বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ৮, ২০২২

ভারত-চীন সংলাপ শুরু; পাল্টাপাল্টি দাবি, বড়সড় সংঘাতের আশঙ্কা সিডিএসের

ভারত-চীন সীমান্তের পূর্ব লাদাখে চলমান উত্তেজনা ও অচলাবস্থার বিষয়ে সামরিক কোর কমান্ডার স্তরের অষ্টম পর্বের আলোচনা শুরু হয়েছে।

শুক্রবার (৬ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ন’টায় ওই সংলাপ শুরু হয়। অষ্টম রাউন্ডের ওই বৈঠক লাদাখের চুসুলে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

জানা গেছে, এই পর্যায়ে ভারত আবারও চীনের সামনে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার দাবির পুনরাবৃত্তি করেছে। ভারতের দাবি, মে মাসের প্রথম সপ্তাহের আগে চীনা সেনারা যে জায়গায় ছিল চীন তার সেনাদের সেই জায়গায় ফিরিয়ে নিয়ে যাক। অন্যদিকে, চীনের বক্তব্য ভারতীয় সেনারা প্রথমে প্যাংগং লেকের দক্ষিণাঞ্চল থেকে সরে যাক।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রের খবর, প্যাংগং লেকের উত্তর তীরে ফিঙ্গার এরিয়া ৫ থেকে ৮ পর্যন্ত ভারতীয় সেনা যাতে আগেরমতো টহল দিতে পারে, বৈঠকে সেই দাবি তোলা হবে। এছাড়া সংঘাতের নয়াক্ষেত্র অর্থাৎ প্যাঙ্গং লেকের দক্ষিণ তীর থেকে চীনা সেনা সরানোর দাবি জানানো হচ্ছে।

প্রকৃতপক্ষে, ভারত প্যাঙ্গং লেকের ওই অঞ্চলের কৌশলগত চূড়াগুলো দখল করেছিল, যখন চীনা সেনাবাহিনী ফিঙ্গার ৪-এর বাইরে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে টহল দিতে দেয়নি। ওই অঞ্চলে উপস্থিত হয়ে ভারত নিজের অবস্থানে একটি কিছুটা এগিয়ে রয়েছে। গত ১২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত সর্বশেষ সংলাপে চীন আংশিকভাবে ওই এলাকা থেকে সেনা প্রত্যাহারের প্রস্তাব করলেও ভারত তা প্রত্যাখ্যান করেছে।

গত মে মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে পূর্ব লাদাখে উভয় দেশের সেনাবাহিনী মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। এরইমধ্যে দু’দেশের মধ্যে চলমান বিরোধ সাত মাস পার হয়ে গেছে। ওই সময়ের মধ্যে সপ্তম পর্যায়ের আলোচনা হয়েছে, কিন্তু কূটনৈতিক ও সামরিক স্তরে সংলাপ সত্ত্বেও এখনও পর্যন্ত কোনও সমাধান পাওয়া যায়নি।

এদিকে, পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় (এলএসি) ভারত ও চীনা সেনাদের মধ্যে বৃহত্তম সংঘাতের আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন, চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ (সিডিএস) জেনারেল বিপিন রাওয়াত।

শুক্রবার জেনারেল রাওয়াত দাবি করেন, পাকিস্তানের সঙ্গে চীন হাত মেলানোর ফলে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

জেনারেল রাওয়াত বলেন, চীনা সেনাদের আগ্রাসী আচরণের কারণেই পূর্ব লাদাখে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। আগামীতে তা আরও তীব্র হতে পারে।

spot_img
spot_img
spot_img

সর্বশেষ

spot_img