রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১

কাশ্মীর প্রশাসনের শীর্ষ পদগুলো থেকে মুসলিমদের নিশানা মুছে ফেলা হয়েছে

চলতি বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর ভারতের বিখ্যাত টিভি সাংবাদিক করন থাপার কাশ্মীরের প্রবীণ ভারতপন্থী রাজনীতিবিদ ড. ফারুক আব্দুল্লাহর সাক্ষাতকার নেন। সাক্ষাতকারের শেষের দিকে থাপার আব্দুল্লাহকে একটা কঠিন প্রশ্ন করেন: “কাশ্মীর ভারতের একমাত্র মুসলিম সংখ্যাগুরু রাজ্য ছিল, এখন যেটা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল। তারপরও আমি দেখছি যে, এই মুহূর্তে কাশ্মীরের সবগুলো শীর্ষ পদ দখল করে আছেন অমুসলিমরা। লে. গভর্নর একজন অমুসলিম, মুখ্য সচিব অমুসলিম, পুলিশ প্রধান অমুসলিম, দুজন ডিভিশনাল কমিশনারই অমুসলিম, পুলিশের দুই আইজি অমুসলিম, প্রধান বিচারপতিও অমুসলিম। সাবেক মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে এই বিষয়টাকে আপনি কিভাবে দেখেন?”

ধুসর কারাকাল ক্যাপ পড়া আব্দুল্লাহ কিছু সময় মাথা নিচু করে রেখে হেসে বলেন: “আপনি কি মনে করেন, এগুলোকে আমি কি দৃষ্টিতে দেখবো?”

কিছু দিন পরেই আরেক সাক্ষাতকারে আব্দুল্লাহ বলেন: “আমরা যখন ক্ষমতায় ছিলাম, সেটা আমার বাবা হোক, আমি আবার আমার ছেলে, মুফতি সাহেব বা অন্যরা হোক – আমলাতন্ত্রের মধ্যে হিন্দু-মুসলিমরা সমানভাবে ছিল। আজ এল-জি নিয়োগ দেয়া হয়েছে যিনি একজন হিন্দু, ডিজি আর দুই আইজি হিন্দু। আমাদের সময় উভয় সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব ছিল… আজকে সেই ভারসাম্যটা আর নেই। মুসলিমদেরকে পুরোপুরি মুছে ফেলা হয়েছে। তোমরা কি মনে করো যে, একটি সম্প্রদায়ের মানুষেরই শুধু মেধা আছে, অন্যদের কোন মেধা নেই?”

দুর্ভাগ্যের পাহাড়

৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের পর স্থানীয় জনগোষ্ঠির মধ্যে এই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে যে, ৭০ বছর ধরে তারা যে বিশেষ মর্যাদা ভোগ করে আসছিলো, ভারতের হিন্দুপন্থী কেন্দ্রীয় সরকার সেটা বাতিলের মাধ্যমে মুসলিম জণগোষ্ঠীকে দাসে পরিণত করার চেষ্টা করবে। এই আশঙ্কা সত্য হতে চলেছে। করন থাপার যেমনটা ইঙ্গিত করেছিলেন, বর্তমানে কাশ্মীরের প্রশাসনিক কাঠামোতে, পরিস্থিতি তার চেয়েও বেশি খারাপ।

এককালের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের ৬৭ শতাংশ এবং কাশ্মীর উপত্যকার ৯৭ শতাংশ মানুষই হলো মুসলিম। এরপরও প্রশাসনে স্থানীয় কর্মকর্তাদের সংখ্যা মাত্র ৪৫ শতাংশ। কাশ্মীরের প্রশাসনিক সার্ভিসে ৫২০ জন কর্মকর্তার মধ্যে মুসলিম রয়েছে মাত্র ২৩৮ জন (৪৫ শতাংশের কম)। জম্মু ও কাশ্মীরের ২০টি জেলার মধ্যে মুসলিম ডেপুটি কমিশনার রয়েছে মাত্র নয়টি জেলায়। জম্মু ও কাশ্মীরে ভারতীয় প্রশাসনের সার্ভিস ক্যাডারে ৫৮ জনের মধ্যে মুসলিম রয়েছে মাত্র ১১ জন, শতকরা হিসাবে যেটা মাত্র ১৮ শতাংশ।

প্রধান পদগুলোতে অমুসলিমরা

অর্থ দফতরের প্রধান অরুণ কুমার মেহতা (অমুসলিম)। জম্মু ও কাশ্মীরের প্রিন্সিপাল অ্যাকাউন্ট্যান্ট জেনারেল হলেন ইলা সিং (অমুসলিম)। আবাসন ও শহর উন্নয়ন বিভাগের প্রধান ধিরাজ গুপ্ত (অমুসলিম)। পরিবহন বিভাগের প্রধান প্রদীপ কুমার (অমুসলিম)। সমাজ কল্যাণ দফতরের প্রধান বিপুল পাঠক (অমুসলিম)। রাজস্ব বিভাগের প্রধান পবন কোতয়াল (অমুসলিম)। গণপুর্ত দফতরের প্রধান শালিন্দ্র কুমার (অমুসলিম)। পরিকল্পনা দফতরের প্রধান সিমরান্দিপ সিং (অমুসলিম)। পানি সম্পদ বিভাগের প্রধান এম রাজু (অমুসলিম)। শিল্প বিভাগের প্রধান মনোজ কুমার দিবিদি (অমুসলিম)। বিদ্যুৎ ও তথ্য বিভাগের প্রধান রোহিত কানসাল (অমুসলিম)। আইন বিভাগের প্রধান অঞ্চল শেঠি (অমুসলিম)। আবাসন বিভাগের প্রধান শালিন কাবরা। খাদ্য সরবরাহ দফতরের প্রধান সিমরান্দিপ সিং (অতিরিক্ত দায়িত্ব) (অমুসলিম)। কৃষি বিভাগের প্রধান নাভিন কুমার চৌধুরী (অমুসলিম)। স্কুল ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের প্রধান যথাক্রমে আসগর হোসেন সুমন এবং তালাত পারভেজ। এই অমুসলিম আমলাদের ভিড়ে মুসলিম কর্মকর্তা রয়েছেন মাত্র দুইজন।

আগের সরকারের মন্ত্রী ছিলেন, এমন একজন সিনিয়র রাজনীতিবিদ প্রশাসনের এই পরিস্থিতিকে খুবই উদ্বেগজনক হিসেবে উল্লেখ করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই রাজনীতিবিদ বলেন যে, ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন সরকার একটা দায়মুক্তির সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠা করতে, একটা একপক্ষীয় প্রশাসন গঠন, স্থানীয় কর্মকর্তাদের দমন করা, আমলাদের মধ্যে সামন্তবাদী স্টাইলে বিভেদ সৃষ্টি এবং অদক্ষদের পুরস্কৃত করার একটা সংস্কৃতি তৈরি করতে ব্যস্ত।

তিনি আরও বলেন, কাশ্মীরের পুরো ব্যবস্থায় দুর্নীতি নজিরবিহীন পর্যায়ে চলে গেছে এবং অবৈধ সম্পদের অরক্ষিত বাজার হয়ে উঠেছে পুরো সিস্টেম। এই রাজনৈতিক নেতা বলেন, “পুরো জনগোষ্ঠির নাগরিক স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে। খনিজ সম্পদ লুট করা হচ্ছে এবং এই লুটেরারা এখন আনুষ্ঠানিক পৃষ্ঠপোষকতা পাচ্ছে”।

ইতিহাসের কি পুনরাবৃত্তি হচ্ছে?

১৯২৯ সালে স্বৈরাচারী হিন্দু প্রিন্স মহারাজা হরি সিংয়ের শাসনকালেও গণপ্রশাসনে মুসলিমদের অবস্থা একই রকম ছিল। বনায়ন দফতরে ১২৪ জন কর্মকর্তার মধ্যে মুসলিম ছিল মাত্র চারজন। শিক্ষা দফতরে ৫৬ জনের মধ্য ছয় জন ছিল মুসলিম। বিচার বিভাগে ৩৩ জনের মধ্যে মুসলিম ছিল চারজন। স্বাস্থ্য দফতরে ২২০ জনের মধ্যে ৩২ জন ছিল মুসলিম। রাজস্ব দফতরে ১৪৮ জনের মধ্যে মুসলিম ছিল ৩৫ জন। ৮৭ জন সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তার মধ্যে মাত্র ১২ জন ছিল মুসলিম।

তাছাড়া প্রশাসন চালানোর জন্য ব্রিটিশ ভারত থেকে বিশেষ করে পাঞ্জাব থেকে উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের আমদানি করা হতো। এই শীর্ষ পদে যাদেরকে আনা হতো, তাদের কারোরই কাশ্মীরের মানুষের ব্যাপারে কোন সমবেদনা ছিল না (আর সে কারণেই ওই সব পদের জন্য তাদের উপযুক্ত মনে করা হতো)।

সর্বশেষ পরিস্থিতি

গত বছরের ৫ আগস্টের আগ পর্যন্ত কাশ্মীরের নিজস্ব সংবিধান, পুলিশ আইন ও আলাদা পতাকা ছিল। একটা অনন্য আইন ছিল এই অঞ্চলের জন্য, যেটা অনুসারে জম্মু ও কাশ্মীরের বাইরের কেউ কাশ্মীরে সম্পত্তি কিনতে বা এখানকার স্থায়ী অধিবাসী হতে পারবে না।

তবে, ২০১৯ সালের ৫ আগস্টে এ অঞ্চলের উপর অনিশ্চয়তার মেঘ নেমে আসে। কেন্দ্রের হিন্দু জাতীয়তাবাদী বিজেপি সরকার ভারতের সংবিধান থেকে কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে এবং কাশ্মীরে অন্যদের সম্পত্তি কেনা এবং স্থায়ী অধিবাসী সংক্রান্ত আইনও বাতিল করে। জম্মু ও কাশ্মীরের মর্যাদাও সীমিত করে আনে সরকার। যে রাজ্যটি একসময় ভারতের একমাত্র সংখ্যাগুরু মুসলিম রাজ্য ছিল, সেটাকে কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে রূপান্তরিত করা হয়।

এর ফলে ক্ষুব্ধ মানুষ প্রতিবাদ শুরু করে এবং তাদের দমনের জন্য সরকার পুরো অঞ্চলে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়া, ইন্টারনেট, মোবাইল ও টেলিফোন সেবা বহু মাস ধরে বন্ধ ছিল। উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা এখন পর্যন্ত সেখানে স্বাভাবিক করা হয়নি।

সাউথ এশিয়ান মনিটর থেকে নেওয়া | লেখক: পিরজাদা উমর

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img