মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২১

আধিপত্যবাদি অপশক্তি ইসলামবিদ্বেষ ছড়িয়ে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করছে : আল্লামা কাসেমী

ফ্রান্সে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিরুদ্ধে অবমাননার প্রতিবাদে দেশবাসীর শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ চলকালে আধিপত্যবাদিরা ইসলাম অবমাননার মাধ্যমে সাম্প্রদায়িক অসন্তোষ তৈরি করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে আবার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে উল্লেখ করে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

আজ (৫ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ফ্রান্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কটুক্তি ও ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের পাশাপাশি ইসলামকে ভীতিকর ও হেয় করার একটা ধারাবাহিক হীন প্রচেষ্টা চলছে। এসবই যে উস্কানিমূলক এবং মানবাধিকার বিরোধী তৎপরতা তা স্পষ্ট। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে আন্তর্জাতিক কিছু কুচক্রিমহলের এইরূপ অপচেষ্টার নিন্দা ও শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ করে যাচ্ছি। একই সঙ্গে দেশের সরকারকেও ইসলাম ও মানবাধিকার বিরোধী এই অপতৎপরতার বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেয়ার দাবি জানাই।

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, ইসলাম শান্তি, সহনশীলতা, ইনসাফ ও মানবতার ধর্ম। এই মহান ধর্মের অনুসারী হিসেবে আমরা নিজেদের ধর্মীয় স্বকীয়তাবোধ বজায় রাখার পাশাপাশি অপরাপর ধর্মাবলম্বীদের সাথে মানবিক, সামাজিক ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও শান্তির পক্ষে দৃঢ় অবস্থান বজায় রেখে চলি। কিন্তু গত এক সপ্তাহ যাবত আমরা লক্ষ্য করছি, রাসূল (সা.)এর মর্যাদা রক্ষার ঈমানী আন্দোলনকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক গোলযোগ তৈরি করে ফায়দা লুটতে দেশবিরোধী অপশক্তি পুনরায় গভীর ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

তিনি বলেন, দেখা যায় প্রথমে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কাউকে ব্যবহার করে ইসলাম অবমাননা ঘটিয়ে মুসলিম সমাজে উত্তেজনা ছড়ানো হয়। তারপর উত্তেজিত জনতার প্রতিক্রিয়াকে পুঁজি করে দেশি-বিদেশী চিহ্নিত মিডিয়াগুলো বাংলাদেশের মুসলমানদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ও দেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে হুমকিজনক প্রতিবেদন প্রচার করে। এ সময় প্রতিবেশী দেশের কতিপয় রাজনৈতিক নেতা ও মিডিয়াকেও প্রকাশ্যে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রচারণায় দেখা যায়। ঘটনা পরম্পরায় এটা স্পষ্ট, এসব ঘটনার পেছনে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ববিরোধী আধিপত্যবাদি শক্তি জড়িত এবং তাদের পরিকল্পনাতেই এসব ঘটানো হচ্ছে। চলতি সপ্তাহের লালমনিরহাট ও কুমিল্লার অনাকাঙ্খিত ঘটনার সাথে নিকট অতীতের বি-বাড়ীয়া, রংপুর ও ভোলার ঘটনার পূর্বাপর চরিত্রের একই রকম মিল দেখা যায়। সবকিছু যেনো একই সূত্রে গাঁথা এবং একই জায়গা থেকেই এর কলকাঠি নাড়ানো হচ্ছে।

জমিয়ত মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশে ইসলাম অবমাননার ঘটনা ফেসবুকের যেসব আইডি থেকে চালানো হয়, সবসময় অভিযুক্তের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় আইডি হ্যাক হয়েছে। পরে প্রশাসনের তরফ থেকেও তাদের দাবির পুনরাবৃত্তি হয়। রংপুর ও ভোলার ঘটনায় মুসলমানদের প্রাণহানী হল। কিন্তু যাদের উস্কানীতে এসব ঘটছে, এখনো তাদেরকে চিহ্নিত করা হল না কেন? প্রশাসনের তরফ থেকে তদন্ত চলছে জানানো হয়। কিন্তু বছরের পর বছর গেলেও সেই তদন্তের ফল কি, আসলেই আইডি হ্যাক হয়েছিল কিনা, বা কারা হ্যাক করেছে, এসব ইসলাম অবমাননার ঘটনার সাথে কারা জড়িত চিল, জনগণকে কিছুই জানানো হয় না। এভাবেই দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীরা বার বার সুযোগ পাচ্ছে।

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী সরকারের প্রতি দাবি জানিয়ে বলেন, অবিলম্বে দেশে ইসলাম অবমাননার ঘটনা ঘটিয়ে সাম্প্রদায়িক উস্কানী সৃষ্টির মাধ্যমে দেশবিরোধী তৎপরতায় কারা জড়িত, কাদের ইন্ধনে এসব হচ্ছে, কারা গুটিবাজি করছে, সুনিপুণ তদন্তের মাধ্যমে সবকিছু উদ্ঘাটন করে জাতিকে জানাতে হবে এবং দায়ীদেরকে কঠোর সাজা দিতে হবে। নাছির নগর, রংপুর ও ভোলার ঘটনায় মূল হোতাদেরকে বের করে যদি শাস্তি দেওয়া হতো, হয়তো এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি আর দেখতে হতো না। দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি এবং স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে হুমকিমুক্ত রাখতে প্রশাসনকে এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া জরুরী।

তিনি দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বিরুদ্ধে যে কোন ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত সম্পর্কে সজাগ ও সতর্ক থাকতে দেশবাসীর প্রতি জোর আহ্বান জানান।

spot_img
spot_imgspot_img

সর্বশেষ

spot_img
spot_imgspot_img
spot_imgspot_img