলুম, নির্যাতন, ধর্ষণ মেনে নেয়া যায় না। ছাত্রলীগের নেতারাই ধর্ষণকাজে বেশি জড়িত। ছাত্রলীগ করে তারা ভাল ছাত্র না হয়ে ধর্ষকলীগ হলো। সকল অপকর্মের সাথে জড়িত সরকার দলীয় লোকজন। ধর্ষণ, মাদক কারাবারি, টেন্ডারবাজি, দুর্নীতিসহ সকল অপকর্মের সাথে জড়িত।

তিনি বলেন, রাতের আধারে ক্ষমতায় গিয়ে এখন ধরাকে শরা জ্ঞান করছেন। সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে দেখুন আপনার দলের অবস্থান কোথায়?

মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেন, খুন, ধর্ষণ, চুরি-ডাকাতি বন্ধে আইন থাকলেও এগুলো বন্ধ হচ্ছে। কেন আইন কাজে লাগছে না। জনগণের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। ব্যবস্থা না নিলে জনগণ সরকারের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠবে। বিভিন্ন স্থানে নারীদেহের নগ্ন মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। এগুলো বন্ধ না হলে দেশময় আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

অধ্যাপক মাহবুবর রহমান বলেন, ঢাবির মত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমন একজন শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন, এখন ঢাবির ছাত্র হিসেবে পরিচয় দিতেও লজ্জা লাগে। সেই নাস্তিক জিয়া রহমানকে অপসারণ করতে হবে। তিনি সরকারি টাকায় মূর্তি ও নৌকা বানানোর নিন্দা জানিয়ে বলেন, এদেশটা আওয়ামীলীগের নয়, ১৬ কোটি জনগণের। জনগণের টাকায় মূর্তি স্থাপন সহ্য করা হবে না।

মাওলানা মুহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন, শুদ্ধভাবে জোরে জোরে বেশি বেশি সালামের মাধ্যমে নাস্তিকদের জবাব দেওয়া হবে। তিনি ধর্ষণ বন্ধে পাড়া মহল্লায় ধর্ষণবিরোধী বৈঠক করে ধর্ষণ বন্ধে কাজ করার আহ্বান জানান।

তিনি কতিপয় মিডিয়ার সমালোচনা করে বলেন, আপনারা ইসলামবিদ্বেষী ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে স্বাধীন মতপ্রকাশের নামে ইসলামবিরোধী কর্মকান্ড করবেন না। তাহলে ইসলামী জনতা আপনারদেরও ছাড়বে না।

শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, ধর্ষণ বন্ধে আইনের শাসন এবং আইন প্রয়োগ করতে হবে। সেইসাথে ধর্ষণের সকল উৎস বন্ধ করতে হবে। সালাম ও আল্লাহ হাফেজকে জঙ্গিবাদের সাথে তুলনা করে ঢাবির নরাধম শিক্ষক মুর্খতার পরিচয় দিয়েছে। তাকে অবিলম্বে বহিস্কার করতে হবে।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংগঠনটির প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী, মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান। প্রধান বক্তা ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ ইমতিয়াজ।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, ছাত্রনেতা এম. হাছিবুল ইসলাম, মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, মু.হুমায়ুন কবির, মুফতী ফরিদুল ইসলাম, মাওলানা এইচএম সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, কেএম আতিকুর রহমান, হাজী মনির হোসেন, মাওলানা নেছার উদ্দিন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *